জাতীয়

শিক্ষার্থী আবরার হত্যার ঘটনায় ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা, আটক ৯

সিসিটিভি ভিডিও দেখে ছাত্রলীগের ৯ নেতাকে আটক করে পুলিশ

সংবাদ চলমান ডেস্ক : বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় ১৯জনকে আসামি করে চকবাজার থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।

সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর চকবাজার থানায় ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

নগর পুলিশের চকবাজার থানার ওসি সোহরাব হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ফাহাদের বাবা বাদী হয়ে সন্ধ্যায় মামলাটি করেন। এ মামলায় মোট ১৯জনকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে দিনভর অভিযানে আটক ৯ জনকে এ মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

মামলার প্রধান আসামি বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল এবং দ্বিতীয় আসামি যুগ্ম সম্পাদক মুহতাসিম ফুয়াদ।

এর আগে পুলিশ সিসিটিভি ভিডিও দেখে ছাত্রলীগের ৯ নেতাকে আটক করে।

আটকরা হলেন, বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফুয়াদ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এবং মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী অনিক সরকার, ক্রীড়া সম্পাদক ও নেভাল আর্কিটেকচার অ্যান্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের একই বর্ষের মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, ছাত্রলীগ নেতা রবিন, মুন্না, তানভীরুল আরেফিন ইথান, অমিত সাহা, আল জামি।

কৃষ্ণপদ রায় জানান, ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরার ফুটেজ (সিসিটিভি), প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ান এসব যাচাই-বাছাই করে আবরার হত্যাকাণ্ডে প্রাথমিকভাবে ৯ জনের সম্পৃক্ততা মিলেছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষ হলে বিস্তারিত বলা যাবে।

আটকদের মধ্যে ছয়জন আছেন ডিবি পুলিশের কাছে, দু’জন আছেন চকবাজার থানায় ও একজন আছেন শাহবাগ থানায়।

এদিকে আবরার ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ জানান, প্রয়োজনীয় কার্যক্রম শেষে ছেলের মরদেহ নিয়ে গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ার উদ্দেশে রওনা দেবেন তারা।

রোববার দিনগত রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের দ্বিতীয় তলা থেকে আবরার ফাহাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তিনি বুয়েটের ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষে পড়তেন।

তাকে কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ফাহাদের সহপাঠীরা। তিনি শেরেবাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পড়ুন
Close
Back to top button