রাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীতে প্রতিবছর খেজুর গুড়ে আয় অর্ধকোটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : শীতের পিঠা বা পায়েস যেটাই হোক, খেজুর গুড়ের জুড়ি নেই। যুগ যুগ ধরে অবস্থান অটুট করে রেখেছে খেজুর গুড়। রাজশাহীতে প্রতিবছর প্রায় অর্ধ কোটি টাকার ব্যবসা হয় খেজুর গুড় উৎপাদন করে বিক্রি করে। এতে সরাসরি কর্মসংস্থান হয় প্রায় ছয় থেকে সাত হাজার গাছির। আর জীবিকা নির্ভর করে হাজার হাজার মানুষের। গুড়গুলো রাজশাহীর চাহিদা মিটিয়ে যায় দেশের বিভিন্ন মুকামে। শুধু তাই নয়, মধ্যপ্রাচ্যসহ ইউরোপ-আমেরিকার প্রবাসী বাঙালিদের কাছে বেশ চাহিদা রয়েছে। এতে আসে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, শুধু রাজশাহী জেলাতেই রয়েছে আট লাখ খেজুর গাছ। এই গাছ থেকে এ মৌসুমে প্রায় ছয় হাজার মেট্রিকটন গুড় উৎপাদন হয়। যার দাম প্রায় ৪১ কোটি টাকার বেশি। রাজশাহী জেলার সবচেয়ে বেশি গাছ রয়েছে চারঘাট উপজেলায়। এখানে খেজুর গাছের সংখ্যা তিন লাখ ৯৬ হাজার। বাঘা উপজেলায় খেজুর গাছ রয়েছে দুই লাখ ৯৯ হাজার। আর পুঠিয়া উপজেলায় খেজুর গাছ রয়েছে ৮৫ হাজার। অন্য উপজেলায়ও কিছু কিছু গাছ রয়েছে। এসব গাছ থেকে উৎপাদিত গুড়ের সবচেয়ে বড় বাজার বসে পুঠিয়ার ঝলমলিয়া ও বানেশ্বর হাটে।

ঢাকার বাদামতলী এলাকার গুড়ের পাইকারি ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম জানান, এখন দেশের সবচেয়ে বেশি গুড় আসে রাজশাহীর ঝলমলিয়া ও বানেশ্বর হাট থেকে। এরপর আসে মাদারীপুর-ফরিদপুর এলাকার খেজুর গুড়। এই গুড় দেশের সব প্রান্তেই যাচ্ছে। তিনি বলেন, ‘এই গুড় দেশের চাহিদা মিটিয়ে লন্ডন, কানাডা, আমেরিকা ও সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশে যাচ্ছে। লন্ডনে সবচেয়ে বেশি গুড় পাঠানো হয়। লন্ডনে বসবাসকারী সিলেটিরাই এই গুড়ের প্রধান ক্রেতা।

পুঠিয়া উপজেলার গণ্ডগোহালী গ্রামের গাছি আখের আলী বলেন, গাছ থেকে রস এনে দেওয়া আমার কাজ। রস জ্বাল দিয়ে গুড় তৈরি করবে আমার স্ত্রী। গুড় পাটালি করে আমি আবারও গাছ চাঁচতে যাই। আখের আলীর স্ত্রী মহিজান বেগম বলেন, ‘গুড় তৈরি করেই আমাদের তিন বেলার খাবার, ছেলেমেয়ের পড়ার খরচ জোগার হয়। শীতের সময় ছয় মাস গুড় থাকলে সংসার চালানোর আর চিন্তা থাকে না। সংসার চালাতে হিমশিম খাই গরমের ছয় মাস।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক শামসুল হক বলেন, রাজশাহী অঞ্চলের খেজুর গুড় খুবই সুস্বাদু। এই স্বাদ নিয়ে যারা বিদেশে গেছেন, তারা এই স্বাদ আর ভুলতে পারেন না। তাই প্রবাসীদের কাছে এই গুড়ের খুব চাহিদা। গুড়ের ভালো দাম পাচ্ছেন গাছিরা। অসংখ্য মানুষের জীবিকা চলছে এই খেজুর গুড়ে। তিনি আরো বলেন, এবছর মৌসুমে প্রায় ৬ হাজার মেট্রিকটন গুড় উৎপাদন হয়। ৬০ টাকা কেজি দরে এর মূল্য ৪১ কোটি টাকার বেশি। এ টাকা এক মৌসুমে সম্ভব।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button