দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

এসিল্যান্ড বিহীন, ৩ ভূমি অফিস দিয়ে চলছে ৭ ইউনিয়নের কার্যক্রম

এসিল্যান্ড বিহীন, ৩ ভূমি অফিস দিয়ে চলছে ৭ ইউনিয়নের কার্যক্রম

এস এম শাহাজামাল,দুর্গাপুরঃ
রাজশাহী দুর্গাপুর উপজেলা ও ইউনিয়ন ভূমি অফিসের জনবল সংকটে কার্যক্রমের স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। জনবল সংকটের কারণে অফিসের দৈনন্দিন কর্মকান্ডে সেবা নিতে আশা হাজার হাজার সাধারন মানুষ হয়রানির শিকার হচ্ছে । ফলে নামজারি ও খাজনা-খারিজ করতে আসা মানুষগুলো মাসের পর মাস ধরে দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন। শুধু তাই নয় অফিসের দাপ্তরিক গুরুত্বপূন্য ফাইল গুলো মাসের পর মাস ধরে আটকে পড়ে আছে। এছাড়াও উপজেলা ইউনিয়ন ভূমি অফিস গুলোতেও দেখা দিয়েছে একই চিত্র। ওই সকল দপ্তর গুলো অধিকাংশ পদই রয়েছে শূন্যে ভরা।
বিধি মোতাবেক প্রতিটি ইউনিয়ন ভূমি অফিসে অনুমোদিত পদ সংখ্যা একটি ভূমি সহকারী কর্মকর্তা অপরটি ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা। তবে বছরের পর বছর পদ শূন্য থাকায় দাফতরিক কার্যক্রম চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে।
এ উপজেলার জমির মালিকদের নামজারি ও খাজনা-খারিজসহ প্রশাসনিক কার্যক্রমে জটিলতা দেখা দিয়েছে। লোকবল না থাকায় ইউনিয়ন ভূমি অফিসগুলোতেও আশানুরূপ কার্যক্রম চলছে না বলে জানা গেছে। ফলে উপজেলার হাজার হাজার মানুষ ভূমি সংক্রান্ত কাজ করতে উপজেলা ভূমি অফিস ও ইউনিয়ন ভূমি অফিসে ধরনা দিয়েও নির্ধারিত সময়ে কোনো কাজ করাতে পারছেন না।
উপজেলা ভূমি অফিস সুত্রে জানা যায়, উপজেলা ভূমি অফিসে ১১ জনের বিপরিধে অফিসে করর্মরত আছেন মাত্র ৬জন। এরা হলেন সার্টিফিকেট সহকারী, জমাসহকারী ও সার্ভার এবং চেইনম্যান দুইজন ও প্রসেস পদের জনবল রয়েছে।
এরমধ্যে গুরুত্বপূন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পদে ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব থাকলেও প্রকৃতপদ শূন্য রয়েছে। কানুনগো, নাজির, সায়রাত সহকারীর পদও শূণ্য। গত ১৯ সেপ্টেম্বর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সমর কুমার পাল বদলি হয়ে অন্যত্র চলে যান। এর পর থেকে দীর্ঘ প্রায় ৯ মাস ভূমি অফিসের গ্রুত্বপূর্ণ দপ্তরটি শূন্য রয়েছে। ফলে শূন্য পদটিতে প্রশাসন কোনো কর্মকর্তা নিয়োগ না দিতে পারায় দাপ্তরিক কার্যক্রমে চলেছে চরম ভোগান্তিতে। আর দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন এ উপজেলার মানুষ।
এদিকে এই উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ভুমি অফিসের পরিবর্তে রয়েছে মাত্র ৩টি। বাকি ইউনিয়নে এখন পর্যন্ত নিয়োগ দেয়া হয়নি অফিস ও জনবল। নিয়োম অনুযায়ী এই উপজেলায় সকল ইউনিয়য়ে ভূমি অফিস থাকার কথা। অথচ ৭টি ইউনিয়নের কার্যক্রম পরিচালনা করতে হয় ওই ৩টি ইউয়িন ভূমি অফিসের সেবাদানকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারিকে।
উপজেলার বহরমপুর গ্রামের মোজার আলী খাঁ বলেন, জমি খারিজ পরিবর্তনের জন্য অবেদন করেছিলাম প্রায় এক বছর আগে। এাসিল্যান্ড না থাকায় এই পর্যন্ত ৩ বার তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে। তিনি না থাকায় প্রতিদিন গড়ে ১শত থেকে ১শত ৫০ জন মানুষ নানা রকম সেবা পেতে এসে ফিরে যাচ্ছেন।
সিংগা ইউনিয়ন ভুমি অফিসে সেবা নিতে আশা উপজেলার ঝালুকা ইউনিয়নের আশরাফুল ইসলাম বলেন,প্রায় এক মাসের বেশি হচ্ছে নামজারি করতে ঘুরছি। অফিসে কোন জনবল না থাকায় কোন কাজের ব্যবস্থা নেই। প্রসাশনের দাপ্তরিক কাজ কে করবেন বা এর জব্বাব কে নিবে। কোন লোকবল নেই। অতিদ্রুত উপজেলা ভূমি অফিসে জনবল প্রয়োজন তা না হলে প্রয়োজনীয় গুরুত্বপূন্য কাজ ভেঙ্গেপড়বে।
লক্ষণকসী ইউনিয়ন ভুমি অফিসে সেবা নিতে আশা জয়নগর গ্রামের আব্দুল বলেন,ইউনিয়ন ভূমি অফিসে জমির তথ্য নিতে এসে তিনদিন ঘোরাঘুরি পড়ে পেয়েছে। তবুও জমির প্রয়োজনীয় কাজ শেষ হয়নি।
উজানখলসি ইউনিয়ন ভুমি অফিসে সেবা নিতে আশা দেবীপুর গ্রামের লিটন বলেন, কাজ হয় কিন্তু দেরি করে। কারন ইউনিয়ন ভূমি অফিসে চারজনে স্থলে রয়েছে দুইজন। সে কারনে কাজ দিতে দেরি হয়।
সিংগা ইউনিয়ন ভুমি অফিসের উপ সহকারী (নায়েব) এজাজুল হক জানান, সরকারের পরিপত্র অনুযায়ী ২০১০ সালে প্রতিটি উপজেলায় সকল ইউনিয়নে একটি করে ইউনিয়ন ভূমি অফিস ও পৌর ভুমি অফিস স্থাপন করার পরিপত্র জারি করা হয়। সেই জারিকৃত বাস্তবায়ন হয় বিভিন্ন জেলার উপজেলা গুলোতে। অথচ ৯ বছর পার হলেও এ উপজেলা দেখা মিলেনি ভূমি অফিসের। তিনি আরো জানান, একটি ভুমি অফিসের লোকবল দরকার ৫জন অথচ নিয়োগ প্রাপ্ত রয়েছে মাত্র ২জন। বাকি পদ রয়েছে শূণ্য। প্রতিদিন গড়ে ৩০০-৩৫০জন মানুষক সেবা নিতে আসে। আমরা দুইজন ব্যাক্তি কি করো এতগুলো মানুষের সেবা প্রদান করতে পারি। দিনরাত পরিশ্রম করার পরেও কাঙ্খিত সেবা প্রদান করা সম্ভব হয়ে ওঠে না।
এ ব্যাপারে উপজেলা ভূমি অফিসের কানুনগো ও তথ্য কর্মকর্তা আব্দুল হামিদ জানান, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ভূমি অফিসে প্রতিদিন অগণিত সাধারণ মানুষ আসেন তাদের জমিজমার বিভিন্ন কাজে। জনবল সংকটে সাধারণ মানুষ ভোগান্তির শিকার হয়ে থাকেন। দপ্তরটিতে স্থায়ীভাবে কর্মকর্তা থাকলে সাধারণ মানুষের ভোগান্তিদূর হতো।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button