সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

বালিশ কাণ্ড: ১৩ জন লুট করেছেন ৩১ কোটি টাকা

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের আবাসন প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগে পৃথক চারটি মামলায় প্রকৌশলী ও ঠিকাদারসহ ১৩ জনকে আসামি করে তাদের গ্রেফতার দেখিয়েছে দুদক। মামলাগুলোতে তাদের বিরুদ্ধে ৩১ কোটি ৪৭ হাজার ১৭২ টাকা ৪৭ পয়সা আত্মসাতের অভিযোগ করা হয়েছে।

পাবনা থেকে গ্রেফতারর্ করা গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুল আলমসহ ১৩ আসামিকে সোমবার (৯ ডিসেম্বর) সকালে সেগুনবাগিচায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রধান কার্যালয় নিয়ে আসা হয়।

গ্রেফতারকৃত ১৩ জনই দুদকের দায়ের করা চার মামলার মধ্যে একাধিক মামলার আসামি। মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, চার মামলার ১৩ আসামি ৩১ কোটি ৪৭ হাজার ১৭২ টাকা ৪৭ পয়সা লুটপাটের মাধ্যমে আত্মসাৎ করেছেন। প্রাথমিকভাবে যার প্রমাণ পেয়েছে দুদকের অনুসন্ধানী দল।

চার মামলায় গ্রেফতার হওয়া আসামিদের মধ্যে রয়েছেন দু’জন ঠিকাদার ও ১১ জন পাবনা গণপূর্ত প্রকৌশলী।

আসামিরা হলেন- পাবনা গণপূর্তের সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদুল আলম, পাবনা গণপূর্তের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. জাহিদুল কবির, পাবনা গণপূর্তের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী (সিভিল) মো. মোস্তফা কামাল, পাবনা গণপূর্তের উপসহকারী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম, পাবনা গণপূর্তের উপসহকারী প্রকৌশলী আহমেদ সাজ্জাদ খান, পাবনা গণপূর্তের এস্টিমেট ও উপসহকারী প্রকৌশলী সুমন কুমার নন্দী, পাবনা গণপূর্তের সহকারী প্রকৌশলী মো. তারেক, পাবনা গণপূর্তের সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) মো. আমিনুল ইসলাম, পাবনা গণপূর্তের উপসহকারী প্রকৌশলী আবু সাঈদ, পাবনা গণপূর্তের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী (সিভিল) মো. তাহাজ্জুদ হোসেন, পাবনা গণপূর্তের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. রওশন আলী এবং ঠিকাদার সাজিন কনস্ট্রাকশনের সত্ত্বাধিকারী মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন ও মজিদ অ্যান্ড সন্স কনস্ট্রাকশনের সত্ত্বাধিকারী আসিফ হোসেন। গ্রেফতারের পর ১৩ আসামিকে সিএমএম আদালতে পাঠানো হয়।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো পড়ুন
Close
Back to top button