সংবাদ সারাদেশ

মায়ের রাগ না ভাঙাতে পেরে আত্মহত্যা করল ছেলে

সংবাদ চলমান ডেস্কঃ

বরগুনাতে ছেলে ও ছেলের বউয়ের উপর অভিমান করে বাবার বাড়ি চলে যান মা পিয়ারা বেগম। ছেলে বাবুল মিয়াও মায়ের অভিমান ভাঙাতে যান নানার বাড়ি। কিন্তু কাজ আর তেমন হয়নি, মায়ের অভিমানও ভাঙাতে পারেনি। তাই বাড়ি এসে এই ছেলে ফাঁস দিয়েছেন। তিনি এক সন্তানের জনক।

ঘটনাটি গত সোমবার রাতে বরগুনার তালতলী উপজেলার শারিকখালী ইউনিয়নের পশ্চিম বাদুর গাছা গ্রামে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালে পারিবারিকভাবে ওই ইউনিয়নের নলবুনিয়া এলাকার বাদল খাঁনের কন্যা মনিরা বেগমের সঙ্গে পশ্চিম বাদুরগাছা গ্রামের নসু মৃধার ছেলে বাবুল মৃধার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই ছেলের বউয়ের সঙ্গে শাশুড়ি পিয়ারা বেগমের বনিবনা হচ্ছিল না। গত এক সপ্তাহ আগে মা পিয়ারা বেগমের সঙ্গে ছেলের বউ মনিরার কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে ছেলের বউ ও ছেলের ওপর অভিমান করে মা পিয়ারা বেগম তার বাবার বাড়ি চলে যান।

গতকাল সোমবার সকালে অভিমান করা মাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসার জন্য ছেলে বাবুল মৃধা পাশের গ্রাম কচুপাত্রা তার নানার বাড়িতে যায়। মাকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে ছেলে চলে আসে। এরপর থেকেই সারা দিনেও বাবুলের কোনো খোঁজ না পেয়ে পরিবারের সদস্যরা তাকে খোঁজাখুঁজি করে। ওইদিন গভীর রাতে বাবুলের স্ত্রী বসতঘরের পাশে একটি রেইনট্রি গাছের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় বাবুলের মরদেহ দেখতে পেয়ে ডাক চিৎকার করতে থাকেন। এ সময় স্থানীয় প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থলে এসে থানায় খবর দেয়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালে লাশ ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে পাঠানো হয়েছে।

তালতলী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. কামরুজ্জামান মিয়া বলেন, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে প্রাথমিকভাবে ধারণা হচ্ছে,পারিবারিক কলহের জেরে এ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে বলে জানান তিনি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button