রাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীতে জুয়া খেলে ব্যাংকের সাড়ে ৩ কোটি টাকা ভাঙলেন কর্মকর্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক: অনলাইনে জুয়া খেলে ব্যাংকের ভল্ট থেকে তিন কোটি ৪৫ লাখ টাকা ভেঙেছেন প্রিমিয়ার ব্যাংকের এক কর্মকর্তা। এ টাকা জুয়া খেলে তিনি হেরেছেন বলে স্বীকার করেছেন।

রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে এ তথ্য দিয়েছেন শামসুল ইসলাম ওরফে ফয়সাল। রিমান্ড শেষে বুধবার দুপুরে তাকে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। বিকেলে মহানগর মুখ্য হাকিম আদালতে তার ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার কথা রয়েছে।

জানা গেছে, শামসুল ইসলাম ওরফে ফয়সাল নগরীর সাগরপাড়া এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে। প্রিমিয়ার ব্যাংকের রাজশাহী শাখার ক্যাশ ইনচার্জ পদে কর্মরত ছিলেন তিনি।

ব্যাংক কর্মকর্তা ফায়সালের বরাত দিয়ে বোয়ালিয়া থানার ওসি নিবারণ চন্দ্র বর্মণ জানান, গত দুই বছর ধরে তিনি টাকাগুলো ব্যাংক থেকে সরাতে থাকেন। এই টাকায় তিনি বিপিএল ও আইপিএলসহ বিভিন্ন খেলায় অনলাইনে বাজি ধরতেন। এতে কখনো কখনো জিতলেও প্রায়ই হারতেন। এভাবে টাকাগুলো তিনি অনলাইনে জুয়া খেলে হেরেছেন বলে রিমান্ডে ফায়সাল জানিয়েছেন।

ওসি বলেন, গত সোমবার ফায়সালকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ব্যাংকের ভোল্ট থেকে টাকা সরানোর কথা স্বীকার করেন।

ফায়সাল জানান, ব্যাংকটির ভোল্টে সব সময় প্রায় ১৫ কোটি টাকা থাকত। টাকা রাখার ভল্টের সামনের লাইন ঠিক রেখে পেছনের লাইন থেকে তিনি টাকাগুলো সরাতেন। এতে করে ব্যাংকের কোনো কর্মকর্তার সন্দেহ হতো না।

ওসি নিবারণ চন্দ্র বর্মণ জানান, গত ২৪ জানুয়ারি ভোল্টের সমস্ত টাকা গণনার পর তিন কোটি ৪৫ লাখ টাকা কম পাওয়া যায়। এ সময় তিনি টাকা সরানোর কথা স্বীকার করেন। প্রথমে তিনি বলেন, টাকাগুলো তার দুই বন্ধুকে এবং তার ব্যবসার একটি প্রকল্পের কিস্তি দিয়েছেন। সে সময় টাকাগুলো ফেরত দেয়ার জন্য সময় চান তিনি।

তবে তার কথায় সন্দেহ হলে রাতে পুলিশের হাতে ফয়সালকে তুলে দেয় ব্যাংক কর্মকর্তারা। পরে প্রিমিয়ার ব্যাংকের জোনাল ম্যানেজার সেলিম রেজা খান বাদি হয়ে বোয়ালিয়া মডেল থানায় টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে মামলা করেন। সে মামলায় ফায়সালকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button