দূর্গাপুররাজশাহী সংবাদ

দুর্গাপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রাতে থাকে না ডাক্তার; বিপাকে রোগীরা

ফরিদ আহমেদ আবির: রাত তখন ১০ টা ২০ মিনিট রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার আলীপুর গ্রাম থেকে সোনিয়া(২২) নামের এক তরুনী পেটে প্রচন্ড ব্যাথা নিয়ে আসেন উপজেলার স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে চিকিৎসা সেবা নিতে এসে তিনি কোন কর্তব্যরত ডাক্তারের দেখা পাননি তাকে একজন ওয়ার্ড বয় এসে কিছু ঔষধ খেতে দেয়। সোনিয়ার মা-বাবাকে জানানো হয় কষ্ট করে একটু রাতটা পার করুন বড় ডাক্তার সকালে আসবেন, রাতে কোন ডাক্তার নেই। এমন কথা শুনে বিপাকে পড়েন রোগীর স্বজনরা।

এমনি তথ্যের ভিত্তিতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,
রাজশাহী জেলার দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ হয় ২০১৪ সালে। এরপর থেকেই ৫০ শয্যার কার্যক্রম চলছে। কিন্তু কেবলই খাতা-কলমে। এখানে ২৮ জন চিকিৎসকের স্থলে আছেন মাত্র ৪ জন। এর মধ্যে ১৭ জন মেডিক্যাল অফিসারের স্থলে আছেন মাত্র ২ জন। ৪ জন ওয়ার্ড বয়ের স্থলে আছেন ২ জন। দুটি আয়ার পদ শূন্য। এভাবেই চলছে এ স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি।

গতকাল, এখানে চিকিৎসা নিতে আসা নূর উদ্দীন নামের এক রোগী বলেন, ‘ডাক্তারের জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এরপর ডাক্তার দেখলেও তেমন কোনো ওষুধ পাওয়া যায় না। বড় কিছু হলে যেতে হয় রাজশাহীতে। এখানে তখন কোনো চিকিৎসা পাওয়া যায় না।’

জানতে চাইলে এ হাসপাতালের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা দেওয়ান নাজমুল আলম বলেন, ‘এখানে সবকিছুরই চরম সঙ্কট। এতে করে চিকিৎসাসেবা দিতে আমাদের বেগ পেতে হচ্ছে। রোগীরাও হয়রানি হচ্ছেন। কিন্তু সঙ্কট সমাধানের কোনো উপায় দেখছি না।’

তিনি জানান, রি-এজেন্ট না থাকায় মাঝে মাঝে বন্ধ থাকে রক্ত পরীক্ষা। আবার ফিল্ম সঙ্কটের কারণেও মাঝে মাঝে বন্ধ থাকে এক্সরে মেশিন। এমতো অবস্থায় চিকিৎসক সংকটে যথাযথ সেবা পাচ্ছে না এই উপজেলার চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা ।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button