গোদাগাড়ীরাজশাহী সংবাদ

‘ডিজিটাল প্রতারণা’র অভিযোগে গোদাগাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১২ জনের নামে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ‘ডিজিটাল প্রতারণার’ শিকার হয়েছেন রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার এক ছাত্রলীগ নেতা। তার ফেসবুক আইডি নকল করে হুবহু আরেকটি ফেসবুক আইডি থেকে আপত্তিকর কথোকপথন করে তার স্ক্রীনশট ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে ফেসবুকেই।
এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। হামলা ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে রুবেল হোসেন নামের ওই ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতেও। এ নিয়ে গোদাগাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন রুবেলের বাবা। রুবেল গোদাগাড়ী পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। আর মামলার আসামি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর উপজেলা যুবলীগের সভাপতিসহ ১২ জন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

রোববার গোদাগাড়ী থানার আমলী আদালত-৬ এ মামলাটি দায়ের করেছেন রুবেলের বাবা সইবুর রহমান (৪৫)। আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দিয়েছেন।

এ মামলায় গোদাগাড়ী পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি হামিদ রানাকেও (৩০) আসামি করা হয়েছে। অন্য আসামিরা হলেন- শামীম আক্তার (৩৬), কাউসার মাসুম (৪২), শাকিল খান (২৩), ইসাহাক আলী (২৫), সেলিম রেজা (৩০), ইমরুল কায়েশ (৩০), সোহাগ আলী (২৫), রিজন আলী (২৫), মো. সালভী (২০) এবং মো. হৃদয় (২০)। এঁরা স্থানীয় ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতাকর্মী।

ছাত্রলীগ নেতা রুবেল বলেন, ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া কয়েকটি স্ক্রিনশট নিয়ে ঘটনার সূত্রপাত। তার ফেসবুক আইডির ছবি ব্যবহার করে একই নামে হুবহু আরেকটি ফেসবুক আইডি কেউ বা কারা খুলেছিল। তারপর সেই আইডি থেকে শাকিল নামের আরেকজনের সঙ্গে কথোপথন করা হয়। এই কথোপকথনে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে অশ্লীল ও আপত্তিকর কথা লেখা হয়।
এরপর সেই কথোপকথনের স্ক্রিনশট মিম আক্তার নামের একটি ভুয়া ফেসবুক আইডি থেকে পোস্ট করা হয়। আর এতেই উত্তেজনা দেখা দেয় এলাকায়। রুবেল বলেন, তিনি ফেসবুকে এ ধরনের কোনো কথোপকথন কারও সঙ্গে করেননি। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার জেরে তাকে ফাঁসাতে ভুয়া আইডি খুলে এই কথোপকথন তৈরি করা হয়েছে। এরপর তা ফেসবুকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। বিষয়টি নজরে আসার পর তিনি গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাইরুল ইসলামকে অবহিত করেন। ওসি তার মুঠোফোন চান। তিনি থানায় গিয়ে নিজের ফোনটি থানায় জমা দিয়ে আসেন। তবে এখন তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। যে কোনো সময় হামলার আশঙ্কা করছেন।

এদিকে মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ফেসবুকে স্ক্রিনশটগুলো ছড়িয়ে পড়ার পর উপজেলা চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। গত শুক্রবার উপজেলা চেয়ারম্যান রুবেলকে ফোন করে হুমকি দেন। বলেন, আগুন দিয়ে পুরো বংশকে পুড়িয়ে মারা হবে। এর কিছুক্ষণ পরই মামলার অন্য আসামিরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে গোদাগাড়ী পৌরসভার ভগবন্তপুর মাস্টারপাড়া মহল্লায় রুবেলের বাড়ি যান তাকে খুঁজেতে। বাড়িতে ঢুকে তারা অশ্লীল ভাষায় গালাগালি করেন। তারা বাড়ির পাঁচটি ঘরেই রুবেলকে খোঁজেন। না পেয়ে বাড়ির আসবাবপত্র ভাঙচুর করেন। স্বর্ণালংকার এবং নগদ টাকাও লুট করা হয়।

মামলার বিষয়ে কথা বলতে উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে কথা বলতে তাকে ফোন করা হলেও তিনি ধরেননি। তাই বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে গোদাগাড়ী থানার ওসি খাইরুল ইসলাম জানান, ফেসবুকের ঘটনাটি তিনি জানেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। রুবেলের মুঠোফোন নিয়ে সেটির তদন্ত চলছে বলে জানান ওসি।

 

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button