দূর্গাপুররাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীর দুর্গাপুরে হত্যা সন্ধেহে স্বামী স্ত্রী আটক- এলাকায় তোলপাড়

 নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলায় নিজের স্ত্রীকে হত্যার দ্বায়ে  স্বামী ও তার অপর স্ত্রীকে আটক করেছেন দুর্গাপুর থানা পুলিশ।  সেই ঘটনাস্থল থেকে মহিলার মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছেন দুর্গাপুর থানা্র পুলিশ।

এই ঘটনাটি ঘটেছে, ২৪ ( জানুয়ারি) রবিবার ভোররাতে উপজেলার শ্রীধরপুর আংরার বিল নামক এলাকায়। গতকাল রবিবার সকাল ৯টার দিকেদুর্গাপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়েই স্বামী ও সতীনকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যার সন্দেহে স্বামী আব্দুল লতিফ (৫০) ও আব্দুল লতিফের অপর  ৪র্থ স্ত্রী মৃতের সতীন আসমা (৩২) কে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন থানা পুলিশ।

সরেজমিনে ঘটনা স্থলে এলাকাবাসীরা জানাযায়, দুর্গাপুর উপজেলার শ্রীধরপুর বড় আংরার বিল এলাকায় বাবু নামের একব্যাক্তির পুকুর পাহারাদারের কাজ করতো নাটোর জেলার আহম্মদপুর এলাকার আব্দুল লতিফ মোল্লা। পুকুর পাহারার দেওয়ার সুবাদে পুকুরের পাড়েই একটি ছোট পরিসরে  ঘর তুলে সেখানে তৃতীয় স্ত্রী সাগরী বেগম (৩৫) কে নিয়ে পুকুর পাহারা দিত আর বাস করতো পুকুর পাড়ে।

এলাকাবাসী ও মৃত মহিলার ভাই আসলাম শেখ জানায়, প্রায় সময় স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকতো তিনি বলেন হয়ত এরই জের ধরে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে। আব্দুল লতিফ আবারো  ২মাস পূর্বে নারায়ানপুরের বারীর কন্যা আসমা (৩২)কে গোপনে বিয়ে করে। গত এক সপ্তাহ পূর্বে বিষয়টি জানাজানি হলে তৃতীয় স্ত্রী সাগরী বেগম স্বামীর পুনরায় বিয়ে করার বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে স্বামীকে প্রায়ই গালিগালাজ করত।

এই নিয়ে  গত ২২ জানুয়ারী শুক্রবার বিকেলে স্বামী আব্দুল লতিফকে তার অনুমতি না নিয়ে বিয়ে করায় আদালতে মামলা করবে বলে হুমকি দেন স্ত্রী সাগরী বেগম। বিষয়টি নিয়ে স্ত্রী সাগরী বেগম আর যেন বাড়াবাড়ি না করতে পারে সে বিষয়টি নিয়ে চতুর্থ স্ত্রী আসমার সাথে পরিকল্পনা করে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হতে পারে বলে জানায় মৃত সাগরীর ভাই আসলাম শেখ। ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করেছে দুর্গাপুর থানার পুলিশ।

দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাশমত আলী সংবাদ চলমানকে জানান তাদেরকে জিজ্ঞাসা বাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তিনি বলেন শেষ হলেই বলা যাবে এই হত্যার সাথে তাদের কোন প্রকার জড়িত থাকার আলামত আছে কিনা। অপর দিকে মৃত মহিলার লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।এই  রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হত্যার সাথে সন্ধেহে আটক করা স্বামী স্ত্রীকে পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছিল।

 

এই ধরনের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
%d bloggers like this: