আন্তর্জাতিক

মিথ্যা অপবাদ সইতে না পেরে ট্রেনের নিচে ঝাপ দিলেন শিক্ষক

সংবাদ চলমান ডেস্কঃ

তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে হয় সালিশ সভা। আর এই সালিশে ছাত্রীর সঙ্গে শিক্ষকের বিয়ের ঘোষণা দেয়া হয়। শুধু তাই নয় জোর করে বিয়েরও আয়োজন করা হয়। এতে অপমানিত হয়ে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে ট্রেনের নিচে ঝাপ দেন শিক্ষক। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরের গাইসলের ধনতলায় এ ঘটনা ঘটে।

এক সপ্তাহ আগে একটি কোচিং সেন্টারের প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীর ঘাড়ে হাত দেয়া অবস্থায় বিজ্ঞানের শিক্ষক মুজ্জাকির ইসলামের ভিডিও রেকর্ড করা হয়। তারপর ওই ছাত্রীকে বিয়ে করার জন্য শিক্ষকের ওপর চাপ তৈরি করা হয়। কিন্তু বিয়েতে রাজি হননি তিনি। তার জেরে ধনতলার কোচিং সেন্টারে ভাঙচুর করে কম্পিউটারে আগুন লাগানো হয়। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন মুজ্জাকির।

এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার গাইসল পঞ্চায়েত প্রধানের স্বামী তৃণমূলের মহম্মদ সাব্বির আহমেদের উদ্যোগে সালিশি সভা বসে। এতে উপস্থিতি ছিলেন ওই পঞ্চায়েতের সদস্যরা। সালিশি সভায় ওই শিক্ষককে বিয়েতে রাজি হতে বলা হয়। এমনকি রবিবার ওই ছাত্রীর বিয়ের আয়োজনও করা হয়। তবে বিয়ে করতে যাননি শিক্ষক। পরে বাড়ি থেকে কয়েক কিলোমিটার দুরে গাইসোল রেললাইন থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

তার মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরে কয়েক দফায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন স্থানীয়রা।

মুজ্জাকিরের মামা হাসালুন হকের অভিযোগ, জোর করে প্রধান ও তৃণমূলের জেলা পরিষদের প্রাক্তন সদস্য মুজ্জাকিরকে বিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। ভিডিও ভাইরাল করে বিয়ে করতে চাপ দেয়। সেটা সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন তিনি।

ওই শিক্ষকের বাবা দবিরুল ইসলামপুরের অভিযোগ, আমার ছেলেকে ফাঁসিয়ে জোর করে বিয়ে দেয়ার চক্রান্ত চলছিল। সেটা সহ্য করতে না পেরে অপমানিত হয়ে সে রেললাইনে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।আমি দোষীদের শাস্তি চাই।

পুলিশ সুপার শচীন মক্কার বলেন, ওই শিক্ষকের মরদেহ নিয়ে পথ অবরোধ করা হয় কিছুক্ষণ। মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেলে নিশ্চয়ই তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button