সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

২০ বছরেও এমপিওভুক্ত হয়নি স্কুল

সংবাদ চলমান ডেস্ক:   জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষায় শতভাগ পাশ করা টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার বুড়িহাটী উচ্চ বিদ্যালয় ২০ বছরেও এমপিওভুক্ত হয়নি। সকল যোগ্যতা থাকার পরও এমপিওভুক্ত না হওয়ায় বেতন ভাতা না পেয়ে শিক্ষক-কর্মচারীরা পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতরভাবে জীবন-যাপন যাপন করছেন বলে জানিয়েছেন।

বিদ্যালয়টি অগ্রাধিকার আওতায় এমপিওভুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর দ্রুত সহায়তা চেয়েছেন শিক্ষক-কর্মচারীরা। আজ সোমবার মির্জাপুর উপজেলার ভাদগ্রাম ইউনিয়নের বুড়িহাটী উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেছে বেতন ভাতা না পেয়েও শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের পাঠদান করে যাচ্ছেন।

বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. আইন উদ্দিন এবং প্রতিষ্ঠাতা ও আজীবন সদস্য ইউপি মেম্বার মো. জিয়ারত হোসেন জানান, অবহেলিত এলাকার শিক্ষা বিস্তারের লক্ষে আনসার-ভিডিপি ক্লাব ও এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতায় ২০০১ সালে বুড়িহাটী উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়টির প্রতিষ্ঠাকালীন প্রধান শিক্ষক ছিলেন মো. আনোয়ার হোসেন। ২০০১ সালে পাঠদানের অনুমতি এবং ২০০৫ সালে স্বীকৃতি লাভ করায় বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী সংখ্যা বাড়তে থাকে। ম্যানেজিং কমিটির সদস্য, প্রধান শিক্ষক, শিক্ষক-কর্মচারী এবং এলাকাবাসীর সহযোগিতায় দিন দিন বিদ্যালয়টি উন্নয়নের দিকে ধাবিত হয়। বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শাখা মিলে ৪০০শতাধিক শিক্ষার্থী রয়েছে। জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষায় শতভাগ পাশসহ খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনেও বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মেধার স্বাক্ষর রেখে চলেছে। ২০১৯ সালের জেএসসি পরীক্ষায় ৬৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে জিপিএ-৫সহ শতভাগ শিক্ষার্থী পাশ করেছে বলে শিক্ষক-কর্মচারীরা জানিয়েছেন। ভালো ফলাফলের পরও নানা সমস্যায় জর্জরিত বিদ্যালয়টি। প্রধান সমস্যা হচ্ছে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত না হওয়া। এমপিওভুক্ত না হওয়ায় বেতন ভাতা না পেয়ে শিক্ষক-কর্মচারীরা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতরভাবে জীবন যাপন করছেন।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সাদিকুর রহমান খান ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. আইন উদ্দিন বলেন, ‘অনেক আশা ভরসা ও এলাকার শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্য নিয়ে বুড়িহাটী উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে। বিদ্যালয়টি সকল কাগজপত্র শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা বোর্ডে জমা দেওয়া হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ মো. একাব্বর হোসেন এমপি একটি চারতলা পাকা ভবন দিয়েছেন যার কাজ এখন চলমান। জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল সন্তোষজনক। কিন্তু এমপিওভুক্ত না হওয়ায় শিক্ষক-কর্মচারীরা বেতন ভাতা না পেয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।’ শিক্ষক-কর্মচারী এবং শিক্ষার্থীদের দিকে তাকিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী বিদ্যালয়টি দ্রুত এমপিওভুক্তির ব্যবস্থা করবেন এমনটাই জোর দাবি জানিয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. হারুন-অর রশিদ বলেন, ‘বুড়িহাটী উচ্চ বিদ্যালয়ের ফলাফল সন্তোষজনক। এমপিওভুক্তি না হওয়ায় বেতন ভাতা না পেয়ে শিক্ষক-কর্মচারীরা মানবেতরভাবে জীবন যাপন করছেন।’ বিষয়টি সু-দৃষ্টি দেওয়ার জন্য তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানিয়েছেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button