বাঘারাজশাহী সংবাদ

বাঘায় স্ত্রীর বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ স্বামীর, আহত ১

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর বাঘায় স্ত্রীর বিরুদ্ধে সহোদর ভাইদের নিয়ে স্বামীর ওপর হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্ত্রীর কথামতো না চলার কারণে হামলার দাবি করেছে স্বামী। ঘটনার সময় বাঁধা দিতে গিয়ে ধারালো চাকুর আঘাতে আহত হয়েছে মামুন হোসেন নামের একজন।

সোমবার (০৬ জানুয়ারী) বিকালে উপজেলার মনিগ্রাম বাজারের রাস্তার দক্ষিনে প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত মামুন হোসেন বাদি হয়ে ৪ জনের বিরুদ্ধে বাঘা থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। সে উপজেলার বলিহার গ্রামের বাসিন্দা আলিমুদ্দীনের ছেলে।

জানা যায়, ঘটনার দিন সোমবার মনিগ্রাম বাজারের দক্ষিনে প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় বাদাম বিক্রি করছিল বাদির সহোদর ভাই আমিনুল (জালেমার স্বামী) ও ভাতিজা সিজান। পারিবারিক গোলযোগের জের ধরে সেখানে আমিনুলের ওপর হামলা চালায় জালেমাসহ তার ভাই-জয়নাল,জহুর,জালাল ও দুলাল হোসেন। সেখানে দাড়িয়ে ছিল আমিনুলের সহদোর ভাই মামুন হোসেন।

ভাইকে বাঁচাতে গিয়ে বিবাদী দুলালের কাছে থাকা ধারালো চাকুর আঘাতে বাম হাতের বৃদ্ধা আঙ্গুল জখম হয় মামুনের। ভাতিজা সিজানকেও কিল-ঘুষি মেরেছে বলেও অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। বিবাদীরা সকলেই লালপুর উপজেলার মোল্লাপাড়ার (কারিগর পাড়া) বাসিন্দা।

উল্লেখ্য,স্ত্রীর পৈতৃক ভিটা, মোল্লাপাড়ায় ঘর তুলে সেখানে থাকতো জালেমার স্বামী আমিনুল। কারণে অকারণে তাকে নির্যাতন করতো স্ত্রী জালেমা। এর এক পর্যায়ে কাউকে না বলে নিজ জেলার বাইরে কাজে যায় আমিনুল। তার খোঁজ না পেয়ে সন্দেহভাজন বলিহার গ্রামের বাসিন্দা লালু মিঞার বিরুদ্ধে ৩ ডিম্বেবর রাজশাহী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বামীকে হত্যার অভিযোগে মামলা করে জালেমা।

জীবিত আমিনুল বিষয়টি জানার পর ৬ ডিসেম্বর থানায় হাজির হয়ে পুলিশের কাছে লিখিতভাবে অবহিত করেন। আমিনুল জানায়,মামলা দায়েরের পর থেকে আত্নভয়ে স্ত্রীর কাছে থাকেনা। এ নিয়েও স্ত্রীর রাগ তার ওপর।

মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে জালেমা জানান, কোর্ট থেকে ফেরার পথে ওই বাজারে ছেলে হালিম বাপকে দেখতে পেয়ে তার কাছে যায়। ছেলেকে বকাবকি করতে দেখে আমিও যায়। তবে তার ভাইয়েরা ছিলনা বলে দাবি তার। বাঘা থানার ডিউটি অফিসার, উপ পরিদর্শক খন্দকার লুৎফর রহমান জানান,মাধরের বিষয়ে একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button