সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

মুক্তিপন আদায়কালে ভুয়া সাংবাদিকসহ গ্রেপ্তার ২  

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দিতে এক কৃষককে অপহরণ করে মুক্তিপন আদায়কালে ভুয়া সাংবাদিকসহ ২জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- পাংশা পৌরসভার মাগুরাডাঙ্গী গ্রামের তাহাজ্জত হোসেনের ছেলে অপু রায়হান (৩২) ও কোড়াপাড়া গ্রামের মো. আলাউদ্দিনের ছেলে মোঃ সোহেল (৩২)। এসময় অপহরণকাজে ব্যবহৃত একটি ওয়ালটন মোটর সাইকেল (রাজবাড়ী-হ-১১-০২০৮) এবং ৪টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

রোববার দুপুরে বালিয়াকান্দি থানার পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত ওবায়েদুল হক এক প্রেস বিফ্রিংয়ে বলেন, শনিবার বিকাল ৩টার দিকে উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের বকশিয়াবাড়ী গ্রামের মো. শাখাওয়াত ফকির ও তার মেয়ে অন্তরা বেগম মাদারীপুরের ভাড়া বাসা থেকে নিজবাড়ীর উদ্দেশ্যে রওনা দেন।

রাত ৮টার দিকে বালিয়াকান্দি উপজেলার রামদিয়া বাজার থেকে অটোভ্যান যোগে বাড়ীর উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে রামদিয়া বাজার ও রসুলপুর মোড়ের মাঝখানে পাকা রাস্তার উপর ফাকা জায়গায় পৌঁছলে অজ্ঞাতনামা ৩জন ব্যাক্তি মোটরসাইকেল যোগে এসে ভ্যান থামিয়ে শাখাওয়াত ফকিরকে তুলে নিয়ে যায়।

অজ্ঞাতনামা ব্যাক্তিরা ফোন করে ৫লক্ষ টাকা মুক্তিপন দাবি করে। তারা টাকা নিয়ে কালুখালী উপজেলার সোনাপুর-বোয়ালিয়া মোড়ে যেতে বলে। টাকা নিয়ে না গেলে শাখাওয়াত ফকিরকে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেয়।

এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে রাজবাড়ী পুলিশ সুপারের নির্দেশে বালিয়াকান্দি থানা পুলিশ তাৎক্ষনিক ভাবে অভিযান পরিচালনা করে। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় শাখাওয়াত ফকির ও অপহরণকারীদের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে বালিয়াকান্দি থানা, পাংশা থানার পুলিশ ফোর্স।

পরে স্থানীয় জনগণের সহায়তায় পাংশা-কুষ্টিয়া মহাসড়ের কলেজপাড়া এলাকার আমবাগান থেকে অপহৃত শাখাওয়াত ফকিরকে উদ্ধার করাসহ অপহরণের সাথে জড়িত পাংশা পৌরসভার মাগুরাডাঙ্গী গ্রামের তাহাজ্জত হোসেনের ছেলে অপু রায়হান (৩২) ও কোড়াপাড়া গ্রামের মো. আলাউদ্দিনের ছেলে মোঃ সোহেলকে (৩২) আটক করা হয়।

এসময় অপহরণকাজে ব্যবহৃত একটি ওয়ালটন মোটরসাইকেল (রাজবাড়ী-হ-১১-০২০৮) এবং ৪টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

আটক করার সময়ে স্থানীয় জনগণের হাতে পিটুনীর শিকার হয়। অপহরনকারী দুইজনকে বালিয়াকান্দি হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়। বালিয়াকান্দি থানায় অন্তরা বেগম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করলে তাদেরকে রোববার রাজবাড়ী আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

অপহৃত শাখাওয়াত হোসেন বলেন, প্রথমে প্রশাসনের লোক পরিচয় দিয়ে আমার মেয়েকে ভ্যানে পাঠিয়ে দিয়ে আমাকে সোনাপুর বাজারে নিয়ে যায়। সেখান থেকে ভয়ভীতি দেখিয়ে মারপিট করাসহ আমার মোবাইলের বিকাশের পিনকোড চায়। পরে আমার বাড়ির ফোনে ফোন দিয়ে টাকা দাবি করে।

গ্রেপ্তারকৃত অপু রায়হান নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দেয়। সে দৈনিক গণতদন্ত নামে একটি পত্রিকার মেয়াদ উত্তীর্ণ কার্ড প্রদর্শন করে। এছাড়াও বিভিন্ন পত্রিকার নাম দিয়ে একটি ভিজিটিং কার্ড প্রদর্শন করে।

ভুয়া সাংবাদিক অপু রায়হানের বিরুদ্ধে পাংশা, গোয়ালন্দ থানায় প্রতারণা, মাদক ও চুরির ৩টি মামলা রয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button