সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

যাত্রীর বেশে বাসে ডাকাতি, সর্বস্ব লুট

সংবাদ চলমান ডেস্ক:  যাত্রী সেজে বাসে উঠে অন্য যাত্রীদের গহনা, নগদ টাকা, মোবাইল ফোনসহ কয়েক লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়েছে একদল সশস্ত্র ডাকাত। তাদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে জখম হয়েছে গাড়িচালক দীন ইসলাম (৪২)। তাকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। যাত্রীরা বলছেন, সকল যাত্রীদের ভিডিও ফুটেজ ধারণ করা আছে। ডাকাত সনাক্তে মাঠে নেমেছে পুলিশ।

জানা যায়, শুক্রবার দিনগত রাত একটার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা পিরোজপুরগামী গোল্ডেন লাইনের বাসটি ফরিদপুরের ভাঙ্গার মোড়ে পৌঁছলে ডাকাতদল বাসের চালক ও তার সহকারীকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বাসের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। পরে তারা কালো মুখোস পরে যাত্রীদের নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও অন্যান্য মালামাল লুট করে। প্রায় আড়াই ঘণ্টা পর শনিবার ভোর রাত সাড়ে তিনটার দিকে ডাকাতদল বাগেরহাট সদর উপজেলার মাথাভাঙা এলাকায় এসে গাড়ি থামিয়ে নেমে যায়।

তবে পুলিশ ডাকাতির ঘটনায় জড়িত কাউকে এখনো সনাক্ত করতে পারেনি।

ডাকাতির শিকার হওয়া এনজিও কর্মী শিল্পী আক্তার বলেন, যাত্রীর বেশে ৭/৮ জনের কালো মুখোস পরা ওই ডাকাত দলটি অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে আমার গলার স্বর্ণের চেইন, চুরি, কানের দুল, নগদ কুড়ি হাজার টাকা, দুটি মোবাইল সেট এবং কাপড়ের ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। পরে তারা একে একে বাসে থাকা সব যাত্রীর কাছ থেকে নগদ টাকাসহ সব মালামাল লুট করে।

বাসের সহকারী আবিদ হোসেন বলেন, বাসটি ঢাকার সাভারের নবীনগর কাউন্টারে পৌঁছলে সেখান থেকে টিকিট নেওয়া আটজন যাত্রী বাসে ওঠেন। বাসটি ফরিদপুরের ভাঙ্গার মোড়ে পৌঁছলে ডাকাতির ঘটনা শুরু হয়। অস্ত্রধারী ওই যাত্রীরা কালো মুখোস পরে প্রথমে আমাকে ও চালককে মারধর শুরু করে। এসময় চালক নিয়ন্ত্রণ ছাড়তে রাজি না হলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার মুখে আঘাত করা হলে তিনি রক্তাক্ত জখম হন। পরে গাড়ির নিয়ন্ত্রণ নেয় ডাকাতরা। এরপর একে একে সবার মোবাইলফোন সেট কেড়ে নিয়ে মালামাল লুট করতে থাকে। চলে রাত তিনটা পর্যন্ত। এরমধ্যে গাড়িটি কোথাও দাঁড়ায়নি। ডাকাতির শিকার হয়েছেন অন্তত ৩০ জন যাত্রী। মালামাল লুট হওয়া যাত্রীদের বাড়ি বাগেরহাট, গোপালগঞ্জ ও পিরোজপুর জেলায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন যাত্রী দুপুরে এই প্রতিবেদককে বলেন, ঢাকার হাইওয়ে পুলিশের কাছে ওই বাসের সব যাত্রীদের ভিডিও ফুটেজ ধারণ করা রয়েছে।

বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাহফুজ আবজাল বলেন, পুলিশ ডাকাতির শিকার যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলেছে। যাত্রীদের মামলা দিতে বলা হয়েছে। ওই ডাকাতদলকে সনাক্ত করতে পুলিশ কাজ শুরু করেছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button