সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

সাদেক হোসেন খোকা আর নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক:
অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও ঢাকা মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকা আর নেই। (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন)।

নিউইয়ার্কে ম্যানহাটনের স্লোন ক্যাটরিং ক্যান্সার সেন্টার হাসপাতালে বাংলাদেশ সময় সোমবার (৪ নভেম্বর) বেলা ১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রকাশ করেছেন বলেও জানান শায়রুল।

দীর্ঘদিন ধরে খোকা কিডনির ক্যান্সারে ভুগছেন।

গত ৩ দিন ধরে তার সব চিকিৎসা বন্ধ করে দিয়েছেন চিকিৎসকরা। সংকটাপন্ন অবস্থায় তাকে নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছিল।

এর আগে, ২০১৪ সালের ১৪ মে চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে যান সাদেক হোসেন খোকা।

এক নজরে খোকা

খোকার জন্ম: ১৯৫২, ১২ মে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন।

মুক্তিযুদ্ধে: ১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র থাকাকালীন অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন খোকা।

ব্রাদার্স ইউনিয়নের দায়িত্বে: ১৯৭২ সালে ব্রাদার্স ইউনিয়নের দায়িত্ব গ্রহণ করেন খোকা।

বাবরি মসজিদকে নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায়: ১৯৯০ সালে বাবরি মসজিদ ভাঙাকে কেন্দ্র করে পুরান ঢাকায় হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলার চেষ্টা হলেও তা প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন খোকা।

সংসদ সদস্য: ১৯৯১ সালে ঢাকা-৭ আসন থেকে প্রথমবারের মতো ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন খোকা।

প্রতিমন্ত্রী: ১৯৯১ সালে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব লাভ করেন খোকা।

দ্বিতীয়বার সংসদ সদস্য: ১৯৯৬ সালে পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন খোকা।

বিএনপির আহ্বায়ক: ১৯৯৬ সালে ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়কের দায়িত্ব পান খোকা।

মন্ত্রণালয়ে খোকা: ২০০১ সালে আবারো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে মৎস্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব লাভ করেন তিনি।

মেয়র: ২০০২ সালে অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন খোকা।

বিএনপির সভাপতি: ২০০২ সালে ঢাকা মহানগর বিএনপির সভাপতি হন খোকা।

মন্ত্রণালয় ছাড়েন খোকা: ২০০৪ সালে মৎস্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করেন তিনি।

দুদকের মামলা: ২০০৮, ২ এপ্রিল সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে খোকার বিরুদ্ধে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন।

দ্বিতীয়বার বিএনপির আহ্বায়ক: ২০১১ সালে ফের খোকাকে ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়কের দায়িত্ব দেয়া হয়।

মেয়র থেকে পদত্যাগ: ২০১১ সালে অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়রের পদ থেকে সরে দাঁড়ান খোকা।

চিকিৎসা: ২০১৪, ১৪ মে সাদেক হোসেন খোকা চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্র যান।

অভিযোগ গঠন: ২০১৪, ৩০ অক্টোবর মামলায় দুর্নীতির মামলায় খোকার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

সাজা: ২০১৫, ২০ অক্টোবর দুর্নীতির মামলায় খোকাকে ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেন ঢাকার একটি আদালত।

হাসপাতালে ভর্তি: ২০১৯, ১৮ অক্টোবর নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের মেমোরিয়াল স্লোন ক্যাটারিং ক্যান্সার সেন্টারে ভর্তি করা হয়।

টিউমার অপারেশন: ২০১৯, ২৭ অক্টোবর খোকার শ্বাসনালী থেকে টিউমার অপারেশন করা হয়।

আইসিউতে খোকা: ২০১৯, ২৮ অক্টোবর খোকার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটলে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়।

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে খোকা: ২০১৯, ১ নভেম্বর চিকিৎসাধীন খোকার শারীরিক অবস্থা পরিবর্তনের আশা ছেড়ে দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button