পুঠিয়ারাজশাহী সংবাদ

পুঠিয়ায় আগুন পোহাতে গিয়ে দগ্ধ বৃদ্ধা পাঞ্জা লড়ছেন মৃত্যুর সঙ্গে

পুঠিয়া প্রতিনিধি: বাড়ির আঙ্গিনায় আগুন জ্বালিয়ে সেখানে ৬৫ বছরের বৃদ্ধা আমেনা বেগমকে একা বসিয়ে রেখে সকলেই যে যার কাজে চলে যান। শীতের সন্ধ্যায় একা একা বসে আগুন পোহাতে পোহাতে আমেনা বেগমের হঠাৎ আগুন কাপড়ে লেগে তা সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। মুহুর্তেই আগুনে আমেনা বেগমের ৯০ শতাংশ শরীর ঝলসে যায়।

দগ্ধ আমেনা বেগম বর্তমানে হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। ঘটনাটি ঘটেছে আজ (৩১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় রাজশাহীর পুঠিয়া পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড বারইপাড়া মহল্লায়। আমেনা বেগম (৬৫) ওই ওয়ার্ডের মৃত ভাদু মন্ডলের স্ত্রী। স্বামীর মৃত্যুর পর আমেনা বেগম তার ছেলের সঙ্গে বসবাস করে আসছেন।

জানা গেছে, ঘটনার পর দগ্ধ আমেনা বেগমকে উদ্ধার করে প্রথমে পুঠিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। তারা সঙ্গে সঙ্গে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন। বর্তমানে তিনি রামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন। সেখানে তিনি (এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রাত সাড়ে ১০টা) মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে পরিবার।

পরিবার ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, তীব্র শীতের মধ্যে বাড়ির আঙ্গিনায় আমেনা বেগমের বাড়ির লোকজন আগুন জ্বালিয়ে দেন। একা একাই তিনি বসে থেকে আগুন পোহাচ্ছিলেন। হঠাৎ আগুন আমেনা বেগমের কাপড়ে লেগে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। তিনি চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করলে আশেপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে পুঠিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে সঙ্গে সঙ্গে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়। তিনি বর্তমানে রামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি আছেন।

আমেনার ছেলে হেলাল উদ্দিন জানান, তার মার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে ডাক্তার। আগুনে তার মায়ের মুখোমন্ডলসহ শরীরের প্রায় ৯০ ভাগ ঝলসে গেছে। তিনি সকলের কাছে তার বৃদ্ধ মায়ের সুস্থতার জন্য দোয়া চেয়েছেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button