সংবাদ সারাদেশ

পর্দা কেলেঙ্কারিতে তিন চিকিৎসক কারাগারে

সংবাদ চলমান ডেস্ক : বহুল আলোচিত পর্দা ও যন্ত্রপাতি কেনার দুর্নীতিতে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তিন চিকিৎসককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

রোববার দুপুরে তাদের জামিন নামঞ্জুর করে এ আদেশ দেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত-১ এর বিচারক বেগম কামরুন্নাহার। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভারপ্রাপ্ত পিপি অ্যাডভোকেট দুলাল চন্দ্র সরকার।

চিকিৎসকরা হলেন- ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক (দন্ত বিভাগ) ডা. গণপতি বিশ্বাস শুভ, হাসপাতালের সাবেক জুনিয়র কনসালটেন্ট (গাইনি) ডা. মিনাক্ষী চাকমা ও হাসপাতালের সাবেক প্যাথলজিস্ট ডা. এএইচএম নুরুল ইসলাম।

২৭ নভেম্বর ফরিদপুর জজ আদালতে ছয়জনের বিরুদ্ধে এ মামলা করেন দুদকের প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী। মামলার পর তারা উচ্চ আদালত থেকে ছয় সপ্তাহের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন পান। একই সঙ্গে নিম্ন আদালতে হাজিরের নির্দেশ দেন উচ্চ আদালত।

জামিনের মেয়াদ শেষে রোববার ছয়জনের মধ্যে তিনজন ফরিদপুরের আদালতে হাজির হলে বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এ মামলায় অপর তিন আসামি হলেন- জাতীয় বক্ষব্যাধি হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মুন্সি সাজ্জাদ হোসেন, তার ভাই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অনিক ট্রেডার্সের মালিক আব্দুল্লাহ আল মামুন, আরেক ভাই মেসার্স আহমেদ এন্টারপ্রাইজের মালিক মুন্সি ফররুখ আহমেদ।

আসামিদের বিরুদ্ধে অসৎ উদ্দেশ্যে ক্ষমতার অপব্যবহার করে পরস্পর যোগসাজশে ফমেকের জন্য অপ্রয়োজনীয় ও অবৈধভাবে প্রাক্কলন ব্যতীত উচ্চ মূল্যে যন্ত্রপাতি কেনার মাধ্যমে সরকারের ১০ কোটি টাকা আত্মসাতের চেষ্টার অভিযোগে এ মামলা করা হয়। দুদক ফরিদপুর কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক কমলেশ মণ্ডল মামলাটি রেকর্ড করান।

এর আগে ২০ আগস্ট ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) যন্ত্রপাতি ও বিশেষ পর্দা কেনাকাটায় অনিয়ম ও দুর্নীতির ঘটনায় তদন্ত করতে দুদককে নির্দেশ দেন উচ্চ আদালত। এ জন্য ছয় মাস সময় বেঁধে দেয়া হয়েছিল। এরপর দুদকের উপ-পরিচালক শামছুল আলম, উপসহকারী পরিচালক ফেরদৌস রহমান ও শহিদুর রহমানের নেতৃত্বে সরেজমিনে তদন্ত করেন। তারা ব্যাপক দুর্নীতির প্রমাণ পান।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button