সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

৯৮ শতাংশ বাসায় গ্যাস লাইনে লিক

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
গ্যাসের রাইজার থেকে চুলা পর্যন্ত নাইনটি এইট পার্সেন্ট বাসায় লিক রয়েছে, সুইচের গোড়াতেও লিক। এটা ভয়ঙ্কর বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

সোমবার (২৩ ডিসেম্বর) বিকেলে পেট্রোসেন্টারে আবাসিক পর্যায়ে খোলা বাজারে প্রি-পেইড মিটার ক্রয় ও স্থাপন নীতিমালা শীর্ষক সেমিনারে প্রতিমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, যারা প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করেছে, তারাই আমাকে বলেছে রাইজার থেকে চুলা পর্যন্ত লিকেজের কথা। এই সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব গ্রাহককেই নিতে হবে, তাদেরকে সচেতন হতে হবে। শীতের কারণে অনেক জায়গায় গ্যাসের চাপ কমে যাওয়ার খবর পাচ্ছি।

নসরুল হামিদ বলেন, বিদ্যুতে বিশেষ আইনকে কাজে লাগিয়ে অনেক বেসরকারি কোম্পানিকে কাজ দেওয়া হয়েছে। এতে প্রাইভেট সেক্টরে প্রচুর কর্মসংস্থান হয়েছে। বেসরকারি উদ্যোক্তারা দ্রুত বিদেশি বিনিয়োগ এনেছে। জ্বালানি ক্ষেত্রেও তেমন হতে পারে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রথমে প্রি-পেইড মিটার দিয়ে যাত্রা করছি, পরে স্মার্ট মিটারে যাবো। যাতে আপনারা ঘরে বসে বিল দিতে পারেন।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব আবু হেনা রহমাতুল মুনিম বলেন, আমদানিকারকরা নিজ দায়িত্বে প্রি-পেইড মিটার আমদানি করবেন। গ্রাহকরা ক্রয় করে বিতরণ কোম্পানিতে জমা দেবেন। বিতরণ কোম্পানিগুলো পরীক্ষা করে গ্রাহকের আঙ্গিনায় স্থাপন করবে। মিটার যদি পরীক্ষায় যথাযথ মান পাওয়া না যায়, তাহলে রিজেক্ট করবে। তখন সার্টিফিকেট দিবে, সার্টিফিকেটসহ গেলে বিক্রেতা টাকা ফেরত কিংবা পরিবর্তন করে দিতে বাধ্য থাকবে।

আমরা চাচ্ছি ব্যবসায়ী ও গ্রাহকরা এগিয়ে আসুক। আমরা উৎসাহ দিয়ে যাবো। প্রি-পেইড মিটার সাশ্রয়ী এবং ঝামেলা বিহীন। এতদিন বিতরণ কোম্পানিগুলো গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করেছে। মিটার বাবদ নির্দিষ্ট হারে ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। গ্যাসের ৪৩ লাখ গ্রাহকের মধ্যে ২ লাখ ১৩ হাজার প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করা হয়েছে। মিটার স্থাপনে ধীরগতিসহ নানা কারণে বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এখন থেকে গ্রাহক চাইলে নিজেরা মিটার কিনে স্থাপন করতে পারবে। এ জন্য আবাসিক পর্যায়ে খোলা বাজার হতে প্রি-পেইড/স্মার্ট গ্যাস মিটার ক্রয় ও স্থাপন নীতিমালা-২০১৯ গত ৪ ডিসেম্বর জারি করা হয়েছে। সরকার চাচ্ছে তারা এগিয়ে আসুক, তারা আমদানি করে খোলাবাজারে বিক্রি করুক। সচেতনতা বৃদ্ধি ও মতামতের জন্য সেমিনার আয়োজন করা হয়।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button