রাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীতে শীতের তীব্রতা: রামেকে বাড়ছে ঠান্ডা জনিত রোগীর সংখ্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীতে গত দুই দিন ধরে বেশ শীত অনুভূত হচ্ছে, সাথে বইছে ঠাণ্ডা বাতাসও। নগরীতে দিনের বেলায় সূর্য এলেও তাতে নেই উত্তাপ। সকালে বেড়েছে কুয়াশার দাপট। সারাদিন হিমেল হাওয়া আর সন্ধ্যার পর কনকনে ঠান্ডায় কাঁপিয়ে তুলেছে নগরবাসীকে। শীতে জড়সড় এখন নগরবাসী।

এদিকে হঠাৎ করে আবহাওয়া প্রতিকূলে যাওয়ায় ঠান্ডাজনিত রোগ বেড়েছে। ফলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বাড়ছে রোগির সংখ্যা। বিশেষ করে ঠান্ডাজনিত রোগে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা।

এতে বিশেষ করে শিশুরা সর্দি, শ্বাসকষ্ট, আমাশয়সহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। শীতের তীব্রতা বাড়ায় বেড়েছে শীতজনিত রোগ-বালাই।

রামেক হাসপাতালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রামেক হাসপাতালে বেড়েছে রোগির সংখ্যা। শীত জনিত কারনে ২ দিন ধরে ঠান্ডায় অসুস্থ হয়ে পরেছে অনেক শিশু তাই অসুস্থ রোগীর ভিড় দেখা যায় হাসপাতালে। বিশেষ করে শিশুদের ভতি হতে দেখা গেছি বেশি।

হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১৬৮ জন নতুন রোগি ভর্তি হয়েছে।তাদের মধ্যে বেশি ছিলো শিশু রোগি। যারা কেউ জ্বর,ঠান্ডা অথবা ডাইরিয়াতে ভুগছে।

চারঘাটের মানিকগ্রামের শিশু লাবিবের মা রহিমা খাতুন বলেন, কয়েকদিন ধরে তার শিশুর ডায়রিয়া হয়েছে। চিকিৎসক বলছে ঠাণ্ডার কারণে। বর্তমানে তার অবস্থা ভলো। ছুটি দেয়ার কথা।

হাসপাতালের ১০ নম্বর ওয়ার্ডে পরামর্শক (শিশু) ফজলুল রহমান শীমুন বলেন, ৩ দিন আগে তেমন রোগি ছিলো না। তবে শীত বেশি পড়ছে রোগি বেশি হতে শুরু করেছে। এই ওয়ার্ডে মূলত শিশুদের চিকিৎসা দেয়া হয়। পাশাপাশি তাদের মায়েদেরও বিভিন্ন পরামর্শও দেয়া হয়।

নওগাঁ সদর থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রোগির স্বজন আসমা বেগম বলেন, তার বাচ্চার নিউমোনিয়া হয়েছে।বেশি ঠাণ্ডার কারণে।

রামেক হাপাতালের শিশু বিভাগের সহাযোগী অধ্যাপক ডা. শাহিদা ইয়াসমিন বলেন, শীতে শিশুরাই বেশি বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এর মধ্যে ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্ট, নিউমোনিয়া ও ব্রঙ্ককাইটিস রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া প্রকোপ শিশুদের বেশি।

তিনি আরো বলেন, শিশুদের চিকিৎসা চলছে। এছাড়া তাদের মায়েদের বিভিন্ন পরামর্শও দেয়া হচ্ছে। তারা যেনো শিশুদের বুকের দুধ খাওয়ায়। এছাড়া শিশুদের গরম স্থানে রাখে। নিজেদের খাবারের বিষয়ে সতর্ক থাকে।

এদিকে, রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক নজরুল ইসলাম জানান, বুধবার রাজশাহীর সর্বনিন্ম তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১১ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২২ দশমিক ২ ডিগ্রী সেলসিয়াস। যা এ মৌসুমের রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

আর গত মঙ্গলবার দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিলো ২৪ দশমিক ৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস। আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিলো ১৪ দশমিক ডিগ্রী সেলসিয়াস। দিন দিন তাপমাত্রা কমছে। জানুয়ারী থেকে এ মৌসুমে তীব্র শীত পড়তে পারে বলে জানিয়েছিল আবহাওয়া অফিস।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পড়ুন
Close
Back to top button