সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

বরগুনায় বিয়ে বাড়িতে লাশের মিছিল

গতকাল শনিবার (২২ জুন) সকাল থেকে বর ডা. সোহাগের বাড়িতে চলছিল কনেপক্ষকে বৌভাত খাওয়ানোর আনন্দ আয়োজন। হঠাৎ খবর আসে কনেপক্ষের যাত্রীবাহী মাইক্রোবাস ও একটি অটোরিকশা হলদিয়া ব্রিজ ভেঙে খালে পড়ে গেছে। তারা ছুটে এসে দেখতে পায় ঘটনাস্থলে নিহত ৯ জনের লাশ। মুহূর্তে শোকে পরিণত হয় আনন্দ। 

শনিবার দুপুরে বরগুনার আমতলী উপজেলার হলদিয়া-চাওড়া সড়কে হলদিয়া খালের ওপর লোহার সেতু ভেঙে মাইক্রোবাস ও অটোরিকশা পানিতে পড়ে যায়। এতে মোট ১২জন নারী পুরুষের মধ্যে নারী-শিশুসহ ৯ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। ৯ জনের নিহতের ঘটনায় বর ডা. সোহাগ ও কনে হুমায়রার বাড়িতে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। 

জানা যায়, আমতলী উপজেলা কাউনিয়া ইব্রাহিম একাডেমি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক উত্তর তক্তাবুনিয়া গ্রামের মাসুম বিল্লাহ মনিরের মেয়ে হুমায়রা আক্তারের সঙ্গে একই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আমতলী পৌরশহরের খোন্তাকাটা গ্রামের বাসিন্দা সেলিম মাহমুদের ছেলে ডা. সোহাগের বিয়ে হয়। শুক্রবার (২১ জুন) বউ নিয়ে বাড়ি আসেন বর। 

শনিবার (২২ জুন) মেয়ের পক্ষের লোকজন মাইক্রোবাস এবং অটোরিকশায় বরের বাড়িতে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে হলদিয়া সেতু পার হওয়ার সময় মাঝের অংশ ভেঙে যায়। এতে মাইক্রোবাস ও অটোরিকশা খালে পড়ে যায়। অটোরিকশার যাত্রীরা সকলে সাঁতরে কিনারে উঠতে পারলেও মাইক্রোবাসের যাত্রীরা পানিতে তলিয়ে যায়। 

প্রত্যক্ষদর্শী নাশির উদ্দিন জানান, তাৎক্ষণিক ভাবে স্থানীয়রা ঐ মাইক্রোবাসে থাকা যাত্রীদের উদ্ধারের চেষ্টা চালায়। কিন্তু ততক্ষণে ৯ জন মারা যান।

নিহতরা হলেন, মাদারীপুরের শিবচরের মুনী বেগম (৪০), তার ছোট মেয়ে তাহিয়া (৭), বড় মেয়ে তাসফিয়া (১১), একই এলাকার ফরিদা বেগম (৫৫), রাইতি (৩০), ফাতেমা আক্তার (৪০), রুবী বেগম (৪০), হলদিয়া গ্রামের জহিরুল ইসলামের মেয়ে হৃদি (৫) ও তার মা জাকিয়া বেগম (৩০)।

সন্ধ্যায় সরেজমিনে বর ডা. সোহাগের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে সুনসান নীরবতা। খাবার পড়ে আছে। কনের বাড়িতে কান্নার রোল। এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠেছে পরিবেশ।

বরের বাবা সেলিম মাহমুদ বলেন, এমন দুর্ঘটনায় আমি হতভম্ব। কনে পক্ষের লোকজনের জন্য সকল আয়োজন ছিল কিন্তু সব কিছু তছনছ হয়ে গেল।

কনের বাবা মাসুম বিল্লাহ মনির বলেন, আমার কিছুই বলার নেই। আমি শ্বশুর বাড়ির মানুষকে কী জবাব দেব? বিয়ে বাড়ি হবার কথা ছিল আনন্দের। এখন দুটি পরিবার শোকে স্তব্ধ।

এ ঘটনায় বরগুনা জেলা প্রশাসক মোহা. রফিকুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে যদি ব্রিজ নির্মাণে কোনো অনিয়ম পাওয়া যায় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পড়ুন
Close
Back to top button