দূর্গাপুররাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

দূর্গাপুরের পৌর মেয়র তোফাজ্জলের বিরুদ্ধে দূদকে অভিযোগ

মেয়রের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও জবরদখল করে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে

 

ষ্টাফ রিপোর্টার : গত ১৩ই অক্টোবর রাজশাহীর দুর্গাপুর পৌরসভার মেয়র তোফাজ্জল হোসেনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

মেয়রের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও জবরদখল করে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়েছে। মেয়র তোফাজ্জল বর্তমানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন।

দুর্গাপুরের পানানগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক এই অভিযোগ দায়ের করেন।

গত ১৩ই অক্টোবর দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে লিখিত  অভিযোগ  করেন আজিজুল হক। অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে , একজন শ্যালো মিস্ত্রি  ছিলেন মেয়র  তোফাজ্জল হোসেন । এরপর আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন, পরে পৌরসভার মেয়র হন।

মেয়র হয়েই তিনি অবৈধ পুকুর খনন শুরু করেন। তিনি প্রায় পাঁচশো বিঘা জমি অবৈধভাবে দখল করে পুকুর খনন করেছেন। এভাবে জবরদখল করে হয়ে উঠেছেন টাকার কুমির। গড়েছেন বিলাশবহুল বাড়ি, চড়েন দামি গাড়িতে।

আজিজুল হকের করা  অভিযোগসূত্রে আরো জানাগেছে, মেয়র তোফাজ্জল হোসেন সব সময় হত্যা মামলার প্রধান আসামিকে নিয়ে চলাফেরা করেন।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগবাণিজ্য ও এমপিওভুক্তকরণের নামে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। এছাড়া পৌরসভার উন্নয়নের নামে ভুয়া প্রকল্প তৈরি, কোনো কোনো ক্ষেত্রে নামেমাত্র কাজ করে সরকারি অর্থ আত্মসাত করেছেন। তিনি এসবের তদন্তের দাবি জানিয়েছেন।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে, মেয়র তোফাজ্জল হোসেন বলেন, আমি কখনও শ্যালো মিস্ত্রি ছিলাম না। শ্যালো বিক্রি করেছি। আর পুকুর ৫০০ বিঘা তো দূরেই থাকলো, ১০০ বিঘাও কাটিনি।

তিনি বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসাবশত আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। কখনও কোনো অনিয়ম করিনি। আমার বাপ-দাদা সম্পদ রেখে গিয়েছেন। নিজে ঠিকাদারী ব্যবসা করেছি। বৈধ পথে সম্পদ করেছি। এটা দেখেই অনেকের সহ্য হচ্ছে না। সে কারনে দূদকে আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ করছেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button