সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

ভিজিডি’র কার্ড দেয়ার নামে অর্থ আদায়ের অভিযোগ !

ছেলের মাধ্যমে টাকা নিতেন বলে অভিযোগ রয়েছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে

নওগাঁ  প্রতিনিধি : নওগাঁর বলিহারের ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভিজিডি’র কার্ড দেয়ার নামে টাকা নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ইউপি চেয়ারম্যান আফতাব আলী মণ্ডলের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। অসহায় এলাকাবাসীদের বিভিন্ন কার্ড করে দেয়ার নামে।

এদিকে এলাকার অসহায় মানুষরা ভিজিডি’র কার্ড পাওয়ার আশায় দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সুদের উপর টাকা নিয়ে চেয়ারম্যানের ছেলেকে দিয়েছিলেন। কিন্তু কার্ড না হওয়ায় ভুক্তভোগীরা হতাশ হয়ে পড়েন।

পয়না গ্রামের খোরশেদের স্ত্রী সাবিনা বলেন, তার স্বামী একজন ভ্যানচালক। এক বছর আগে চেয়ারম্যানের ছেলে জুয়েল আমার বাড়িতে এসে ভিজিডির কার্ড করে দেয়া হবে বলে তার বাবার নাম করে টাকা দিতে বলেন। কয়েকদিন সময় নেয়ার পর সুদের উপর সাড়ে চার হাজার টাকা নিয়ে জুয়েলকে দেয়া হয়। পরিষদে যেদিন কার্ড দেয়া হয় সেদিন সবাই কার্ড পেলেও আমি পাইনি। পরে দুইদিন জুয়েলের বাড়িতে গেলেও দেখা করেনি। এরপর চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানানো হলেও তিনি কোনো ব্যবস্থা করেননি।

তিনি আরো বলেন, সাড়ে চার হাজার টাকায় এক বছরে পাঁচ হাজার ৪০০ টাকা সুদ দিতে হয়েছে। হাঁস, মুরগি ও গোবরের কাড়ি বিক্রি করে সেই টাকা পরিশোধ করতে হয়েছে। কিন্তু কার্ড করতে দেয়া সেই টাকা আজো ফেরত পাইনি।

একই গ্রামের আরেক ভুক্তভোগীর মাসুদা বেগম বলেন, আমার স্বামী ইটভাটায় কাজ করেন। কার্ড করে দিবে বলে সুদের উপর টাকা নিয়ে সাড়ে চার হাজার টাকা জুয়েলকে দেয়া হয়। আজকাল কার্ড হবে বলে বছর পার হয়ে গেছে। কিন্তু কার্ড পাইনি। টাকা ফেরত চাইলে ১০ দিন, ১৫ দিন সময় চাই। কিন্তু সময় মতো টাকা দেয় না। এনজিও থেকে টাকা ঋণ নিয়ে সেই সুদের টাকা পরিশোধ করতে হয়েছে। এখন আমার টাকা ফেরত চাই। সেই সঙ্গে তাদের বিচার চাই

চেয়ারম্যানের ছেলে জুয়েল বলেন, কার্ড করে দেয়ার নামে টাকা নিয়েছি সত্য। ৮ থেকে ১০ জনের কাছ থেকে টাকা নিয়েছি। তবে কার্ড করে দিতে দেরি হচ্ছে।

বলিহার ইউপির চেয়ারম্যান আফতাব আলী মণ্ডল বলেন, কার্ড করে দেয়ার নামে টাকা নেয়ার সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নাই। আমার ছেলে জুয়েল এখন আমার সঙ্গে থাকে না। আর আমার নাম করে যদি কেউ টাকা নেয়, তার দায় তো আমি নিবো না। আর এলাকাবাসী তো বিষয়টি আমাকে জানায়নি।

নওগাঁর ইউএনও আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ পাইনি। তবে সুস্পষ্ট অভিযোগ পেলে তদন্ত করা হবে। এরপর অভিযোগের সত্যতা পেলে আইনের দৃষ্টিতে যে ব্যবস্থা হয়, তা গ্রহণ করা হবে

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button