জাতীয়

তাজরীন অগ্নিকাণ্ডের ৭ বছর: নিহতদের স্মরণে শ্রদ্ধা

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুর এলাকায় তুবা গ্রুপের তাজরীন ফ্যাশনসে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের সাত বছর পূর্ণ হলো আজ। পূর্তি উপলক্ষে নিহত শ্রমিকদের স্মরণে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন।

রোববার সকাল থেকেই বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের ব্যানারে নিহতদের স্মরণ করে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান আহত শ্রমিক ও নিহতের স্বজনেরা।

এ সময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশ থেকে শ্রমিক নেতারা বলেন, তাজরীন ফ্যাশনে পরিকল্পিতভাবে লাগানো আগুনে ১১৩ জন শ্রমিক নিহত ও তিন শতাধিক শ্রমিক আহত হয়। অগ্নিকাণ্ডের সাত বছর পার হলেও এখন পর্যন্ত খুনি মালিকের কোনো বিচার হয়নি। পোশাক শিল্পের ইতিহাসে ভয়াবহ এই দুর্ঘটনায় আহত এবং নিহত শ্রমিক পরিবারের সদস্যরা এখনও তাদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে।

রানা প্লাজা শ্রমিকদের জন্য যে ক্ষতিপূরণ সরকারিভাবে বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল তার হিসাবও চান শ্রমিক নেতারা। অবিলম্বে অসহায় এইসব শ্রমিকদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দাবি করেন তারা।

দেশের পোশাক শিল্পের ইতিহাসে অন্যতম এ দুর্ঘটনায় আগুনে পুড়ে মারা যান ১১৩ জন শ্রমিক, আহত হন দুই শতাধিক। সেদিনের ভয়াবহ আগুন থেকে বেঁচে ফেরা শ্রমিকরা আজও শরীর আর মনে বয়ে বেড়াচ্ছেন ক্ষত।

২০১২ সালে এই দিনে আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুরে তোবা গ্রুপের তাজরিন ফ্যাশন নামের পোশাক কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ড কেড়ে নেয় শত শ্রমিকের প্রাণ। জীবন বাঁচাতে ভবনটি থেকে লাফিয়ে পড়েও মারা যায় অনেকেই। আগুনের লেলিহান শিখার মাঝে শত শত শ্রমিকের বাঁচার আকুতি আর কান্না, নাড়া দিয়েছিলো সারা বিশ্বকে।

বেঁচে ফেরাদের অনেকেই হারিয়েছেন শরীরিক সক্ষমতা, অনেকেই হারিয়েছেন আপনজন। বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে আর্থিক ক্ষতিপূরন দেয়া হলেও, নামমাত্র সেই অনুদানের টাকার প্রায় সবটুকুই ব্যয় করতে হয়েছে চিকিৎসায়।

বিজিএমইএ-সহ বিভিন্ন এনজিও সংস্থার সহযোগীতায় চাকরী বা ক্ষুদ্র ব্যবসা দিয়ে অনেকেই নতুন করে জীবন শুরু করেছেন। তবে, অসহায় দরিদ্র শ্রমিকদের অনেককেই, চিকিৎসা ও সংসার খরচ মেটাতে বিক্রি করতে হয়েছে ভিটে-মাটি।

আহত ও ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য আর্থিক সহযোগীতার পাশাপাশি চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের দাবী জানান শ্রমিক নেতারা। এছাড়া সব ধরনের সহযোগিতার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

টেক্সটাইল গার্মেন্টস ওয়ারকার্স ফেডারেশনের ঢাকা জেলা কমিটির সভাপতি মিজানুর রহমান বলেন, ‘পরিত্যাক্ত যে ভবন সেটা আধিগ্রহণ করে যেন পোশাক শ্রমিকদের জন্য হাসপাতাল নির্মান করা হয়।’

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button