সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

সবজির গাড়িতে ফেনসিডিল পাচার, গ্রেফতার দুই

সংবাদ চলমান ডেস্ক:  রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানার আব্দুল্লাপুর মাছ বাজার থেকে মৌসুমি সবজির গাড়ি থেকে ১ হাজার ১৮৮ বোতল ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী চক্রের ২ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১। এ সময় মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত মিনিট্রাক জব্দ করা হয়েছে। গ্রেফতাররা হলো- মো. ইকবাল হোসেন (৩০) ও মো. স্বপন মন্ডল (৩১)।

বুধবার র‌্যাব-১ এর মিডিয়া কর্মকর্তা এএসপি কামরুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান,সকাল সাড়ে ৮টার দিকে আব্দুল্লাহপুর মাছ বাজারের ত্বাসীন সিএনজি ফিলিং স্টেশনের সামনে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের দখলে থাকা মিনিট্রাকটি তল্লাশি করে ১ হাজার ১৮৮ বোতল ফেনসিডিল, ২ হাজার ৪৫০ টাকা ও ৪টি মোবাইল উদ্ধার করা হয় এবং মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত মিনিট্রাকটি জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা একটি সংঘবদ্ধ মাদক ব্যবসায়ী চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা কুষ্টিয়া জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে চোরাচালানের মাধ্যমে ফেনসিডিল নিয়ে আসে। পরবর্তীতে ফেনসিডিলের চালানগুলো মৌসুমি সবজি ভর্তি ট্রাকে করে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে সরবরাহ করতো। ফেনসিডিলের চালানটি তারা মিনিট্রাকের মধ্যে বিশেষ কৌশলে রাজধানীতে নিয়ে আসছিল। এই চক্রের অন্যতম সদস্য কুষ্টিয়া জেলার জনৈক মাদক ব্যবসায়ী। সে অবৈধভাবে ফেনসিডিলের চালান দেশে নিয়ে এসে ইকবাল ও স্বপনের মাধ্যমে মাদকের চালান ঢাকা ও আশেপাশের এলাকায় নিয়ে এ সিন্ডিকেটের মাধ্যমে পাইকারী মূল্যে বিক্রয় করে বলে জানায়।

ইকবালকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে পেশায় একজন ট্রাক ড্রাইভার। সে প্রায় ১০ বছর যাবত গাড়ি চালিয়ে আসছে। কুষ্টিয়া জেলার জনৈক মাদক ব্যবসায়ীর মাধ্যমে মাদক ব্যবসায়ের সঙ্গে সে জড়িত। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দৃষ্টি এড়াতে মিনিট্রাকে বিশেষ কৌশলে ফেনসিডিলের চালান রাজধানীতে নিয়ে আসে।এর আগে ১০-১৫ টি মাদকের চালান রাজধানীসহ এর আশপাশের জেলাসমূহে সরবরাহ করেছে বলে স্বীকার করে। বিনিময়ে চালানপ্রতি ৩০ হাজার টাকা করে পায় ইকবাল।

অপর আসামি স্বপনকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে জব্দকৃত মিনি ট্রাকের হেলপার।  এর আগে সে এলাকায় রিকশা চালাত। স্বপন ইকবালের মাধ্যমে মাদক ব্যবসায় জড়িত হয়। মাদকদ্রব্য পরিবহনে সে ইকবালের সহযোগী হিসেবে কাজ করে। এছাড়াও সে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে মাদক কারবারীদের কাছে মাদকদ্রব্য পাইকারী মূল্যে বিক্রয় করে বলে স্বীকার করে। সে চালানপ্রতি ১০-১৫ হাজার টাকা করে পায় বলে জানায়।

উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্য ও গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button