রাজনীতি

ক্রসফায়ার সংবিধানসম্মত নয়: সেতুমন্ত্রী

সংবাদ চলমান ডেস্ক:  আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ধর্ষণকারীদের ‘ক্রসফায়ারে’ হত্যার যে দাবি সংসদে তুলেছেন কয়েকজন এমপি, তা একান্তই তাদের ব্যক্তিগত মতামত। এটা সরকার বা আমাদের দলের কোনো বিষয় না। আমরা এনকাউন্টার বা ‘ক্রসফায়ার’কে তো সাপোর্ট করতে পারি না। কারণ এটা সংবিধানের আওতার বাইরে এবং সংবিধানসম্মত নয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

সিটি নির্বাচনের তারিখ নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আদালত ভেবেচিন্তেই নির্বাচনের তারিখ নিয়ে রায় দিয়েছেন। নির্বাচন ৩০ জানুয়ারিই হবে। আদালতের রায় সবার মেনে চলা উচিত। আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক নির্ধারিত দিনেই ভোটগ্রহণ করতে তিনি নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানান। একই সঙ্গে তিনি আদালতের রায় মেনে নিয়ে আন্দোলন থেকে সংশ্লিষ্টদের বিরত থাকারও আহ্বান জানিয়েছেন।

ভোট পেছানোর আন্দোলনের সঙ্গে ছাত্রলীগের সম্পৃক্ততার বিষয়টি তুলে ধরা হলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ছাত্রলীগের মধ্যে অনেকেই হিন্দু সম্প্রদায়ের রয়েছে, তারা হয়তো বিষয়টি ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনায় নিয়ে আন্দোলনে অংশ নিয়েছে। সরস্বতী পূজার দিন নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ নিয়ে নির্বাচন কমিশনের সতর্ক থাকা উচিত ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, অবশ্যই তাদের বিষয়টি ভেবে দেখা উচিত ছিল। তারপরও তাদের বিবেচনার মধ্যে কোনো ফাঁকফোকর ছিল কি না, সেটাও দেখার বিষয় আদালতের।

নির্বাচন কমিশন সরকারি ক্যালেন্ডারে পূজার ছুটির তারিখ ধরে ভোটের তারিখ ঠিক করার কথা জানিয়েছে। সেক্ষেত্রে সরকারি ক্যালেন্ডারে ভুল রয়েছে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ভুল ছিল এটা তো আমি এখন বলতে পারি না। ভুল থাকলে আদালতের তো দেখা উচিত।’ তিনি বলেন, ‘ধর্মীয়ভাবে যারা সংক্ষুব্ধ হয়েছে, আমি তাদের অনুরোধ করব, আদালতের আদেশ মেনে অনেক প্রত্যাশিত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তারাও অংশগ্রহণ করবেন।’

নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীদের তোলা ‘হামলা-মামলার’ অভিযোগ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘হামলা-মামলার অভিযোগ তো আমাদের প্রার্থীরাও কোথাও কোথাও করছে। এখন তো নির্বাচন কমিশনই আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে নিয়ন্ত্রণ করবে। বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের দেখা উচিত।’

সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সতর্ক অবস্থানে আছে। আচরণবিধি মেনে চলতে নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের ওপর সরকারের কোনো বাধা বা চাপ নেই। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন নির্বাচন নিয়ে কোনো বাড়াবাড়ি না করতে। তবে আমি মনে করি নির্বাচন কমিশনের আরো কঠোর হওয়া উচিত। আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে কোনো প্রতিবন্ধকতা আছে বলে মনে করি না।

ঢাকার দুই সিটির কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগের অনেকে দলের মতের বিরুদ্ধে গিয়ে প্রার্থী হয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এ ব্যাপারে একটা সিদ্ধান্ত তো আসবেই।’ একটি মামলায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেনের বিচার ?শুরু হয়েছে, এটি আগে বা পরে হতে পারত কি না—এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আইন তো তার নিজস্ব গতিতে চলবে। এটা আগে-পরের বিষয় নয়। তাছাড়া এটা দুদকের বিষয়, দুদক চেয়ারম্যানকে জিজ্ঞাসা করুন।’

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button