সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি পেটে-ভাতে টিকে থাকাই দায়

সংবাদ চলমান ডেস্ক: প্রতিনিয়ত দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে নাভিশ্বাস সাধারণ জনগণের। পেঁয়াজের দাম ডাবল সেঞ্চুরি পার করার সাথে সাথে দাম বাড়তে থাকে চাল, তেল ছাড়াও বেশকিছু নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের।

এবার চলছে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর গণশুনানি। এর ওপর আছে নতুন বছরে বাড়িভাড়া বৃদ্ধি। সবমিলিয়ে দৈনন্দিন পেটে-ভাতে বেঁচে থাকা নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির লোকেরা পড়েছে চরম বিপাকে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, সারা দেশেই কেমন যেনো অস্থিরতা ভাব। তারা বলছেন, সরকার শুধু অসাধু ব্যবসায়ীদের ওপর দোষ চাপিয়ে বসে আছেন। সমাধান তো হচ্ছে না। অনেকেই সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন রাজধানী ছেড়ে গ্রামে গিয়ে টিকে থাকতে।

কুমিল্লার রিয়াদ হিল্লোল, বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন পল্টনের এক কার্পেটের দোকানে।

তিনি এ প্রতিবেদককে জানান, ২০১১ সালে ঢাকায় আসেন। বর্তমানে তিনি থাকেন বাসাবো বৌদ্ধ মন্দির এলাকায়। দুই বছর আগেও তিনি পরিবার নিয়ে থাকতেন ঢাকা শহরে। এখন তিনি রুম শেয়ার করে ব্যাচেলর থাকেন।

রিয়াদ বলেন, বর্তমানে বাজারে দ্রব্যমূল্যের যে চড়া দাম তাতে রাজধানীতে থাকা অনেক কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, ১৬ হাজার টাকা বেতনে চাকরি করে পরিবার নিয়ে ঢাকা শহরে বসবাস করা খুব কষ্টকর।

রিয়াদ বলেন, পেঁয়াজের যেভাবে দাম বেড়েছে এর দেখাদেখি আস্তে আস্তে চাল, তেল, সবজি সবকিছুর দাম বাড়ছে। আমরা অল্প আয়ের মানুষ। বাজারে এভাবে সবকিছুর দাম বাড়তে থাকলে ঢাকা শহরে বাস করা এখন দায়।

তিনি বলেন, বর্তমানে কর্মসংস্থান মানেই শুধু রাজধানীভিত্তিক। সবাই চাকরির জন্য ছুটে আসে ঢাকায়। থানা-জেলাপর্যায়ে যদি চাকরির ব্যবস্থা থাকতো তাহলে ঢাকায় এত চাপ পড়তো না বলেন জানান রিয়াদ।এলাকার সুমনের সঙ্গে। উত্তরবঙ্গের সুমন সেখানে থাকেন ভাড়া বাসায়।

প্রতিষ্ঠানের নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি বলেন, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার অপারেটরের কাজ করেন। গত বছর তিনি পরিবার নিয়ে ঢাকায় থাকার কথা ভেবেছিলেন। তবে এবছর বাড়িভাড়ার অবস্থা দেখে তিনি পরিবার নিয়ে আসার সাহস করতে পারছেন না।

সুমন বলেন, এই এলাকায় প্রতিবছরই বাড়িভাড়া বৃদ্ধি পায়। বর্তমানে তিনি যে বাসায় থাকেন তার ভাড়া দিতে হয় ১৫ হাজার ৫০০ টাকা। তবে আসছে ২০২০ সালে প্রথম থেকে এই বাসায় আরও এক হাজার টাকা ভাড়া বৃদ্ধি হবে বলে বাড়ির মালিক জানিয়ে দিয়েছেন।

সুমন বলেন, এখন বাড়িভাড়া বাড়ছে পাশাপাশি নিত্যপণ্যের দামও বেড়ে চলছে। এভাবে বাড়তে থাকলে আমাদের মতো স্বল্প বেতনের লোকদের ঢাকায় পরিবার নিয়ে বাস করা দুরূহ হয়ে দাঁড়াবে।

তিনি বলেন, মাঝে মাঝে মনে হয় চাকরি ছেড়ে দিয়ে গ্রামে ফিরে গিয়ে ব্যবসা করবো।

এ বিষয়ে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) চেয়ারম্যান গোলাম রহমান আমার সংবাদকে বলেন, দ্রব্যমূল্যের । ঊর্ধ্বগতি তো সবসময়ই আছে, আর বছরের শেষে যুক্ত হয় বাড়িভাড়া বৃদ্ধি। এতে করে বেশি সমস্যার সম্মুখীন হয় নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তরা।

তিনি বলেন, আয় যদি ব্যয়ের সাথে সঙ্গতি রেখে না বাড়ে তাহলে জীবনমানের অবক্ষয় হয়। সেক্ষেত্রে অন্ন-বস্ত্র, চিকিৎসা, শিক্ষার ক্ষেত্রে কম্প্রোমাইজ করতে হয়। যা বর্তমানে কাঙ্ক্ষিত না।

গোলাম রহমান আরও বলেন, বর্তমান সরকারের সর্বশেষ সমীক্ষা অনুযায়ী দেশের তিন ভাগ মানুষ দরিদ্র সীমার নিচে থেকে এখন উপরে উঠেছে। এ সমীক্ষায় বোঝা যায় যে, দেশের অবস্থা ভালো। তবে মধ্যবিত্তদের আয় অনেক কম। তাদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসুবিধায় পড়তে হয়। তিনি বলেন, বাজারের স্থিতিশীলতায় সরকারকে অবশ্যই নজর দিতে হবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বাজারের অস্থিরতাভাব কমাতে না পারলে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষদের রাজধানীতে বসবাস করা অনেক কষ্টসাধ্য হয়ে পড়বে।

তারা আরও বলছেন, মানুষের নিত্যব্যবহার্য সামগ্রীর দাম বাজারে একবার বাড়লে তা আর কমে না। তখন ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ জনগণ। তাই সরকারকে বাজার নিয়ন্ত্রণে জোর তাগিদ দিতে বলছেন সাধারণ মানুষ।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button