রাজশাহী সংবাদ

কলেজছাত্র খুন: প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন ছুরি নিয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক : দুই স্কুলছাত্রীর সঙ্গে দুই বখাটের প্রেম। প্রেমিকেরা তাদের প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন ছুরি নিয়ে। তখন ‘বিরক্ত’ করায় ছুরি মেরে খুন করেছেন এক কলেজছাত্রকে। এমন ঘটনার বিবরণ দিয়ে দায়ের করা মামলায় দুই প্রেমিকাকেই সাক্ষী করা হয়েছে।

গত বুধবার বিকালে রাজশাহী মহানগরীর পবা নতুন পাড়া এলাকায় এই খুনের ঘটনা ঘটে। নিহত কলেজছাত্রের নাম আব্দুল্লাহ আল ফাহিম (১৯)। তিনি ওই এলাকার গোলাম হাসানের ছেলে। ফাহিম রাজশাহীর শহীদ বুদ্ধিজীবী সরকারী কলেজে একাদশ শ্রেণিতে পড়াশোনা করতেন। ছেলে খুনের ঘটনায় গোলাম হাসান মামলা করেছেন। মামলায় দুই প্রেমিককে আসামি করা হয়েছে।

তারা হলো- রাজশাহী মহানগরীর ভাটাপাড়া এলাকার বাসিন্দা বশির আলমের ছেলে আজমীর হাসান (২২) এবং আবুল হোসেনের ছেলে রাকিব হাসান ওরফে আবির (১৯)। এদের মধ্যে আবিরের বাবা রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) সদর দপ্তরে কর্মরত একজন অফিস সহকারী। আবিরকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারেও পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আবির ও আজমীর বুধবার বিকালে পবা নতুনপাড়া এলাকায় তাদের প্রেমিকাদের সঙ্গে দেখা করতে যান। তারা প্রেমিকাদের সঙ্গে বসে ছিলেন। তখন এলাকার ছেলে ফাহিম, যুবরাজ ও সৈকত গিয়ে তাদের বলেন, এই এলাকায় এভাবে বসে থাকা যাবে না। এতে ‘বিরক্ত’ হয়ে আজমীর ও আবির তাদের ওপর চড়াও হন। একপর্যায়ে ছুরি বের করে আক্রমণ করেন।

এতে ফাহিম ও যুবরাজ আহত হন। প্রাণভয়ে পালিয়ে যান সৈকত। এরপর প্রেমিকাদের নিয়ে পালিয়ে যান আজমীর ও আবির পালিয়ে গেলে স্থানীয় লোকজন আহত দুইজনকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে যান।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফাহিমের মৃত্যু হয়। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করে পুলিশ। সনাক্ত করা হয় অভিযুক্তদেরও। এরপর বৃহস্পতিবার সকালে আবিরকে গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শাহমখদুম থানায় আনা হয় দুই প্রেমিকাকেও। এরা দুজন বান্ধবী। দুজনেই পড়াশোনা করে নবম শ্রেণিতে। বাড়ি নগরীর নওদাপাড়া এলাকায়।

থানায় এ দুই স্কুলছাত্রী জানায়, একমাস আগে আবিরের সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তাদের একজনের পরিচয় হয়। তারপর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তারা দু’জন দেখা করে। তখন মেয়েটির ওই বান্ধবীও সঙ্গে যায়। আবিরের সঙ্গেও আসেন আজমীর। এদের দুজনেরও সম্পর্ক তৈরি হয়। তারপর থেকেই তারা চারজন মাঝে মাঝে নগরীর বিভিন্ন স্থানে দেখা করতেন।

পুলিশ জানিয়েছে, আজমীর এবং আবির নবম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করে বাদ দিয়েছেন। তারা বখাটে। আজমীর বিবাহিত। তবে বিষয়টি তিনি প্রেমিকার কাছে গোপনেই রেখেছিলেন। খুনের ঘটনার পর বিষয়টি জানাজানি হয়েছে। ঘটনার পর থেকেই আজমীর পলাতক। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

শাহমখদুম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম সরকার জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার আবির হত্যাকান্ডে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, ছোট একটা ছুরি দিয়ে যুবরাজ ও ফাহিমকে আঘাত করা হয়েছিল। ছুরিটিতে লাইটারও সংযুক্ত ছিলো। ধূমপানের সময় এটা দিয়ে তারা আগুন জ্বালাতেন। বসে থাকার সময় ‘বিরক্ত’ করায় এই ছুরি দিয়েই আঘাত করা হয়েছিল। তবে ছুরিটি উদ্ধার করা যায়নি বলেও জানান ওসি সাইফুল ইসলাম সরকার।

আরএমপির মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস জানান, পরিচয় সনাক্ত হওয়ার আগে মামলার এজাহারে আসামিদের ‘অজ্ঞাত দুই বান্ধবী’ উল্লেখ করে তাদের সাক্ষী করা হয়েছে। তবে পরে তাদের পরিচয় সনাক্ত করা গেছে। ঘটনার সাক্ষী হিসেবে থানায় তাদের জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো পড়ুন
Close
Back to top button