আন্তর্জাতিক

লেবাননের পাশে দাঁড়িয়েছে পুরো বিশ্ব

সংবাদ চলমান ডেস্ক:

ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর আন্তর্জাতিক সহায়তার আহ্বান জানিয়েছিলেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব। তার এ আহ্বানে দেশটির পাশে দাঁড়িয়েছে পুরো বিশ্ব। বৈরুতে দুই দফায় ভয়াবহ বিস্ফোরণে ব্যাপক হতাহতের ঘটনায় চিকিৎসা সহায়তা পাঠানোসহ হতাহতের পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ।

চিকিৎসা সহায়তা পাঠানোর পরিকল্পনা করছে ফ্রান্স, রাশিয়া, সিরিয়া, সৌদি আরব, কাতার, ইরাক ও কুয়েত।

এদিকে, বিস্ফোরণে হতাহতদের প্রতি শোক ও শ্রদ্ধা জানাতে দেশটিতে তিনদিনের রাষ্ট্রীয় শোক পালনের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। লেবাননের প্রধানমন্ত্রী বন্ধু প্রতীম রাষ্ট্রগুলোকে লেবাননের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানিয়েছেন। জাতিসংঘের মহাসচিব লেবাননের বৈরুতের ওই ঘটনায় হতাহতদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বিস্ফোরণে আহতদের চিকিৎসা সহায়তার জন্য তেহরান মেডিকেল দল প্রস্তুত আছে বলে জানিয়েছে। জর্ডানের রাজা ফিল্ড হাসপাতাল নির্মাণের সহায়তার কথা জানিয়েছে। ডাচ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে ডাক্তার, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের ৬৭ জনের একটি দল প্রস্তুত রয়েছে।

লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়েছে। এছাড়াও আহত হয়েছে চার হাজারের অধিক মানুষ। গতকাল মঙ্গলবার অতি বিস্ফোরক রাসায়নিক পদার্থের গুদামে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটে বলে জানায় দেশটির অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা বিষয়ক প্রধান।

বন্দরে বেশিরভাগ এলাকাই বিধ্বস্ত হয় এবং রাজধানীর আশপাশের ভবন ও পার্ক করা গাড়িগুলো মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়, অনেক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। বিস্ফোরণের কয়েক ঘণ্টা পরও ওই এলাকা থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যেতে দেখা যায়।

প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব এই ঘটনাকে বিপর্যয় বলে বর্ণনা করেছেন এবং দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলেছেন। একই সাথে আজ বুধবার রাষ্ট্রীয় শোক দিবস ঘোষণা করেছেন। এছাড়া দুই সপ্তাহের জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন এক ট্ইুট বার্তায় বলেছেন, কোনো গুদামে ২,৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মত বিস্ফোরক অনিরাপদভাবে মজুত রাখার বিষয়টি “অগ্রহণযোগ্য”।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইরান, মালয়েশিয়া, ভারত, বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ নিহতদের সমবেদনা ও শোক প্রকাশ করেছেন। ইরান ও সাইপ্রাস জরুরি ভিত্তিতে মেডিকেল টিম পাঠানোর প্রস্তাব করেছে।

যুক্তরাজ্য বলছে, এখনই কোনো ধারণা করা যাবে না। তবে আমাদের বিশ্বাস, লেবানন কর্তৃপক্ষ খুব শিগগিরই এই বিস্ফোরণের কারণ অনুসন্ধান করে প্রকৃত কারণ জানতে পারবে।

এদিকে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানির নির্দেশে আজ বুধবার সকালে লেবাননে উদ্দেশে জরুরি চিকিৎসা সহায়তা প্রেরণ করা হয়েছে। কাতার থেকে সাহায্য বহনকারী আমিরি বিমানবাহিনীর প্রথম বিমানটি রাফিক হারিরি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

গতকাল মঙ্গলবার লেবাননের রাজধানী বৈরুতের বন্দরে বিস্ফোরণে আহতদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় ঔষধ সামগ্রী সরবরাহ করে বিমানটি। তাছাড়া আরও তিনটি বিমান আজ পরিবহন সহায়তা করবে, যার মধ্যে প্রয়োজনীয় চিকিৎসার নানা সরঞ্জাম রয়েছে।

ট্যাগ

এই ধরনের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
%d bloggers like this: