বাঘারাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীর বাঘায় ইউপি নির্বাচনে সুবিধাজনক অবস্থানে আ”লীগ-কোনঠাসা বিএনপি

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
আসন্ন রাজশাহীর বাঘা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদে প্রার্থীর পক্ষের নেতাকর্মী সমর্থকরা জোর প্রচার প্রচারনায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন ।

বৈরী আবহাওয়া ও বৃষ্টি উপেক্ষা করে কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্তু চলছে প্রার্থীদের গনসংযোগ ও উঠান বৈঠক, লিফলেট বিতরন ও প্রচার প্রচারনা। নির্বাচনকে ঘিরে  প্রার্থীদের পোর্স্টার,ব্যানারে ছেয়ে গেছে বাঘা উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন । উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে সাধারন মানুষের মধ্যে চলছে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। চায়ের স্টল, গ্রামের মোড় ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের হাট- বাজারের দোকান গুলোতেও মশগুল বিভিন্ন পেশার মানুষেরা নির্বাচনী আলোচনায়। আগামী ১৪ই অক্টোবর বাঘা উপজেলায় ৪টি ইউপিতে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। ৪ ইউপিতে মোট চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেনে ১৯জন।  নির্বাচনে কে জিতবে এ নিয়ে শুরু হয়ে গেছে দলের নেতা কর্মী ও সাধারন মানুষের হিসাব নিকাশ। প্রার্থীরা ছুটে বেড়াচ্ছেন দলীয় নেতা কর্মী ও সাধারন ভোটারদের সমর্থন পাওয়ার আশায় তাদের নির্বাচনী এলাকায়।

এদিকে, দীর্ঘ দিন ক্ষমতায় না থাকায় বিএনপির তৃনমূল নেতাকর্মীরা একবারেই কোনঠাসা হয়ে পড়েছেন। এ অবস্থায় বিএনপি মনোনীত প্রার্থীরা অনেকটায় কোনঠাসা নির্বাচনের প্রচার-প্রচারনাতেও।

নির্বাচনে উপজেলার বাজু বাঘা ইউপিতে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও ইউনিয়ন সভাপতি ফজলুর রহমান ফজল নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রচারে প্রচারনায় মাঠে নেমে পড়েছেন। দলের নেতাকর্মীরা নৌকা প্রতীকের পক্ষে কাজ করায় ফজলের প্রার্থী অবস্থান সুবিধা জনক স্থানে। দলীয় নেতাকর্মী চেয়ারম্যান প্রার্থীকে জয়ী করার লক্ষে অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলছেন।

অপরদিকে বিএনপি স্থানীয় মনোনীত প্রার্থী ফিরোজ আহম্মেদ (আনারস) অপর সতন্ত্র প্রার্থী সাইফুল ইসলাম (ঘোড়া) প্রতীকে লড়ছেন এই ইউপিতে। বাজুবাঘা ইউনিয়নে ভোটের মাঠে বিএনপি প্রার্থী ফিরোজ আহম্মেদ প্রচারনায় নামেননি। অল্প কিছু নেতাকর্মী কাজ করলেও এখনও সুবিধা জনকস্থানে পৌঁছাতে পারেন নাই সতন্ত্র প্রার্থী সাইফুল ইসলাম।

বাজুবাঘায় অন্য প্রার্থীরা হলেন  (ঘোড়া), হাসমত আলী (টেবিল ফ্যান), সাহার উদ্দিন ঝুন্টু (মোটরসাইকেল), আসলাম মালিথা (টেলিফোন), আসাদুজ্জামান (রজনীগন্ধা), জিয়াউর রহমান (ঢোল), এমএ মানিক (চশমা)।

একান্ত সাক্ষাত কালে বাজুবাঘা ইউনিয়ন পরিষদের আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ফজলুর রহমান ফজল বলেন অতীত এবং বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনায় তৃণমূল নেতাকর্মী, জেলা আওয়ামীলীগ ও মাননীয় প্রধান মন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা তাকে যোগ্য মনে করেই দলীয় মনোনয়ন দিয়েছেন। তিনি আশাবাদী তৃণমূল নেতাকর্মী ও সাধারন ভোটারদের ভালোবাসায় এ নির্বাচনে বিজয় লাভ করবেন।

এছাড়াও বাঘা উপজেলার অপর ৩ ইউনিয়নে চেয়ারম্যন পদে প্রতিদ্বন্দীতায় মাঠে নেমেছেন তারা হলেন..

গড়গড়ি ইউনিয়নেঃ আ.লীগের মনোনীত চেয়াম্যান প্রার্থী রবিউল ইসলাম রবি (নৌকা), বিএনপির প্রার্থী মাসুদ করিম টিপু (টেবিল ফ্যান)। স্বতন্ত্র প্রার্থী জুলফিকার আলী (ঘোড়া), আবদুল্লা আল মাহমুদ (আনারস), জাহিদুল ইসলাম স্বপন (চশমা), আবুল কালাম আজাদ (মোটরসাইকেল)।

পাকুড়িয়া ইউনিয়নেঃ আ’লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মেরাজুল ইসলাম সরকার (নৌকা) ও বিএনপির প্রার্থী ফকরুল হাসান বাবলু (আনারস)।

ও মনিগ্রাম ইউনিয়নেঃ আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী সাইফুল ইসলাম (নৌকা) ও বিএনপি’র প্রার্থী মুজিবুর রহমান জুয়েল (আনারস)। পাকুড়িয়া ও মনিগ্রাম ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগ ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থীদের মধ্যে শুধু প্রতিদ্বন্দ্বীতা হবে। দলীয় ছাড়া অন্য কোন প্রার্থী এ দুই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নেই।

 

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button