পবারাজশাহী সংবাদ

ধুরইলের আলমগীর মেম্বারের দাপটে চলছে অবৈধ পুকুর খনন

প্রশাসনের তোয়াক্কা না করে তড়িঘড়ি করে চলছে পুকুর খনন

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রশাসনের তোয়াক্কা না করে মিডিয়াকর্মীর নাম ভাংঙ্গিয়ে ধুরইলের আলমগীর মেম্বারের দাপটে চলছে অবৈধ পুকুর খনন। রাজশাহীর পবা, মোহনপুর ও ধুরইল এলাকায় তিন থেকে চার ফসলি কৃষিজমিতে চলছে পুকুর খনন। যেখানে মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশ রয়েছে, কোন কৃষি জমিতে শ্রেনী পরিবর্তন করে, পুকুর খনন করা যাবে না।

জানা যায়, এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী ও আলমগীর মেম্বারের যোগসাজশে উপজেলার কৃষকদের ভুলভাল বুঝিয়ে ও অধিক মুনাফার প্রলোভন দেখিয়ে ৮ থেকে ১০ বছরের জন্য তাদের জমি পুকুর বা দিঘি খননের জন্য লিজ নিচ্ছে। কেউ লিজ দিতে না চাইলে বিভিন্নভাবে অালমঙ্গীর মেম্বারের সন্ত্রাসী বাহিনী তাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে জোর করে সেই জমি লিজ নেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। সরেজমিনে পবা, মোহনপুর ও ধুরইল এলাকায় গিয়ে এর সত্যতা পাওয়া যায়।

উপজেলা মৎসবিভাগসহ একাধিক তথ্যসূত্রের আলোকে জানা গেছে, ২০১৭ সালে মোহনপুর উপজেলায় সরকারি ও বেসরকারি বাণিজ্যিক পুকুরের সংখ্যা ছিল প্রায় ৩ হাজার ৬১৮টি। যার আয়োতন প্রায় ৫৬৭ হেক্টর। এক বছরেই পুকুরের সংখ্যা বাড়েছে ১০৫টি। সবশেষ ২০২০ সালে পুকুর খননের পরিমাণ বাড়বে ২৫০টিরও অধিক।
এ অবস্থা চলতে থাকলে ভবিষ্যতে ফসলি জমির সংখ্যা শূন্যের কোটায় নেমে যাবে বলে আশঙ্কা করছে উপজেলার সচেতন মহল।

তাছাড়া ফসলি জমি নস্ট করে সরকারী নীতিমালা উপেক্ষা করে একের পর এক পুকুর খনন চলতে থাকলে খাদ্য সংকটসহ চরম জলাবদ্ধতায় পানিবন্দী হয়ে পড়বেন উপজেলার মানুষ। এটি ভবিষ্যৎ অন্ধকারের হাতছানি। এজন্য জনসাধারণকে সচেতনতার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় সব ধরণের ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের নজরদারি কামনা করেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button