সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

বিসিবিকে না জানিয়ে চুক্তি, সাকিবকে আইনি নোটিশ!

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে আইনি নোটিশ পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি জাতীয় দৈনিককে দেয়া সাক্ষাৎকারে এ তথ্য জানিয়েছেন খোদ বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। কারণ— একটি টেলিকম কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করতে গিয়ে বিসিবি’র এনওসি বা অনাপত্তিপত্র নেননি তিনি।

গ্রামীণফোন-রবি-এয়ারটেল-বাংলালিংক এমন টেলিকম প্রতিষ্ঠানের সাথে ক্রিকেটারদের চুক্তি করার ক্ষেত্রে বিসিবি থেকে এক ধরনের নিষেধাজ্ঞা দেয়া রয়েছে। টেলিকম কোম্পানি রবি বাংলাদেশ জাতীয় দলের স্পন্সর ছিল, আর তখনই কিছু ‘কনফ্লিক্ট অব ইন্টারেস্টে’র কারণে এই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়।

নিয়ম অনুযায়ী, বিসিবি’র কেন্দ্রীয় চুক্তিভুক্ত কোনো ক্রিকেটার যেকোনো প্রতিষ্ঠানের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে চুক্তি করতে চাইলে বোর্ডের কাছ থেকে বাধ্যতামূলকভাবে এনওসি বা অনাপত্তিপত্র নিতে হবে। অথচ গ্রামীণফোনের সঙ্গে চুক্তির আগে সাকিব সেটি নেননি। এমনকি বোর্ডকে এ সম্পর্ক কোনো তথ্যও অবহিত করেননি।

বিস্তারিত ব্যাখ্যায় বিসিবি সভাপতি বলছিলেন-টেলিকম সংস্থা রবি আমাদের টাইটেল স্পন্সর ছিল। তখন সেই টাইটেল স্পন্সরশিপের জন্য গ্রামীণফোন অংশও নেয়নি। অথচ সেই সময়টায় গ্রামীণফোন আমাদের কয়েকজন ক্রিকেটারকে এক কোটি দুই কোটি টাকা দিয়ে তাদের প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে স্পন্সরশিপ চুক্তি করে। এর ফলে বিসিবি তিন বছরে প্রায় ৯০ কোটি টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়! কিছু খেলোয়াড় লাভবান হয়, আর বোর্ড পড়ে আর্থিক ক্ষতিতে। এমনটা তো ঘটতে দেয়া যায় না। খেলোয়াড়রা এখন কে কি চুক্তি করবে সেটা বোর্ডকে অবশ্যই কাগজপত্রের মাধ্যমে জানাতে হবে।

শুধু তাই নয়, আমাদের চুক্তিপত্রে এটা বলা আছে যে, মন্ত্রণালয়কে না জানিয়ে কোন টেলিকম প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যেন ক্রিকেটাররা চুক্তি না করে। তাহলে এমন পরিস্থিতিতে আমাদেরকে না জানিয়ে কেন কোন ক্রিকেটার এমন বাণিজ্যিক চুক্তি করবে? আর তার (সাকিবের) এই চুক্তির সময়টা দেখেন? যখন কোনো ক্রিকেট ছিল না (ক্রিকেটারদের ধর্মঘটের কারণে) তখনই চুক্তিটা হয়েছে। এটা তো ঔদ্ধত্য! আমরা আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছি। এই বিষয়ে আমরা কাউকে ছাড় দেবো না। অবশ্যই ক্ষতিপূরণটা দাবি করবো। শুধু খেলোয়াড় নয়, আমরা সেই প্রতিষ্ঠান থেকেও ক্ষতিপূরণ চাইবো।

আমি সাকিব ও গ্রামীণফোনের এই চুক্তি সম্পর্কে ২৩ অক্টোবর জানতে পেরেছি। তারপর গ্রামীণফোনে কাছে ক্ষতিপূরণ চেয়ে আইনী নোটিশ পাঠিয়েছি। সাকিবকে এই বিষয়ে যথাযথ ব্যাখা দেয়ার জন্য চিঠি পাঠানো হয়েছে। সে যে কোন নিয়ম ভাঙ্গেনি সেটা প্রমাণ করার জন্য সুযোগ তাকে দেয়া হবে। আমাদের কাছে ব্যাপারটাকে মনে হয়েছে, বোর্ডের কোন নিয়ম-কানুন মানি না টাইপের মতো! এমন কিছু হলে আমরা অবশ্যই কঠোর ব্যবস্থা নেবো।

গ্রামীণফোনের সঙ্গে সাকিব চুক্তিবদ্ধ হওয়া বিষয়ে বিসিবি’র সিইও নিজামউদ্দিন গণমাধ্যমকে বলেছেন, আসলে আমরা খেলোয়াড়দের জানিয়ে দিয়েছি, এমন কারো সঙ্গে যেন চুক্তিবদ্ধ না হয় যাতে কেন্দ্রীয় স্পন্সরের সঙ্গে কোনো জটিলতা তৈরি হয়। এখন আমাদের সঙ্গে ইউনিলিভারের চুক্তি রয়েছে, এই চুক্তি খুব দ্রুতই শেষ হয়ে যাবে। আর এখনই যদি কোনো ক্রিকেটার কোনো টেলকম কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করে, তাহলে আর কোনো কোম্পানি আমাদের স্পন্সর করতে রাজি হবে না।

তবে এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত সাকিব আল হাসান কোনো ধরনের মন্তব্য করেননি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button