সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

যশোরে মেয়েকে হত্যা করে মায়ের আত্মহত্যা!

সংবাদ চলমান ডেস্ক: যশোরের শার্শার পল্লীতে একটি স্বর্ণের চেইনকে কেন্দ্র করে গর্ভবতী মা তার ছয় বছরের শিশু মেয়েকে বালিশচাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে নিজে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

রোববার সকালের দিকে এ ঘটনা ঘটেছে।

মৃতরা হলেন শার্শা থানার রামচন্দ্রপুর গ্রামের আল-মামুনের স্ত্রী জুলি খাতুন ও তার মেয়ে আমেনা খাতুন।

স্থানীয়রা জানান, আমেনা একটি স্বর্নের চেইন গলায় দিয়ে গতকাল সন্ধ্যায় বাড়ির পাশের একটি মুদি দোকানে যায়। তখন মুদি দোকানদার আলাউদ্দিন ওরফে গ্যাদার মেয়ে জুলি খাতুন আমেনার গলায় স্বর্ণের চেইন দেখে তার চেইন বলে দাবি করে। সে বলে এটা তার প্রায় ৫-৬ মাস আগে হারিয়ে যায়। এক পর্যায়ে চেইনটি ওই মুদি দোকানদার এর মেয়ে জুলি রেখে দিয়ে চুরির অপবাদ দেয়।

এরপর জুলি ও তার মেয়ে আমেনা বাড়ি ফিরলে তার শ্বশুর শাশুড়ি রাগারাগি করে। এরপর রাতে খাওয়ার পর যার যার ঘরে চলে যায়। সকাল ৯টার সময় আমেনা ও জুলি ঘর থেকে বের না হলে ঘরের দরজা ভেঙে দেখে জুলি গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলছে। আর মেয়েটি অচেতন অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এতে করে সবার ধারণা হচ্ছে মেয়েটিকে বালিশচাপা অথবা শ্বাসরোধ করে মেরে পরে নিজে আত্মহত্যা করেছে জুলি।

জুলির স্বামী মামুন জানান, প্রতিদিনের মতো তার স্ত্রী তাকে সকালে খেতে দেয়। এরপর সে কাজে চলে যায়। সকাল ৯ টার দিকে খবর আসে তার বাড়িতে স্ত্রী ও মেয়ে আত্মহত্যা করেছে। এরপর সে বাড়ি এসে দুইজনের নিথর দেহ পড়ে থাকতে দেখে।

পাশের বাড়ির জনৈক এক নারী বলেন মামুন এর স্ত্রীর নামে চুরির অপবাদ দেয়ায় লজ্জা ঘৃণায় সে আত্মহত্যা করেছে।

শার্শা থানার ওসি মু. আতাউর রহমান বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর পাঠানো হয়েছে। আর এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। আটকরা হলো নিহতর স্বামী মামুন, মুদি দোকানদার আলাউদ্দিনের স্ত্রী রেশমা বেগম ও তার মেয়ে জুলি খাতুন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button