সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

অশ্লীল ভিডিও ফাঁসের ভয় দেখিয়ে মুক্তিপণ দাবি, গ্রেফতার ২

সংবাদ চলমান ডেস্ক :ফোনের মাধ্যমে পরিচয়। পরে চায়ের দাওয়াত দিয়ে বাসায় নিয়ে জোর করে চক্রের নারী দিয়ে অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে  সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে প্রচার করার ভয় দেখিয়ে মুক্তিপণ দাবি করে এই চক্রটি।

শনিবার র‌্যাব-১ এর স্কোয়াড কমান্ডার (সিপিসি-১) এএসপি কামরুজ্জামান তথ্যটি নিশ্চিত করে জানান, শুক্রবার রাত ২টার দিকে মালিবাগ সিআইডি অফিসের সামনে থেকে অপহরণকারী চক্রের দুই জনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৩। গ্রেফতাররা হলেন, সৈয়দ রাসেল, ও মো. তারেক হোসেন।

হাফেজ মাওলানা আব্দুল মজিদ একটি ওষুধ কোম্পানীতে কর্মরত। মজিদের সঙ্গে এক নারীর মোবাইলফোনের মাধ্যমে পরিচয় হয়। এরই সূত্র ধরে মজিদকে ওই নারী অপহরণের উদ্দেশ্যে চায়ের দাওয়াত দিয়ে মালিবাগের পশ্চিম চৌধুরীপাড়া, হাজীপাড়া বাসার একটি ফ্ল্যাটে ডেকে নেয়। সেখানে পূর্ব থেকেই ৪ থেকে ৫ জন উপস্থিত লোক জোরপূর্বক মজিদের পরিধেয় বস্ত্র খুলে ফেলে এবং ওই নারীও নিজের পরিধেয় বস্ত্র খুলে মজিদের পাশে অবস্থান নেয়। মজিদ বারবার বাধা দিলে তাকে বেধরক মারপিট করা হয়। এমতাবস্থায় মজিদ এবং ওই নারীর একসঙ্গে অশ্লীল ভিডিও ধারণ করা হয়।

এরপর অপহরণকারী চক্রটি মজিদের মোবাইলফোনের মাধ্যমে তার পরিবারের কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। অন্যথায় এসব ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে প্রচার করা হবে বলে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। এমতাবস্থায় তার পরিবার র‌্যাব-৩ ক্যাম্পে এসে একটি লিখিত অভিযোগ করে।

তাদের দেয়া তথ্যমতে র‌্যাব ওই বাসায় অভিযান পরিচালানা করে। এ সময় ওই দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়। অপহরণকারী চক্রের অন্যান্য সদস্যরা পালিয়ে যায়। বাসা থেকে আটক অবস্থায় ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে ‘সংবাদ প্রতীক’ নামীয় দুটি, ‘বাংলাজমিন’ নামক পত্রিকার একটি আইডি কার্ড এবং তাদের মোবাইল থেকে জোরপূর্বক ধারনকৃত অশ্লীল ভিডিও পাওয়া যায়।

গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা ৬ থেকে ৭ জনের একটি চক্র যেখানে এমন নারী সদস্যও রয়েছে। এভাবে বিভিন্ন সময়ে তারা বিভিন্ন ব্যক্তিকে কৌশলে অপহরণ করে জোরপূর্বক অশ্লীল ভিডিও বানিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে আসছে। তারা প্রায় সবাই কোনো না কোনোভাবে অনলাইন মিডিয়ার ভুয়া আইডি কার্ড তৈরি করে ভুয়া সাংবাদিকতার আড়ালে এ ধরনের অপরাধ করে আসছে।

তারা আরো জানায়, অশ্লীল ভিডিওগুলো তারা ডিলিট না করে সংরক্ষণ করে রাখে এবং পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে ব্ল্যাক মেইলের মাধ্যমে ফোন করে মোটা অংকের টাকা আদায় করে

উপরোক্ত বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

 

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button