নওগাঁরাজশাহী সংবাদ

মাটি ফেটে বেরোচ্ছে পানি, বোতলে ভরছে মানুষ!

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নওগাঁর মান্দায় কলাবাগানের মধ্য থেকে মাটি ফেটে গত পাঁচ দিন ধরে অনবরত পানি বের হচ্ছে। এ ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী।

এদিকে আজব এই কাণ্ড দেখার জন্য দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসছেন হাজার হাজার মানুষ।

এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ওই বাগানের মালিক মান্দা উপজেলার ৬ নং মৈমন ইউপির ইটাখৈর গ্রামের এরশাদ আলীর ছেলে ইদ্রিস আলী।

জানা গেছে, স্থানীয়রা এই ঘটনাকে অলৌকিক বলে মনে করছেন। তারা এটাকে পবিত্র পানি হিসেবে বোতলে সংগ্রহ করে নিয়ে যাচ্ছেন।

মান্দা উপজেলার ৬ নং মৈমন ইউপির ইটাখৈর গ্রামের একটি কলাবাগানে গত রোববার সকাল থেকে হঠাৎ একটি ছোট টিলার গা ফেটে পানি বের হওয়া দেখতে পান স্থানীয় এক নারী।

স্থানীয় জাহিদ হাসান এবং কালাম জানান, গত রোববার সকালে স্থানীয় এক নারী জলছত্র-পাঁজরভাঙ্গা রোডের জলছত্র মোড়ের প্রায় ১ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং রাস্তার পশ্চিম পার্শ্বে মৈনম ইউপির ইটাখৈর গ্রামের এরশাদ আলীর ছেলে ইদ্রিস আলীর কলাবাগানে পাতা কাটতে এসে দেখেন যে একটি কলা গাছের কোল ঘেঁষে একটি জায়গা থেকে মাটি ফেটে পানি বের হচ্ছে। সেই সঙ্গে বিকট শব্দ হচ্ছে।

এ খবর আশপাশে দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে উৎসুক জনতা কৌতূহল নিয়ে ঘটনাস্থল দেখতে আসেন।

এ ঘটনাকে স্থানীয় মানুষ সৃষ্টিকর্তার আর্শীবাদ হিসেবেই ধরে নিয়েছে। আবার অনেকেই বলছেন এটি এক অলৌকিক ঘটনা। এরই মধ্যেই অনেকেই এ পানি বোতলে ভরে নিয়ে যেতে শুরু করেছেন। সুপেয় হওয়ায় তা পানও করছেন অনেকে।

একই গ্রামের পার্শ্ববর্তী জমির ইসমাইল হেসেনের ছেলে মালিক শামসুর রহমান বলেন, ৫-৬ দিন ধরে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শত শত মানুষ ভিড় করছেন। বেশিরভাগ মানুষ হাতে বোতল নিয়ে অপেক্ষা করছেন পানি সংগ্রহ করার জন্য। কে কোন নিয়তে পানি বোতলে ভরে নিয়ে যাচ্ছেন, সেটি আমি জানি না।

স্থানীয়দের আরো কয়েকজন জানান, ওই এলাকায় আশেপাশের ২-৪ কিলোমিটারের মধ্যে নদী, খাড়ির মতো কোনো স্থানীয় পানির উৎস নেই। গত এক সপ্তাহ এ এলাকায় কোনো ভারী বৃষ্টিপাত হয়নি।

এছাড়া বর্ষা মৌসুমেও আশপাশের এলাকায় পানির অভাবে তেমন ধান চাষ হয় না। বেশির ভাগ জমি ভিটা মাটির। যে স্থানে এই ঘটনা ঘটেছে তার আশেপাশে গভীর কোন নলকূপও করা হয়নি।

অনেকে জানান, বায়ুর চাপ যদি পানির চাপের থেকে কমে যায় তাহলে ভূ-গর্ভস্থ পানি বের হয়ে আসতে থাকে। যতক্ষণ পর্যন্ত বায়ুর চাপ পানির চাপের চেয়ে বেশি না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত মাটির নিচ থেকে পানি বের হবে। এই এলাকায় এ ধরনের ঘটনা এটিই প্রথম।

এদিকে উৎসুক জনতা আরও জানান, এমন খবর শোনার পর কেউ কেউ ঘটনাস্থলে এসেছেন দেখার জন্য। আবার কেউ বা এসেছেন পানি নিতে। তাদের মধ্যে কয়েকজন স্কুলছাত্রকেও সেখান থেকে বোতলে পানি তুলে দিতে দেখা গেছে।

নওগাঁ সদরের বলিহার ইউপির বলিহার গ্রাম থেকে আগত স্কুলছাত্র সৌরভ জানান, সে তার মায়ের জন্য বোতলে পানি নিতে এসেছেন। তার বিশ্বাস এই পানি পান করলে তার মায়ের যাবতীয় অসুখ ভালো হয়ে যাবে।

এ ব্যাপারে মান্দার ইউএনও আব্দুল হালিম বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত নই। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button