সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

সাইন বোর্ডের দাম ২৫ লাখ!

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
অসঙ্গতি ধরা পড়েছে রাস্তাঘাটের দিক-নির্দেশক সাইন নির্মাণে। এ নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্তদের কাছ থেকে পাওয়া যাচ্ছে না কোন সটিক তথ্য। এখনো অন্ধকারেই আছে দুর্নীতির মুখোশগুলো।

কোনো একটি মহাসড়কে একটি ‘ওভারহেড ডিরেকশনাল সাইন’ (সড়কের ওপরে দিকনির্দেশক চিহ্ন) নির্মাণে খরচ করা হচ্ছে ২৫ লাখ। একই রকম অপর একটি ‘ওভারহেড গ্যানট্রি সাইন’ নির্মাণে খরচ হচ্ছে ছয় লাখ ৮০ হাজার টাকা! সাইন দুটি কাছাকাছি ধরনের হলেও খরচের পার্থক্য প্রায় ১৮ লাখ টাকা!

এক মহাসড়কে একটি ‘ডিরেকশনাল সাইন’ নির্মাণে খরচ করা হচ্ছে সাড়ে ২৫ হাজার টাকা, অন্য মহাসড়কে একই সাইন নির্মাণে প্রতিটিতে খরচ করা হচ্ছে এক লাখ টাকা! আরেক মহাসড়কে তা দুই লাখ!

আবার এক মহাসড়কে একটি ট্রাফিক সাইন নির্মাণে খরচ করা হচ্ছে পাঁচ হাজার, অন্য মহাসড়কে একটি ট্রাফিক সাইন নির্মাণেই খরচ করা হচ্ছে ৬৫ হাজার টাকা!

এক রকম চোখ বন্ধ করেই একনেক সভায় এ সকল অসঙ্গতিমূলক বিল অনুমোদনও হয়। এ রকম সাতটি প্রকল্প বিশ্লেষণ করে এ অসঙ্গতির তথ্য পাওয়া যায়। সবগুলো প্রকল্পই সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে সড়ক ও জনপথ অধিদফতর (সওজ) বাস্তবায়ন করছে।

এ ব্যাপারে সওজের প্রধান প্রকৌশলী ইবনে আলম হাসান জনৈক সংবাদকর্মীকে বলেন, ‘আপনার কথা বিস্তারিত শোনার মতো সময় আমার নাই। বুঝছেন? কারণ সেখানে আমাদের এক ডজন লোক আছে। তাদের সঙ্গে আপনি পরামর্শ করেন।’

একটি সাইন নির্মাণের জন্য ২৫ লাখ টাকা খরচ করা হচ্ছে, এটা কতটা যৌক্তিক? এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধান প্রকৌশলী ইবনে আলম হাসান বলেন, ‘এটা আমার জানা নাই।

বাজার দাম অনুযায়ী, সিডিউল অনুযায়ী দেখতে পারেন। আরে ভাই, আপনার এটা নিয়ে এত টেনশন কেন? আপনার তো এটা নিয়ে টেনশন থাকার কথা নয়।’

বিষয়গুলো পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানকে অবহিত করা হলে তিনি বলেন, ‘আপনি যদি আমাকে লিখিত দেন, আমি খোঁজ-খবর নেব। আমার কিছু নিয়ম আছে। সতর্কতার সঙ্গে নির্ভুলভাবে বিষয়গুলো লেখেন।’

প্রকল্পগুলো অনুমোদন দেয়ার আগে পরিকল্পনা কমিশনের কর্মকর্তারা যেন পণ্যের মূল্য ভালোভাবে যাচাই করেন, সেই নির্দেশনা একাধিকবার দেয়া হয়েছে।

তারপরও কেন এমন অসঙ্গতি উঠে আসছে- জানতে চাইলে এম এ মান্নান বলেন, ‘আমি যে বারবার কথাগুলো বলি, এমন না যে রাতারাতি পরিবর্তন হয়ে যাবে। তবে আমি আমার চাপ অব্যাহত রাখব।’

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button