Uncategorizedরাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

রাজশাহী মহানগর ডিবির জালে ভুয়া পুলিশ কর্মকর্তা ফিরোজ গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

মাত্র কিছুদিন পূর্বে রাজশাহী মহানগর ডিবির উপ পুলিশ কমিশনার হিসেবে যোগ দান করেন আর এমপি পুলিশের চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা জুয়েল আরেফিন। তিনি এই বিভাগের দায়িত্ব গ্রহন করার পর থেকেই আর এম পির অপরাধিরা বেশ নড়ে চড়েবসে।

১৯ এপ্রিল রাত ১০ টার সময় রাজশাহীর মতিহার থানা এলাকার এক নির্যাতিত পরিবার তাদের উপর ঘটে যাওয়া প্রতারনা নিয়ে মহানগর গোয়েন্দা শাখায় উপ পুলিশ কমিশনার জুয়েল আরেফিনের নিকট ছুটেযান। অসহায় পরিবারের সাথে প্রতারনা হয়ার সকল বিষয় শুনে অভিযোগ গ্রহন করে রাতেই প্রযুক্তির মাধ্যমে সেই ভুয়া পুলিশ কর্মকর্তাকে আটক করেন ডিবি পুলিশের এস আই আল আমিন। মতিহার থানা এলাকার সেই নির্যাতিত পরিবার জানান টিসিবির পন্য নেওয়ার সময় সেই প্রতারক ফিরোজ এর সাথে আমাদের পরিচয় হয়। ফিরোজ নিজেকে পুলিশের এস আই আতিক নামে পরিচয় দেন।

পরে পুলিশের চাকরি দেওয়া সহ নানা বাহানায় সেই পরিবারের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলেন এই প্রতারক ফিরোজ । এরই ধারা বাহিকতায় সেই পরিবারে নানা ঘটনার জন্মদেন তিনি। সেই সাথে নগদ টাকা ও হাতিয়ে নেয় কৌশলে। রাসিকের পরিচ্ছন্ন কর্মী হিসেবে অস্থায়ি চাকরি করা ফুলতলার সেই নারী জানান ফিরোজ প্রতারণার মাধ্যমে তিনধাপে তার নিকট থেকে ১লক্ষ টাকা গ্রহন করেন। সেই নারী বলেন ফিরোজ মতিহার থানার ওসি হয়ে আসছেন এমন পরিচয় দিয়ে তার আরো বড় ধরনের ক্ষতি করেছে। তিনি বলেন আমাদের পরিবারে আয় ইনকামের জন্য কোন পুরুষ মানুষ নেই আমরা মহিলা মানুষ হয়ে কোন রকমে দুই বেলা খেয়ে না খেয়ে দিনযাপন করি তার উপর সমিতিতে লোনকরে সেই টাকা উঠিয়ে তাকে দেই। আর টাকা নেওয়ার পরেই সেই প্রতারক লাপাত্তা হয়েছিল।

অনেক ভাবে চেষ্টাকরে তার কোন সন্ধান না পেয়ে আমরা গোয়েন্দা পুলিশের নিকট যাই সেখান থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেন। কাটাখালি থানার চৌদ্দপায় মহোনপুরের অসহায় অটো চালকের পরিবার থেকে ১২ হাজার ৪শ টাকা গ্রহন করেন এই প্রতারক ফিরোজ। সেই অটো চালকের বৃদ্ধ মা ২০ এপ্রিল এই প্রতারক আটক হয়ার সংবাদ শুনে দুপুরে ডিবি অফিসে ছুটেযান তার ১৯ বছরের নাতিকে সাথে নিয়ে। তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন আমার এই নাতিকে পুলিশের চাকরি দেওয়ার কথা বলে আমার নিকট থেকে কাগজ পত্র ঠিক করার কথাবলে টাকা নেয় এই প্রতারক। তিনি বলেন ফিরোজ আমাকে এস আই আতিক নামে পরিচয় দিয়ে আমার এই নাতিকে পুলিশে ঢোকানোর কথা বলেছিল।

কাটাখালীর মহোনপুরে আরো একজনের নিকট থেকে প্রতারণার মাধ্যমে ২৫ হাজার টাকা গ্রহন করেছেন এই ফিরোজ। ২০ এপ্রিল বিকেলে প্রতারক ফিরোজের আসল বাড়ি এয়ারপোট থানার বায়া পালপাড়ায় গনমাধ্যম কর্মীরা গভীর অনুসন্ধানের জন্য গেলে স্থানিয়রা জানায় এই ফিরোজের বাবার নাম ইসমাইল হোসেন। ফিরোজ এর আগেও বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটিয়েছে। ফিরোজের প্রশাসনের পরিচয় দেওয়ার বিষয়টি এলাকায় পূর্বে থেকে অনেকেই জানে।

অভিযোগ কারির একজন জানান ফিরোজ নিজেকে এস আই পরিচয় দেওয়ার পাশাপাশি নিজের বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালির পরিচয় দিতেন। তবে এই ভয়ংকর প্রতারকের আরো রহস্য জনক ঘটনা থাকতে পারে বলে মনে করছেন মহানগর ডিবির একাধিক সুত্র। ডিবির তদন্ত কর্মকর্তা জানান তার বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা হয়েছে । আরো কোন ঘটনা আছে কিনা সেগুলো ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button