দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

সাবেক এমপি’র এপিএস ও তার স্ত্রীকে পিটিয়ে আহত

দুর্গাপুর প্রতিনিধি:
রাজশাহী-৫ (দুর্গাপুর-পুঠিয়া) আসনের সাবেক এমপি আব্দুল ওয়াদুদ দারার এপিএস বদিউজ্জামান ও তার স্ত্রীকে পিটিয়ে আহত করেছে যুবলীগের নেতাকর্মীরা বলে অভিযোগ উঠেছে।
গতকাল রোববার সকালে উপজেলার বানেশ্বর বাজার এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে বলে নিশ্চিত করেছে স্থানীয়রা।
এই ঘটনায় এপিএস বদিউজ্জামান বদি (৩৮) ও তার স্ত্রী সেলিনা খাতুন শ্যামলী (৩২) আহত হয়েছেন। পরে গুরুতর আহত বদিউজ্জামানকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। আহত বদিউজ্জামান বদি দুর্গাপুর উপজেলার ঝালুকা ইউনিয়নের ভাংগির পাড়া গ্রামের আকবর আলীর ছেলে।
তিনি গত ১০ বছর রাজশাহী-৫ (দুর্গাপুর-পুঠিয়া) আসনের সাবেক এমপি দারা’র একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী হিসেবে কাজ করেছেন। এছাড়াও তিনি বানেশ্বর সরকারী কলেজে শিক্ষকতা করেন। তার বাবা আকবর আলীও দুর্গাপুর উপজেলার ঝালুকা ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি পদে রয়েছেন। এছাড়াও তার স্ত্রী শ্যামলী খাতুনও দুর্গাপুর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের বিউটিশিয়ান ট্রেনার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বদিউজ্জামাল তার স্ত্রীকে নিয়ে স্বশুড়বাড়ি তাতালপুর থেকে বানেশ্বর সরকারি কলেজে আসছেন। এসময় বানেশ্বর বাজারে পৌছালে ধানহাটা নামক এলাকায় স্থানীয় যুবলীগের সুমন, রিয়াজুল. শরিফ, সাইফুল ও উজ্জলসহ ৫/৭ জন নেতাকর্মীরা তার মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে। সেই সাথে তার কাছে সাড়ে ৩ লাখ টাকা দাবী করেন তারা। এসময় তাদের টাকা দিতে অশিকার করলে মোটরসাইকেলের চাবী ছিনিয়ে নেয় তারা। পরে বদিউজ্জামাল এর প্রতিবাদ করলে উপস্থিত ওইসকল যুবলীগে নেতাকর্মী তাকে মারধর শুরু করে। এসময় তার স্ত্রী উদ্ধারে এগিয়ে গেলে তাকেও মারধর করেন। আহত বদিউজ্জামান জানান, যুবলীগের কিছু নেতাকর্মীরা আমার কাছে চাঁদা দাবি করে আসছিলো। চাঁদা দিতে না চাইলে পথে এই হামলার শিকার হন তিনিসহ তার স্ত্রী । এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বর্তমান এমপি মনসুর রহমানের অনুসারী ও সাবেক এমপি দারা’র অনুসারীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এবিষয়ে পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল করিম বলেন, বানেশ্বর এলাকায় কিছু ছেলে বদিউজ্জামানকে মারধর করেছে। ঘটনস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। এই ঘটনায় থানায় অভিযোগ হয়েছে। তদন্তপুর্বক আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button