সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

পুলিশ উপ-পরিদর্শকের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী’র কাছে অভিযোগ

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
পটুয়াখালীর কলাপাড়া থানার পুলিশ উপ-পরিদর্শক মো. আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে এক চা দোকানদারকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর ভয় দেখিয়ে ১৭ হাজার টাকা উৎকোচ গ্রহনের অভিযোগ উঠেছে।

এ সম্বলিত একটি দরখাস্ত পটুয়াখালী পুলিশ সুপার বরাবর সম্প্রতি প্রেরণ করা হয়েছে। যার অনুলিপি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী, আইজিপি, ডিআইজি বরিশাল রেঞ্জ, ডিসি পুটয়াখালী, দুদক পুটয়াখালী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার কলাপাড়াসহ স্থানীয় প্রেসক্লাবে প্রেরণ করা হয়েছে।

তবে দরখাস্তকারীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ওই দরখাস্ত দেননি বলে জানালেও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্র বলছে, পুলিশের ভয়ে চা দোকানদার এখন অস্বীকার করছে।

উপজেলার চাকামইয়া ইউনিয়নের আনিপাড়া গ্রামের মো. আবু তালেবের পুত্র আনিপাড়া খেয়াঘাট এলাকার চা দোকানী বাহাদুরকে ৩ পিচ ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ সম্বলিত দরখাস্তটি ডাক বিভাগের মাধ্যমে প্রেসক্লাবে এসে পৌঁছে।

এতে অভিযোগ করা হয় ৭ নভেম্বর সকাল অনুমান ১০টার দিকে ২/৩ জন অপরিচিত পুলিশ নিয়ে উপ-পরিদর্শক মো. আবুল হোসেন সাদা পোষাকে এসে আনিপাড়া খেয়াঘাট এলাকায় বাহাদুরের দোকানে চা খায়। এরপর দোকানে বসা সমস্ত লোকদের সরে যেতে বলে। পরক্ষণে তিনি দোকানের ভেতর ইয়াবা আছে বলে তন্ন তন্ন করে খোঁজে। এরপর হাতের মুঠোর ভেতর থেকে ৩ পিচ ইয়াবা বের করে বাহাদুরকে বলে যদি বাঁচতে চাও ৫০ হাজার টাকা দাও, অন্যথায় সমস্ত জীবন জেলের ভেতর পঁচে মরতে হবে। ভয়ে বাহাদুর কান্না কাটি করে তার হাতে পায়ে ধরলেও কোন কাজ হয়নি।

নিরুপায় হয়ে অন্যলোকের কাছ থেকে এনে ১৭ হাজার টাকা তার হাতে দিলে বাহাদুরকে ছেড়ে দিয়ে পুলিশ অফিসার আবুল হোসেন বলেন, এই টাকার কথা কাউকে বলবি না, বললে বড় ধরনের মামলায় জড়িয়ে দেবো।

এদিকে অভিযোগটি পড়ার পর চা দোকানদার বাহাদুরের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করলে, বাহাদুর এ নিয়ে কথা বলতে রাজী হয়নি। এমনকি প্রেসক্লাবে ওই দরখাস্ত প্রেরণের বিষয়টিও বাহাদুর অস্বীকার করে।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, বাহাদুরকে মামলা ও গ্রেপ্তারের ভয় দেখানোর পর বাহাদুর অভিযোগ দেয়ার পরও অস্বীকার করছে।

কলাপাড়া থানার পুলিশ উপ-পরিদর্শক মো. আবুল হোসেন তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ’সম্প্রতি ৪০ হাজার পিচ ইয়াবার একটি চালান চাকামইয়া এলাকা থেকে আটক করা হয়েছে। এতে কয়েক প্রভাবশালীর গোপন আয় বন্ধের উপক্রম হয়ে পড়ায় তারা উল্লিখিত দরখাস্ত দিয়ে ষড়যন্ত্র করছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button