সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

স্কুল ছাত্রীকে দিয়ে ডাস্টবিন পরিষ্কার করালেন শিক্ষক

সংবাদ চলমান ডেস্ক পাবনার চাটমোহরে টিফিনের সময় চতুর্থ শ্রেণির এক ছাত্রীকে দিয়ে ডাস্টবিন (ময়লার বালতি) পরিষ্কার করালেন সহকারী শিক্ষক।

শনিবার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ শিবরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে তড়িঘড়ি করে ওই ছাত্রীকে সরিয়ে নেন প্রধান শিক্ষকসহ অন্য শিক্ষকরা।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, শনিবার দুপুরে টিফিনের সময় চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী স্বর্ণ রানী (রোল নং-২) স্কুলের সিঁড়িতে বসে কালো রঙের (ডাস্টবিন) একটি বড় বালতির ভেতরে হাত ঢুকিয়ে ময়লা ফেলে দেয়ার পর সাবান দিয়ে পরিষ্কার করছে। সিঁড়ির পাশে দাঁড়িয়ে ছিল বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী।

এ সময় ক্যামেরা দিয়ে ছবি তোলা দেখে ওই শিশু শিক্ষার্থী ওয়াশরুমে চলে যায়। পরে তার পিছু নিয়ে ওয়াশ রুমে গিয়ে দেখা যায় পানি দিয়ে বালতি পরিষ্কার করছে ওই শিক্ষার্থী।

জানা গেছে, স্কুলের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা দুপুরের টিফিন খাওয়ার পর উচ্ছিষ্ট অংশ এবং বিভিন্ন ময়লা-আবর্জনা ওই বালতিতে ফেলা হয়। আবর্জনার স্তর পড়ে যাওয়ায় ওই শিক্ষার্থীকে দিয়ে বালতি পরিষ্কার করানো হচ্ছে।

কে তাকে এই কাজ করতে বলেছে জিজ্ঞেস করলে ওই শিক্ষার্থী বলে, ‘জহুরুল স্যার ময়লার বালতি পরিষ্কার করতে বলেছে।’ অভিযুক্ত জহুরুল ইসলাম ওই স্কুলের সহকারী শিক্ষক।

এ ব্যাপারে সহকারী শিক্ষক জহুরুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি যুগান্তরকে বলেন, ‘আমার ভুল হয়েছে। এমনটা আর হবে না।’ পরে তিনি এই প্রতিবেদককে নিউজ না করতে অনুরোধ করেন।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক হাবিবুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, ‘কাজটি কোনো মতেই ঠিক হয়নি। বিষয়টি আমার জানা ছিল না।’ আপনিও তো দেখেছেন বিষয়টি এমন প্রশ্ন জিজ্ঞেস করলে তিনি এ প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান।

এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. আনোয়ার হোসেন যুগান্তরকে বলেন, শিশু শিক্ষার্থী দিয়ে কোনো শিক্ষক এমন কাজ করাতে পারেন না। বিষয়টি ওই শিশুর পরিবারের লোকজন দেখলে কষ্ট পাবে। বাচ্চাকে আর স্কুলেই পাঠাবে না। বিষয়টি যেহেতু জানলাম সেহেতু বিস্তারিত জেনে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এর আগে ঠাকুরগাঁওয়ে পরীক্ষায় বেশি নম্বর পাইয়ে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের দিয়ে স্কুলের শৌচাগার পরিষ্কার করান সদর উপজেলার সালন্দর দক্ষিণ আরাজী শিংপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button