সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

রংপুরে উদ্ধার মরদেহের পরিচয় মিলেছে, আটক ১

রংপুর প্রতিনিধিঃ
রংপুরের হারাগাছে মসজিদের সেপটিক ট্যাংক থেকে উদ্ধার হওয়া অর্ধগলিত মরদেহের পরিচয় মিলেছে। মরদেহটি হারাগাছ পৌর এলাকার সারাই নিউ কাজীপাড়া গ্রামের সুমন মিয়ার (১৯)। তিনি মৃত আব্দুর রহিম মিয়ার ছেলে। গত ১৭ ডিসেম্বর বন্ধুদের সঙ্গে স্থানীয় সারাই ভূমি অফিস মাঠে ওয়াজ মাহফিলে নিখোঁজ হন সুমন।

নিখোঁজের ১০ দিন পর শুক্রবার (২৭ ডিসেম্বর) বিকেলে সারাই বায়তুল আমান জামে মজিদের পেছনের সেপটিক ট্যাংক থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, কয়েক বছর ধরে সুমন ঢাকার একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। গত ১০ ডিসেম্বর বাড়িতে আসেন। ১৭ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় একই গ্রামের মহির আলীর ছেলে লিমনসহ (১৮) আরও কয়েকজন স্থানীয় ভূমি অফিস মাঠে ওয়াজ মাহফিলে যান। এরপর সুমন আর বাড়ি ফিরে আসেননি। ওইদিন রাত থেকে তার ব্যবহৃত মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজির পরও সুমনের সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এদিকে, শুক্রবার বিকেল বেলা বায়তুল আমান জামে মসজিদ সংলগ্ন নুরানি হাফিজিয়া মাদরাসার ভবনের ছাদে কয়েকজন শিশু ব্যাডমিন্টন খেলছিল। এ সময় তাদের কর্কটি নিচে পড়ে যায়। সেই কর্ক খুঁজতে গিয়ে সেপটিক ট্যাংকের মুখের একটি অংশ খোলা অবস্থায় সেখানে মরদেহ পড়ে থাকতে দেখতে পায় তারা। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে বিকেল ৫ টার দিকে ওই মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতের মা শাহানা বেগমের অভিযোগ, তার ছেলে সুমনকে মাহফিলে ওয়াজ শোনার কথা বলে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তিনি জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

এ বিষয়ে হারাগাছ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম নাজমুল কাদের বলেন, ‘সুমনকে হত্যার পর সেপটিক ট্যাংকে ফেলে রাখা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে মরদেহের ময়নাতদন্ত করলে বিষয়টি আরও স্পষ্ট হওয়া যাবে।’

এদিকে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে একজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হলেও তদন্তের স্বার্থে নাম-পরিচয় জানায়নি ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button