রাজশাহী সংবাদ

নিজেদের দোষ ঢাকতেই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসরের বিরুদ্ধে অভিযোগ

নিজেদের দোষ ঢাকতেই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসরের বিরুদ্ধে অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নিজেদের বিভিন্ন অনিয়ম ঢাকতেই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃতি বিভাগের প্রফেসর বিথীকা বণিকের বিরুদ্ধে হুমকি ধামকির অভিযোগ তুলেছে উক্ত বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারিরা। সংস্কৃতি বিভাগের একাধিক শিক্ষার্থী উক্ত বিভাগের অফিস সহকারী ও উচ্চমান সহকারীর অনিয়মের অভিযোগ তুলে বলেন কোন প্রফেসর তাদের অফিসিয়াল নির্দেশ দিলে তারা প্রথমে দেখেন কোন প্রফেসর, তাদের পছন্দের হলে ঠিক ঠাক করেদেন আর পছন্দের না হলে বিভিন্ন অযুহাতে এড়িয়ে যান। এই নিয়ে দুই একবার বড় কথাও হয়েছে অফিসের ভেতরে। সহায়ক এর সাথে উচ্চমান সহকারীর একটা বিশেষ আতাত রয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সুত্র জানায় পুর্বেও একটি চক্র এই প্রফেসরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন যড়যন্ত্রের জাল পেতে হেনেস্তা করার চেষ্টা করেছিল সেখানেও তারা ব্যর্থ হয়ে ফিরেন। তবে বিশ্ববিদ্যালয়য়ে একজন সিনিয়র প্রফেসর বলেন একই বিভাগের কর্মচারি হয়ে সেই বিভাগের প্রফেসর কে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করা দুঃখ জনক, তিনি বলেন এই রা,বি,তে প্রফেসর বিথীকা বণিকের যথেষ্ট অবদান রয়েছে যা পুর্বের ইতিহাস দেখলেই বোঝা যাবে, বিশেষ করে পুরাতন স্টাফদের মাঝে অনেকেই জানেন। সংস্কৃতি বিভাগের চেয়ারম্যান বিপুল কুমার বিশ্বাসের মদদেই সেই বিভাগের একাধিক কর্মচারি প্রফেসর বিথীকা বণিকের সম্মান নষ্ট করতে বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। সংস্কৃতি বিভাগের একাধিক শিক্ষার্থী এর প্রতিবাদ করতে গেলে অভি সরকার নামের এক শিক্ষার্থীর নামে হুমকির অভিযোগ এনে তার নামে থানায় ডায়রি করেছেন উচ্চমান সহকারী জেবুন নেসা, তিনি এর জন্য প্রফেসর বিথীকা বণিক কেও দ্বায়ী করেছেন যার সাথে প্রফেসর বিথীকা বণিকের কোন সম্পর্ক নাই বলেও এর সত্যতা মিলেছে। প্রফেসর বিথীকা বনণিক বাজে ভাষায় শাসিয়েছে বলেও অভিযোগ তুলেছেন উচ্চমান সহকারী জেবুন নেসা, রা,বি,র প্রশাসন শাখার একজন কর্মকর্তা বলেন – কোন সময় অশালিন ভাষায় একজন প্রফেসর গালি দিবে এটা সম্ভব নয়, শুনেছি সংস্কৃতি বিভাগে একটা চক্কর চলছে শুধু ম্যাডামকে বিতর্কিত করার জন্য এটা ঠিক নয় এই রা,বি,তে অনেক সুনাম ধন্য ব্যক্তিরা বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছেন এটি নিয়ে তাদের ও সুনাম নষ্ট হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

জানতে চাইলে সংস্কৃতি বিভাগের চেয়ারম্যান বিপুল কুমার বিশ্বাস বলেন, আমরা উপচার্য বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছি – শিক্ষার্থীরা তার নামে বিভিন্ন অভিযোগ তুলছে কেন -জানতে চাইলে – তিনি পুনরায় মুঠো ফোনে ফোন দিয়ে দেখা করার জন্য বলেন। উপ-উপাচার্য চৌধুরী মোঃ জাকারিয়ার নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন এখনো এই ধরনের কোন অভিযোগ আমি পাইনি তবে উপচার্য স্যার আমাকে দ্বায়ীত্ব দিলে অবশ্যই খতিয়ে দেখব। মুঠো ফোনে প্রফেসর বিথীকা বণিকের নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান আমি রা,বি,তে, যোগদানের পর থেকে শিক্ষার্থীদের আর নিজের সন্তান্দের আলাদা ভাবে দেখিনি এরই মাঝে অনেক ঝড় ঝাপটা এসেছে যে বা যারা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যে ষড়যন্ত্র করছে তাদের দলিল দেখলেই সব বেরিয়ে আসবে। আমি কেন হুমকি দিতে যাব।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button