রাজশাহী সংবাদ

বাঙালির হোলি উৎসবের ঐতিহ্যিক পরম্পরা

বাঙালির হোলি বা দোল উৎসব ও আমাদের অসাম্প্রদায়িক মানসচেতনার ঐতিহ্য

উৎসব আর নানা পালপার্বণে ভরপুর বাংলাদেশ। এখানকার বিভিন্ন উৎসব, আচার, প্রথা ইত্যাদি আর্য-পূর্ব ধারাকে বহন করে চলেছে। আর্য সংস্কৃতির ফলে এগুলোতে কালে কালে কিছু পরিবর্তন আসলেও এখনো এদের আদি অকৃত্রিম চেহারার পরিচয় পাওয়া যায়। নৃতাত্তি¡ক সূত্রে এখানকার অষ্ট্রিক, দ্রাবিড়, আলপানীয়, মঙ্গোলীয় জনগোষ্ঠীর উত্তরাধিকার বাঙালি জনগোষ্ঠী গাজন, চড়ক, মুহররম, নববর্ষ, ঝুলন, হোলি বা দোল উৎসব লালন-পালন করে আসছে সুপ্রাচীনকাল থেকে। উৎসবগুলোর মূলভাব যেমন বাস্তবধর্মী, তেমনি আবেদনও স্বতঃস্ফ‚র্ত এবং আন্তরিকতাপূর্ণ। এসবে রয়েছে নানা সংস্কৃতির প্রভাব বা সমন্বয়। এরকমভাবে এককালের হোলি উৎসবের রূপরেণুর সঙ্গে পরের যুগের উৎসবের রূপরেণু মিশে

তাকে অভিনবত্ব দিয়েছে। মূলত তৎসম ‘হোরি’ থেকে এসেছে অপভ্রংশ ‘হোলি’। কৃষিনির্ভর সমাজের প্রজনন সম্পর্কিত পরব হোলি। জয়দেবের গীত গোবিন্দের প্রভাবে পরবর্তীকালে হোলি ও দোলযাত্রা একাত্ম হয়ে গেছে।

ছবি: সংগৃহীত

হোলি বা দোল উৎসব শ্রীকৃষ্ণের দ্বাদশ যাত্রার অন্যতম। ফাল্গুনী পূর্ণিমায় অনুষ্ঠিত এই জনপ্রিয় বৈষ্ণব উৎসবটি বঙ্গদেশ তথা ভারতের অন্যতম প্রধান গণউৎসব এবং সর্বপ্রধান বসন্তোৎসব। আদিতে হোলি উৎসব এবং দোল উৎসব ছিল পৃথক, বর্তমানে দু’টি উৎসবই একীভ‚ত হয়েছে। উভয়ের চরিত্র, আচার-আচরণ এখন এক, আবেদন ও তাৎপর্যও অভিন্ন। এটি বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন নামে পরিচিত। বাংলাদেশের অনেক অঞ্চলে এটি দোলযাত্রা বা দোলোৎসব নামে খ্যাত। ভারতের উড়িষ্যাবাসীরা বলেন দোলোৎসব, আবার উত্তর ও মধ্য ভারতের অধিবাসীরা বলেন হোলি’ বা হোরি, গোয়া ও কঙ্কণ অঞ্চলের লোকেরা বলেন শিমাগা, দক্ষিণ ভারতীয়রা বলেন, মদনদহন বা কামায়ন।

শ্রীকৃষ্ণের জন্মোৎসবকে কেন্দ্র করে হোলি উৎসব হয়। এ উৎসবের নায়ক-নায়িকা চিরন্তন প্রেমের প্রতীক রাধা-কৃষ্ণ। হোলির দিনে ব্রজগোপীরা হোরি খেলতেন নবঘন শ্যামের সঙ্গে। প্রেমের ফাগ মেখে গোপ বালক-বালিকাদের সঙ্গে হোরি খেলতেন শ্রীকৃষ্ণ; প্রেমের রঙে রাঙানো রাধার সঙ্গে হোরি খেলতেন তিনি। অবশ্য হোলি উৎসবের উদ্ভব কখন এবং কিভাবে হয়েছিল তার নিখুঁত বর্ণনা পাওয়া যায়না। তবে ঐতিহাসিক সত্য যে, মানুষ প্রাকৃতিক শক্তিকে বশীভূত করতে, তার আনুকূল্য লাভের জন্য অথবা প্রাকৃতিক রোষকে প্রশমিত করতে তার কার্যধারার মধ্যে একটা শৃঙ্খলা আনয়নের সুনির্দিষ্ট প্রয়াসের তাগিদেই পূজার্চনা, উৎসবকলার অথবা ব্রতানুষ্ঠানের সূত্রপাত ঘটিয়েছে। তাই প্রাচীন কৃষিজীবী সমাজে কৃষিকাজে সাফল্য লাভের আশায়, প্রাকৃতিক শক্তিকে বশীভূত করতে যেসব উৎসবের উদ্ভব হয়েছিল,

হোলি সেগুলোর অন্যতম বলে পন্ডিতগণ অনুমান করেছেন। প্রাচীন সমাজে ফসলের প্রাচুর্য ছিল প্রাণ প্রাচুর্যের প্রতীক, স্বল্পতা বা নির্জীবতা ছিল মৃত্যুর প্রতীক। তাই নরবলি অর্থাৎ প্রাণের বিনিময়ে মৃত বা মৃতকল্প প্রকৃতিতে প্রাণ সঞ্চারের প্রয়াস করতো তারা। বর্তমান হোলি উৎসবের উদ্ভব সেই প্রাচীন কৃষিজীবী সমাজ থেকেই বলে ঐতিহাসিকগণ এমনটিই মনে করেছেন। শ্রীকৃষ্ণের আবির্ভাব ঘটে ফাল্গুনী পূর্ণিমায়। আবার বৈষ্ণব ধর্মের প্রবর্তক শ্রীচৈতন্যদেবেরও আবির্ভাব ঘটে ১৪৮৬ খ্রীষ্টাব্দের ফাল্গুনী পূর্ণিমাতে। বৈষ্ণব সমাজে দোলযাত্রা বা হোলির সমাদর ও সমারোহ তাই অনেক বেশি। পদাবলী কীর্তনে দোললীলার বর্ণনা আছে।

ফাল্গুনী পূর্ণিমায় দোলযাত্রার সময় বিশেষ করে সেসব পদ গাওয়া হয়। পদাবলীতে রাধা-কৃষ্ণ লীলাকে একটি গীতিনাট্য কল্পনা করে একে অনেকগুলো বিভাগ-উপবিভাগে চিহ্নিত করা হয়েছে। ঝুলন, রাস, বসন্ত ও হোলি প্রভৃতি এর উপবিভাগ। গৌরাঙ্গ বিষয়ক এইপদগুলিকে বলা হয় গৌরচন্দ্রিকা। ব্রজগোপীদের সঙ্গে কৃষ্ণের ফাগু খেলা বা আবীর মাখানোর রসময় ঘটনার উল্লেখ আছে এসব পদে। যেমনÑ বরজ কিশোরী ফাগু খেলত রঙ্গে/চুয়াচন্দন      আবীর গোলাপ/ দেয়ত শ্যামের অঙ্গে/ফাগু হাতে করি ফিরত শ্রীহরি/ ফিরি ফিরি বোলত রাই। এভাবে বৃন্দাবন চাঁদ কৃষ্ণের সঙ্গে সুন্দরী ললিতা বিশাখাদের ফাগু খেলার চিত্র অনেক কবিতা-গানে অঙ্কিত হয়েছে। হোলির সঙ্গে রাধা-কৃষ্ণের ঝুলন এবং আবীর, কুমকুম বা পিচকারী খেলার নিবিড় যোগ রয়েছে। খ্রীষ্টপূর্ব দ্বিতীয়-তৃতীয় শতকে রামগড় গুহায় যে লিপি পাওয়া গিয়েছিল, তাতে ঝুলন উৎসবের বর্ণনা ছিল। পদকর্তা উদ্ধব দাস রাধা-কৃষ্ণের ঝুলন লীলার বর্ণনা দিয়েছেন চমৎকারভাবে: ঝুলত দুহুঁজন আনন্দে নিমগণ/ ঝুলায়ত যত সহচরী /ঝুলনায় ঝুঁকে রূপ চমকে/ আনন্দ কহনে না যায়। ঝুলনায় রাধা-কৃষ্ণকে দোলানোর সময় সহচরীরা তাদের উপর ফুল, কুমকুম এবং আবীর গোলাপ বা পিচকারী ছুঁড়তো। একইভাবে তারাও সখীদের উপর পিচকারী ছুঁড়ে মারতেন। মধ্যযুগে হোলি উৎসব আরো ব্যাপকতা পেয়েছিল। এ সময় বৈষ্ণব সাহিত্যে তো বটেই মঙ্গলকাব্যগুলোতেও হোলি প্রসঙ্গ এসেছে।

মধ্যযুগে হিন্দু মুসলমানদের মধ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ছিল। হিন্দুরা মুসলমানদের উৎসবে যেমন, তেমনি মুসলমানেরা হিন্দুদের উৎসব বসন্ত পঞ্চমী, হোলি, দিওয়ালী উৎসবে যোগ দিত। মুসলমান শাসক ও আমীর ওমরাহ্দের মধ্যে হোলি উৎসব খুবই জনপ্রিয় ছিল এবং হারেমের মহিলারা এতে স্বতঃস্ফ‚র্ত অংশগ্রহণ করতো। হোলি উৎসব সে সময় এঁদের পৃষ্ঠপোষকতা পেত। জানা যায়, মোঘল সম্রাট আওরঙ্গজেবের পৌত্র আজিম-উশ-শান, যিনি বাংলার সুবেদার ছিলেন, তিনি নিয়মিত হোলি উৎসবে যোগ দিতেন। আলিবর্দীর পরিবারের শাহামত জঙ্গ, শওকত জঙ্গ, সিরাজউদ্দৌলা ও অন্যান্য সদস্য এবং মীরজাফর এই উৎসব উপভোগ করতেন। সে সময়ে হোলি উপলক্ষে গান বাজনা সহযোগে ভোজন, রঙ ছিটানো এবং আবির মাখানো প্রচলিত ছিল। বঙ্গের নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা হোলি উপলক্ষে মিথ্যা সংবাদ দিয়ে আমীর-ওমরাহদের ডেকে তাঁদের বোকা বানাবার চেষ্টা করতেন। হোলি উৎসবের সময় ভারতের ছত্রপুরের রাজার কাছ থেকে ফরাসী পর্যটক  এক থালা তেতো মিষ্টি উপহার পেয়েছিলেন।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর অনেক বসন্ত সঙ্গীতে হোলি প্রসঙ্গ এসেছে। এসেছে রাধাঁ-কৃষ্ণের দোললীলার রসময় তাৎপর্যও। যেমন দোলে দোলে দোলে প্রেমের দোলন-চাঁপা হৃদয়-আকাশে/ দোল-ফাগুনের চাঁদের আলোর সুধায় মাখা সে/ কোমল প্রাণের পাতে পাতে/ লাগল যে রঙ পূর্ণিমাতে/ আমার গানের সুরে সুরে রইল আঁকা সে। এছাড়া তাঁর সোনার তরী কাব্যের ‘ঝুলন’, কথা ও কাহিনী কাব্যের ‘হোরিখেলা’সহ অনেক কবিতায় দোললীলার প্রসঙ্গ এসেছে। কবি নজরুল ইসলাম হোলিকেন্দ্রিক অনেক কবিতা-গানের জনক। তাঁর কবিতা-গানে অঙ্কিত হয়েছে হোলির দিনের নানাবিধ দৃশ্যাবলী। ‘হোলি’ শীর্ষক কবিতা গানে ‘হোরির সুরের গিটকিরিতে’ শ্যামকে ঘায়েল করবার কথা বলেছেন এভাবেÑ আয় ওলো সই, খেলবো খেলা/ ফাগের ফাজিল পিচকিরীতে/আজ শ্যাম জোর করবো ঘায়েল/ হোরির সুরের গিটকিরিতে। ‘বে-শরম’ কবিতায় ব্রজবুলিতে অঙ্কিত হয়েছে, কৃষ্ণের আঁখি ঠারে সখীদের অনুভ‚তি। তাঁর ‘ব্রজগোপী খেলে হোরি’ একটি জনপ্রিয় গান। এ গানে ব্রজগোপীদের সঙ্গে নবঘনশ্যামের হোলি খেলার বর্ণনা আছে। গোপিনীদের রাঙা অধর থেকে হাসির কুঙ্কুম ঝড়ছে, নয়নের পাতা থেকে ঝড়ছে অনুরাগ-আবীর। প্রেমের ফাগ মাখা রাধার সঙ্গে হরি আজ হোলি খেলছেন। বসন্তে পিচকারী হাতে যেন রাধাকে রাঙিয়ে দিতে এসেছেন। তাই যেন আজ চারিদিকে রঙের মেলা। সুতরাং প্রেম যমুনাতে আরও রঙ ঢালতে হবে।

হোলি উৎসবকে ঘিরে এভাবে অনেক গান কবিতা বা পদ বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে রচিত হয়েছে। এসব গান-কবিতা পদ-কাহিনীর চিরন্তন আবেদন কি শহর কি গ্রাম সকল সমাজের মানুষের নিকট সমাদরের, শ্রদ্ধার, একান্ত ভালবাসার। লোকসমাজে হোলিকে নিয়ে প্রচলিত আছে অনেক শুভাশুভ বিশ্বাস-সংস্কার, প্রথা, আচার-আচরণ, টোটেম-ট্যাবু। এগুলো মানুষের আত্মচেতনাকে উদ্বুদ্ধ করে, তার হৃদয়কে আশায় ভরে দেয়; ভাবনাকে প্রেমময় করে। হোলি উৎসব-অনুষ্ঠানে নানা ধর্ম-বর্ণ-সম্প্রদায়ের মানুষের মিলন ঘটে। উৎসবস্থল হয়ে ওঠে গণমানুষের মিলনক্ষেত্র। এই মিলনক্ষেত্রে মানুষ ব্যক্তিগত আশা-আকাক্সক্ষা, সুখ-দুঃখের চেয়ে সমষ্টিগত আবেগেই মেতে ওঠে। আর এই সামষ্টিক আবেগই বাঙালির অসাম্প্রদায়িক মানসচেতনার ঐতিহ্যিক পটভূমি।

লেখক:

ড. মো. হাবিবুর রহমান

সহকারী অধ্যাপক, ফোকলোর বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

 

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button