সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

তিন ফুট ওপরে হাত বাড়ালেই বিদ্যুতের তার, পিডিবির মরণফাঁদ

সংবাদ চলমান ডেস্ক :  সড়কে পাশে বৈদ্যুতিক খুঁটিতে তার থাকবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু সেই তার যদি হয় কোনো ঘনবসতিপূর্ণ গ্রামের সড়কের কয়েক ফিট উপরে তাহলে কেমন হয়? শুনতে অবাক লাগলেও বিষয়টি একেবারে উড়িয়ে দেওয়ার মতো নয়। এমনই চিত্র দেখা গেছে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলার শিকলবাহা ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মৌলানা নাজেম সড়কের পাশে।

মাটি থেকে তিন ফিট উঁচুতে অরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে এসব বৈদ্যুতিক তার। অরক্ষিত বৈদ্যুতিক তারগুলো ঝুঁকির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ওই সড়ক দিয়ে চলাচল করা শিক্ষার্থী ও পথচারীদের। এর চেয়ে সু-সংবাদ কি হতে পারে! ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বালির বাপের বাড়ির সামনে পিডিবির আওতাধীন বিদ্যুৎ সংযোগ যেন মরণফাঁদ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘এ সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় ভয় লাগে। কখন জানি গায়ে লাগে। এগুলো দ্রুত সরিয়ে নেওয়া প্রয়োজন। যদি দ্রুত সরানো না হয় তাহলে যে কোনো সময় ঘটতে পারে মারাত্মক দুর্ঘটনা।’

শুধু তাই নয়, এ সড়ক দিয়ে কর্ণফুলীর শিকলবাহা ইউনিয়নের বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ চলাচল করে। এদের মধ্যে সব থেকে ঝুঁকিতে থাকেন স্কুলপড়ুয়া শিশুরা। এছাড়া আতংঙ্কে থাকেন অভিভাবকরাও। না জানি কখন শিশুরা ঐ বৈদ্যুতিক তারে হাত দেয়।

জানা গেছে, গত বছরও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ রকম একটি ছবি ভাইরাল হলে কর্তৃপক্ষ এসে তারগুলো উপরে তুলে দেয়।

শিকলবাহা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘তারে কভার থাকলেও হয়ে গেছে ফুটো। তারগুলো মোড়ানো হয়েছে পলিথিনে। এসব তারের কারণে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। ’

কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজ বলেন, ‘ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক তারগুলো পিডিবির সঙ্গে কথা বলে দ্রুত নিরাপদ দূরত্বে সরানোর জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

কর্ণফুলী উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক চৌধুরী বলেন, ‘উপজেলার বিভিন্ন গ্রামগঞ্জে পিডিবির ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক তার রয়েছে। এসব তারের কারণে অনেক সময় দুর্ঘটনা ঘটে। ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক তারগুলো সড়ানোর খুবই জরুরি। এ বিষয়ে আমি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি। তবে ঝুঁকিপূর্ণ তারের বিষয়ে জানতে পিডিবির কারো সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।’

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button