বাগমারারাজশাহী সংবাদ

বাগমারায় ফসলি জমিতে অবৈধ ভাবে পুকুর খনন থামছে না

বাগমারা প্রতিনিধি: কৃষি নির্ভরশীল উপজেলা হওয়া স্বত্ত্বেও রাজশাহীর বাগমারায় আবাদী কৃষি জমি সংরক্ষনে কোনভাবেই মানা হচ্ছে না জাতীয় ভূমি ব্যবহার নীতি। পুকুর খননকারী সিন্ডিকেট সদস্যদের অবৈধ পুকুর খননের বিগত ৪/৫ বৎসর ধরে আবাদী কৃষি জমি ধ্বংস করা হয়েছে ব্যাপক পরিমান।

এবারে সরকারী ভাবে উপজেলায় পুকুর খননের ব্যাপারে ভ্রাম্যমান আদালতসহ কড়াকড়ি ব্যবস্থা নিলেও এক শ্রেণী কৌশলী প্রভাবশালীরা অভিনব কায়দায় পুকুর খননের ব্যবস্থা নিয়েছে। পুকুর খননের আগে তারা শ্রমিক দিয়ে কুদালের সাহায্যে এরিয়া করে নিয়ে রাতের অন্ধকারে ড্রেজার মেশিন দিয়ে দেদারছে পুকুর খনন করছে।

এব্যাপারে উপজেলার বাসুপাড়া ও গণিপুর ইউনিয়নের মাঝে দোবিলার সগুনা গ্রামের এমন কৌশলে পুকুর খননের স্থানীয়রা লিখিত অভিযোগ করেছেন। তবে উপজেলা প্রশাসন যে কোন ভাবে ফসলি জমিতে পুকুর খননে প্রতিহত ব্যবস্তা নিবেন বলে জানিয়েছেন। এদিকে পুকুর খননে অপচেস্টার কথা উপজেলা প্রসাসনের কাছে জানানো হয়েছে এমনটি জেনে পুকুর খননের শ্রমিকেরা দুপুর পরপর সটকে পড়েছে বলে জানা গেছে।

অভিযোগ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার বাসুপাড়া ইউনিয়নের সগুনা গ্রামের সাহেব আলী, আয়েন উদ্দিন, আমিনুল ইসলাম ইউনুস আলীসহ কতিপয় ব্যক্তি জমির মালিকদের অনুমতি ছাড়ায় জোর পুবৃক লোক লাগিয়ে পুকুর খননের ব্যবস্থা করেছেন। অভিযোগকারী জমির মালিক সগুনা গ্রামের সাবেক মেম্বর ইউসুফ আলী, রেজাউল হক, মাস্টার সাইদুর রহমান, সিহাব উদ্দিন সহ অনেকে জানান, তাদের ফসলি জমিতে প্রভাবশালীরা জোর পূর্বক ঘিরে নিয়েছে। শ্রমিক লাগিয়ে প্রথম অবস্থায় পুকুরের পাড় বেধেঁ নিয়ে পরে রাতের অন্ধকারে ড্রেজার মেশিন দিযে পুকুর খনন করা হবে বলে তারা দাবি করেন। বিলের মধ্যে পুকুর খনন করলে এক দিকে যেমন তাদের ফসলি জমি নষ্ট হবে অন্য দিকে ওই বিল দিয়ে দ্বীপনগর ও নন্দনপুর এলাকার পানি নামার রাস্তায় বন্ধ হবে। একই ভাবে এলাকায় পানিবদ্ধতা সৃষ্টি হবে। এতে করে ওই এলাকায় বিস্তর ক্ষতির মুখে পড়বেন তারা।

অভিযোগকারীরা আরো জানান,অসাধু মুনাফা লোভী ব্যক্তিদের দ্বারা দিনের পর দিন নিয়ন্ত্রনহীনভাবে ফসলী জমি ধ্বংস করার কারণে বর্তমানে কৃষি ফসলের পরিমান ব্যাপক হারে হ্রাস পেয়েছে। কৃষি জমি সংরক্ষণে স্থানীয় কৃষি বিভাগ ও ভূমি ব্যবস্থাপনা প্রশাসনের তরফ থেকে তেমন কোন তৎপরতা দেখা যায় না। ফলে যে যার মত যেমন ইচ্ছে তেমন ভাবে খনন করে ধ্বংস করেছে ফসলী জমি।

বাগমারার বিভিন্ন এলাকার তথ্য সূত্রে জানা যায়, চলতি বছর সর্বোচ্চ পরিমাণ কৃষি জমি অবৈধভাবে পুকুর খননে বিলীন হওয়ার চরম পর্যায়ে রয়েছে। কৃষি জমি ধ্বংসের ঝুঁকিতে যে এলাকা রয়েছে এর মধ্যে রয়েছে, গোয়ালকান্দি, গণিপুর, বাসুপাড়া, যোগীপাড়া, বড়বিহানলী, ঝিকরা, আউচপাড়া, শুভডাঙ্গা, কাচারী কোয়ালপাড়া, মাড়িয়া ইউনিয়ন। অধিক মুনাফার লোভে বিভিন্ন পেশার মানুষ ঝুঁকে পড়েছে ফসলী জমি ধংস করে অবৈধ পুকুর খননের প্রতিযোগীতায়। আর এই প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রহণের জন্য কেউ যাচ্ছেন আদালতে। আবার কেউ যাচ্ছেন স্থানীয় প্রাসনের কাছে।

তথ্য সূত্রে জানা গেছে, ইতিপূর্বে বাগমারা উপজেলায় আবাদি কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে হাইকোর্ট বিভাগের ৪৩৫৩/২০১৭ নং একটি রীট পিটিশনের আদেশ রয়েছে। উক্ত আদেশে বাগমারা উপজেলায় আবাদি কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনার নির্দেশ রয়েছে। আদালতের উক্ত আদেশ যথারীতি বলবৎ ও কার্যকর রয়েছে।

রীট পিটিশনকারী আইনজীবী জালাল উদ্দিন উজ্জল জানান, আমরা নানা সূত্রে অবগত যে, বাগমারা উপজেলায় আবাদি কৃষি জমিতে অবৈধ পুকুর খননের ব্যাপক ও চরম প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনকে এই বিষয়ে ইতিপূর্বে আমরা অবহিত করেছি। শনিবার উপজেলার ভিন্ন ভাবে সগুনা এলাকার দোবিলায় পুকুর খনন চলছে যেনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে। এছাড়া বাগমারার গোয়ালকান্দি ও বাসুপাড়া ইউনিয়নে প্রায় দেড় হাজার বিঘা কৃষি জমি ধ্বংস করে অবৈধ পুকুর খননের প্রস্তুতি চলছে। আদালতের আদেশ যথাযথ প্রতিপালন না হলে সে ক্ষেত্রে আদালতের মাধ্যমে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য প্রস্ততি রয়েছে বলে জানান তিনি। এছাড়া বাগমারার গোয়ালকান্দি ও বাসুপাড়া ইউনিয়নে প্রায় দেড় হাজার বিঘা কৃষি জমি ধ্বংস করে অবৈধ পুকুর খননের প্রস্তুতি চলছে। ইতোমধ্যেই তারা জমির মালিকদের কাছ থেকে জমিগুলো বন্দবস্ত নিয়েছে। এতে ওই এলাকা ফসলি জমি হুমকির মুখে পড়বে বলে জানান তিনি।

এ ব্যাপারে বাগমারা উপজেলা নির্ববাহী অফিসার শরিফ আহম্মেদ বলেন, কোন ভাবে ফসলি জমিতে পুকুর খনন করা যাবে না। পুকুর খননের কোন কুটকৌশল করা হলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে পুকুর খননে বাসুপাড়ার সগুনা এলাকায় অপচেস্টার কথা উপজেলা প্রসাসনের কাছে জানানো হয়েছে এমনটি জেনে পুকুর খননের শ্রমিকেরা সটকে পড়েছে বলে জানা গেছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button