পুঠিয়ারাজশাহী সংবাদ

পুঠিয়ায় সড়কে দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে ট্রাক্টর ও অবৈধ যানবাহন, অহরহ দূর্ঘটনা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার প্রধান সড়ক থেকে শুরু করে অলি-গলি পর্যন্ত দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ট্রাক্টর (কাঁকড়া) ট্রলি।

প্রতিদিন কাক ডাকা ভোর হতে গভীর রাত পর্যন্ত গ্রাম থেকে শুরু করে উপজেলা সদরের ব্যস্ততম সকল রাস্তার সবখানে এই যন্ত্রদানব অবৈধ ট্রাক্টর (কাঁকড়া) টলি স্বগৌরবে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। নছিমন-করিমন এর মতো অবৈধ ভটভটির সঙ্গে এখন সড়কে যুক্ত হয়েছে ‘ইটভাটার ট্রলি’আতঙ্ক।

তাছাড়াও মাটি বহনকারী এ যানবাহন যেসব সড়ক দিয়ে চলাচল করে, এর ধুলাবালির কারণে সড়কে হেঁটে চলাচলকারী জনসাধারণ এবং স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি,পরিবেশ নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি শব্দদূষণ হচ্ছে।

এদিকে অনভিজ্ঞ চালক ও লক্কড়-ঝক্কড় যান দিয়ে মাটি বহন করতে গিয়ে প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। আইন অমান্য করে মরন যান এসব ট্রাক্টর (কাঁকড়া) ট্রলি রাস্তায় চলাচল করলেও অদ্যাবধি অদৃর্শ্য কারনে আইনগত কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না উর্ধতন কতৃপক্ষ। স্থানীয় প্রশাসন অবৈধ এ যানবাহন চলাচল করতে সহযোগিতা করছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, পুঠিয়া উপজেলায় বর্তমানে বৈধ-অবৈধ মিলিয়ে ১৭ টি ভাটা রয়েছে তার মধ্যে বৈধ ৩টি। এইসব ভাটাগুলোর মাটি, বালু, ইটসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী বহনে ট্রাক্টর ও পাওয়ার টিলারচালিত ট্রলির ওপর নির্ভরশীল। গড়ে প্রতিটি ভাটায় ১০টি করে এমন যান রয়েছে। সেই হিসাবে পুঠিয়াতে সড়ক-মহাসড়ক দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ২০০টিরও বেশি ‘ইটভাটার ট্রলি’।

রাজশাহী জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান পটল বলেন, সড়কে প্রতিটি দুর্ঘটনার জন্য অবৈধ যানবাহন দায়ী। বৈধভাবে যানবাহন চালাতে গাড়ির নিবন্ধন, বিমা, রুট পারমিট ও ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা আবশ্যক।

কৃষিকাজের জন্য ট্রাক্টর ও পাওয়ার টিলার ব্যবহারের শর্ত থাকলেও এগুলো অবৈধভাবে মহাসড়কে ইট, বালু ও মাটি বহন করছে। মাটি বহনের সময় তা রাস্তায় পড়ছ, সামান্য বৃষ্টিতেই কাঁদামাটিতে রাস্তা চলাচলের অযোগ্য হয়ে দুর্ঘটনা ঘটছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button