রাজশাহী সংবাদ

সংবাদ প্রকাশের ৪ ঘন্টা পরে পুঠিয়ায় কিশোর গ্যাংয়ের ৩ সদস্য আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক:
‘পুঠিয়ায় বেপরোয়া কিশোর গ্যাং মনোনীত নারী অন্তরঙ্গ ছবি তুলে চাঁদাবাজি’ শিরোনামে অনলাইন নিউজ পোর্টাল সংবাদ চলমান ডট কমে ও সিল্কসিটিনিউজ এ সংবাদ প্রকাশের ৪ ঘন্টার মধ্যে পুলিশের তাৎক্ষণিক অভিযানে কিশোর গ্যাংয়ের তিনজন সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার গভীর রাতে তাদের নিজ বাড়ি থেকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুঠিয়া থানা পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হবে বলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুঠিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাইনুল ইসলাম। তাছাড়া অাজ দুপুরে অাটকৃতদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন জেলা পুলিশ সুপার।

আটককৃতরা হলেন, তন্ময় (২৪) রকি (২৩) ও হাসান (২৫)। এরা সবাই পুঠিয়ার বাসিন্দা। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, এরাসহ ৬/৭ জন অজ্ঞাতনামা যুবক পূজা দেখতে আসা তিন কলেজ ছাত্রকে আটক করে নির্যাতন করে এবং তাদের মনোনিত নারীর সঙ্গে জোরপূর্বক অন্তরঙ্গ ভিডিও ধারন করে পুলিশে দেয়ার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবী করেন।

গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলা সদর ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের পাশে কৃষ্ণপুর মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের স্বীকার কলেজ ছাত্ররা হলেন, উপজেলার জিউপাড়া ইউনিয়নের গাওপাড়া গ্রামের বাবু মন্ডলের ছেলে ও নাটোর এন এস কলেজের শিক্ষার্থী শামিম হোসেন (১৮), তার মামাতো ভাই নাটোরের সিংড়া উপজেলার চরপাড়া গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে নিবির মন্ডল (১৭) এবং তার অজ্ঞাতনামা আরেক বন্ধু।

ভুক্তভোগী কলেজ ছাত্র শামিম হোসেন জানায়, মামাতো ভাই ও তার বন্ধুকে সঙ্গে করে মোটরসাইকেল নিয়ে পূজা মণ্ডুপ দেখতে পুঠিয়ায় এসেছিলেন। বিভিন্ন মণ্ডপ পরিদর্শন শেষে সন্ধ্যার সময় কৃষ্ণপুরে পূজা মণ্ডপ পরিদর্শন করে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের পাশে একটি কালভার্টে বসে গল্প করছিলেন। এসময় একটি পালসার মোটরসাইকেল নিয়ে তিনজন যুবক তাদের কাছে এসে তাদের বাসা কোথায় জানতে চান। নিজেদের পরিচয় দিলে কথা বলার অযুহাতে তাদের একটি পরিত্যাক্ত বিল্ডিংয়ের পেছনে ডেকে নিয়ে গিয়ে আচমকা তাদের মারধর শুরু করে।

এসময় মোটরসাইকেল আরোহী তিনজ কিশোর গ্যাং সদস্যের সাথে আরো ৪ থেকে ৫ জন অজ্ঞাত যুবক যোগ হয়। তবে পরে যোগ হওয়া ৪ থেকে ৫ জন যুবককে চিনতে না পারলেও মোটরসাইকেল আরোহী তিনজনের মধ্যে দুইজনকে তারা চেনেন। তাদের নাম, তন্ময় ও বৃত্ত এরা পুঠিয়ার বাসিন্দা।

নির্যাতনের স্বীকার শামিম হোসেন বলেন, আমাদের তিনজনকে লাঠি দিয়ে মারধর করার সময় কোত্থেকে এক তরুনিকে নিয়ে এসে আমাদের পাশে রেখে মোবাইলে ভিডিও ধারন করে। এসময় ওই তরুনিকে আমরা নিয়ে এসেছি বলে তাদের কাছে স্বীকার করতে বলে এবং ক্যামেরার সামনে আমাদের তিনজনকে তাদের কাছে ক্ষমা চাইতে বলে। আমরা তা অস্বীকার করায় লাঠি দিয়ে প্রচুর মারধর করে।

তিনি আরো বলেন, জোর করে ওই তরুনীর সঙ্গে আমাদের অন্তরঙ্গ ভিডিও ধারন করে সেই ভিডিও পরিবারের কাছে দেখানো ছাড়াও আমাদের পুলিশে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ২০ হাজার টাকা দাবী করে তারা। আমরা টাকা দিতে অস্বীকার করে পুলিশে দেয়ার কথা বললে তারা আবারো মারধর করে। পরে উপায় না পেয়ে তাদের ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়ে মোটরসাইকেল রেখেই আমরা পালিয়ে আসি। এরপর বাচ্চু নামের আমার এক মামাকে সঙ্গে নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button