দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

বিজিবি’র চাকরিতে মন ভরত না সেই ফাঁসির আসামী রাজ্জাকের

বিজিবি'র চাকরিতে মন ভরত না সেই ফাঁসির আসামী রাজ্জাকের

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার দেবীপুর গ্রামের আলহাজ খলিলুর রহমানের ২য় পক্ষের তিন ছেলের মধ্যে রাজ্জাক ছিল মেঝ, পড়া শোনা এস এস সি. পাশ করেই ২০০৪-৫ এর দিকে বিজিবিতে চাকরি হয়। রাজ্জাকের বাবা খলিলুর রহমান দুর্গাপুর অঞ্চলের অনেক সুনাম ধন্য ও প্রভাবশালী ব্যক্তি হওয়ায় সেই সময় খুশিতে অনেক কেই পেট পুরে মিস্টি খাওয়ান, তার ইচ্ছে ছিল এক সন্তান দেশের সৈনিক হবে। বড় ছেলে হাবিব কে নিয়ে আসা ছিল কিন্তু তা পুরন হয়নি কিন্তু রাজ্জাক তা পূরন করেছে।

বিজিবির ট্রেনিং শেষ করে ছুটিতে এসে রাজ্জাক আর বিজিবির চাকরিতে যাবেনা এমন বায়না ধরে পরিবারের নিকট, কিন্তু বাবা খলিলুর রহমান নাছোড় বান্দা তিনি শুধু নামের জন্য ছেলেকে চাকরি করাবেন, অনেক বুঝিয়ে চাকরিতে পাঠালেও রাজ্জাক সিলেটের বাসে না উঠে লা পাত্তা, বেশ কয়েকদিন পর রাজ্জাকের ব্যাটলিয়ন থেকে ফোন করে তার বাবাকে জানায় রাজ্জাক সেখানে যায়নি, অনেক খোজার পর রাজ্জাকের বাবা রাজ্জাকের এক বন্ধুর বাড়ি থেকে রাজ্জাক কে উদ্ধার করেন। আবার অনেক বুঝিয়ে তাকে পাঠান চাকরিতে ।

কিছুদিনের মধ্যেই রাজ্জাকের ৩৭ ব্যটলিয়ন আসে রাজশাহীতে, আর রাজশাহীতে এসেই বেপরোয়া হয়ে উঠেন রাজ্জাক। সিমান্তবর্তী এলাকা ইউসুফপুর, চারঘাট, আলাইপুর, বেলপুকুর চেক পোস্টে বিভিন্ন সময়ে দ্বায়ীত্ব পালন করার সুবাদে এলাকার কিছু চিহ্নিত দাগি অপরাধীদের সাথে গড়ে উঠে তার বিশেষ সখ্যতা, বিশেষ করে রাজশাহী অঞ্চলের এই সব এলাকায় হাত বাড়ালেই ফেন্সিডিল পাওয়া সহজ ব্যপার। এ সময় রাজ্জাকের ডিপাটমেন্টাল ভাবে একাধিকবার শাস্তিও হয় মাদক সেবন সহ বিভিন্ন অপরাধে, কিন্তু তেমন কোন লাভ হয়নি, পুনরায় ফিরেন আগের জায়গায় রাজ্জাক। রাজ্জাকের চতুরবাজী ও দর্শন ধারী কৌশল দেখে অনেক আন্ডার গ্রাউন্ডের রাঘব বোয়ালরা সে সময় নিত্য নতুন মোটর সাইকেল সহ বিভিন্ন লোভে আকৃষ্ট করে রাজ্জাক কে বিশেষ করে সে সময়ের এল আই বিডি আর এর এস আই. সানোয়ার এর ডান হাত হিসেবে কাজ করেন রাজ্জাক। দেশের গুরুত্বপূর্ন স্থানে রয়েছে এস আই সানোয়ারের শক্ত সিন্ডিকেট। কিছুদিনের মধ্যে সানোয়ার বদলী হয়ে আসেন দুর্গাপুর থানায়, সেখানে সানোয়ারের সাদা রংয়ের দুইটি প্রাইভেট গাড়ীর একটি ব্যবহার করতেন রাজ্জাক। সানোয়ারের অবৈধ্য ব্যবসার বিষয়ে দুর্গাপুরের অনেকেই জেনে গেলে তার পুনরায় বদলী হয় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় সেখানেই বেশীর ভাগ সময় কাটা বিজিবির চাকরিতে মন ভরত না সেই ফাঁসির আসামী রাজ্জাকের।

কিছু দিন পরে রাজ্জাক যমুনা সেতুতে ৬৫ লাখ টাকা সহ আটক হয় র‍্যাবের হাতে। সেখানেও সেই টাকার সঠিক হিসেব দিতে পারেনি র‍্যাবের নিকট । সেখান থেকে জামিনে মুক্ত হয়ে দুর্গাপুরের আলীপুরের হাবিবার মাদকের বেড়া জালে মগ্ন হন রাজ্জাক আর সেই হাবিবের সিন্ডিকেটেই খুন হন মা ছেলে আর এর সাথে সংযুক্ত রাজ্জাক । বুধবার রাজশাহীর দ্রুতবিচার আদালতে রাজ্জাকের ফাঁসির রায়ে ভারী হয়ে উঠে আদালত চত্বর।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button