সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

বাংলাদেশে তৈরী জাহাজ ভারতে রপ্তানি

সংবাদ চলমান ডেস্ক : জেএসডব্লিউ সিংহগড় ও জেএসডব্লিউ লোহগড় নামে বাংলাদেশে তৈরি সবচেয়ে বড় দুটি জাহাজ প্রতিবেশী ভারতে রফতানি করলো বাংলাদেশ। প্রতিটি জাহাজ বিক্রি হলো ৫০ কোটি টাকা করে।

ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডে এ দুটি জাহাজ নির্মাণ করা হয়েছে। শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে জাহাজ দুটি হস্তান্তর করা হয়। ভারতের ‘জিন্দাল স্টিল ওয়ার্কস’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান জাহাজ দুটি বুঝে নেয়। এ উপলক্ষে চট্টগ্রাম বন্দরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এবং ভারতের হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, প্রতিটি জাহাজের ধারণ ক্ষমতা ৮ হাজার ডিডব্লিউটি (ডেডওয়েট টনেজ)। এত ধারণক্ষমতার কার্গো জাহাজ এর আগে বাংলাদেশে তৈরি হয়নি। ফলে এই দুটি দেশে নির্মিত সবচেয়ে বড় জাহাজ। ওয়েস্টার্ন মেরিনকে ২০১৫ সালে ভারতের জিন্দাল স্টিল ওয়ার্কস চারটি জাহাজ নির্মাণের কার্যাদেশ দেয়। তার মধ্যে জেএসডব্লিউ রায়গড় ও জেএসডব্লিউ প্রতাপগড় নামের দুটি জাহাজ ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে হস্তান্তর করা হয়। বাকি দুটি আজ হস্তান্তর করা হলো।

সর্বোচ্চ ১০ নটিক্যাল মাইল গতিতে চলতে সক্ষম জাহাজগুলি ভারতের মুম্বাই এবং গোয়ার মধ্যবর্তী জয়গড় বন্দর থেকে মহারাষ্ট্রে অবস্থিত ধরমতার বন্দরে খনিজ লোহা এবং কয়লা বহনের কাজে ব্যবহার করা হবে।

উক্ত অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান পৃথিবী হচ্ছে পার্টনারশিপ ব্যবসার ক্ষেত্র। ভারতের কাছে কোনো একটা জিনিস বিক্রি করতে পারলে আমাদেরই লাভ। আমরা ভারত থেকে বেশি সুবিধা নিতে পারি। যখন সমস্যা হয়েছে ভারত আমাদের পাশে ছিল। আশা করি ভারত জাহাজ নির্মাণে আরও কার্যাদেশ দেবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা এখন আর একটি পণ্য রপ্তানি নিয়ে বসে নাই। শুধু পোশাকই নয়, এখন জাহাজও রপ্তানি করছি আমরা। বিভিন্ন ধরনের জাহাজ নির্মাণে আমাদের সক্ষমতা বাড়ছে। সামগ্রিকভাবেই জাহাজ নির্মাণশিল্পের অগ্রগতি হয়েছে।’

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘২০২১ সালে আমাদের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ৬০ মিলিয়ন ডলার। তাই আমরা নতুন নতুন পণ্য রপ্তানির দিকে যাচ্ছি। আগে শুধু গার্মেন্টস পণ্য রপ্তানি হতো। কিন্তু এখন আমাদের জাহাজও রপ্তানি হচ্ছে। এটি বাংলাদেশের নাম বহির্বিশ্বে উজ্জ্বল করছে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ভারতীয় হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি দাশ বলেন, ‘আজ মুজিববর্ষ পালন শুরু হচ্ছে। এমন গুরুত্বপূর্ণ দিনে এই আয়োজন বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ককে আরও গভীর করবে। বাংলাদেশ গার্মেন্টস শিল্পে এতদিন প্রবৃদ্ধি অর্জন করে আসছিল। কিন্তু এখন জাহাজ শিল্পেও প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে। বাংলাদেশ থেকে ভারত যে জাহাজগুলো কিনছে সেগুলো মানে যেমন ভালো, তেমনি ভালো সার্ভিসও দিচ্ছে।’

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button