সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

নাটোর ট্রাফিক বিভাগের অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে প্রতিবেদন পর্ব -১

নিজস্ব প্রতিবেদক : নাটোরে ট্রাফিক বিভাগের চাঁদার  টাকা উত্তোলনকে কেন্দ্র করে  টিআই ও ট্রাফিক সার্জেন্টদের মধ্যে দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে  রুপ নিয়েছে। এ নিয়ে ট্রাফিক বিভাগের টিআই ও দুই সার্জেন্টের মধ্যে দ্দ্বন্দের অভিযোগ উঠেছে।  এই নিয়ে  উভয়ের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে  বলেও অভিযোগ উঠেছে ।

জানাগেছে প্রতি মাসে পরিবহন সেক্টর থেকে চাঁদা এই অবৈধ কয়েক লাখ টাকা ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে ট্রাফিক বিভাগের দুই পক্ষের মধ্যে এই অসন্তোষ বিরাজ করছে।

নাটোর জেলা পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের সার্জেন্ট আতাউর ও সার্জেন্ট মমিন  নাটোর ট্রাফিক বিভাগের নামে  অভিযোগ করে বলেন, ট্রাফিক বিভাগের টিআই-১ বিকর্ণ চৌধুরী, টিআই মিনহাজ ও এটিএসআই রশিদ দালাল রাসেল নামের একব্যক্তির মাধ্যমে প্রতি মাসে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নেন । এই টাকার শতকার ১৫% সরকারী খাতে জমা দেয়া  হলেও বাকি টাকা টিআই পুলিশ সুপারকে দিয়ে ভাগাভাগি করে নেয়।

সার্জেন্ট আতাউর আরো অভিযোগ করে বলেন, এটিএসআই রশিদ হাবিলদার পদমর্যদার হয়ে  বিভিন্ন ক্ষমতার দাপট দেখান। সরকারী বিধান অনুযায়ী তিনি মামলা দিতে হলে উদ্ধর্তন কর্মকর্তার নির্দেশনা নেওয়ার নিয়ম রয়েছে । আমরা কোন গাড়ী ধরলে এটিএসআই রশিদ ফোন করে বলেন, মিট আছে ছেড়ে দেন। না ছাড়তে চাইলে উপরের ক্ষমতা দিয়ে ছাড়ার ব্যবস্থা করেদেন।

এটিএসআই রশিদ, টিআই-১ এর লোক হওয়ায় আমাদের সাথে অশুভ আচরণ করেন। পদমর্যাদায় ছোট হয়েও আমাদেরকেই হুকুম করেন এটিএসআই রসিদ । টিআই-১ তাকে নিয়ন্ত্রণ করেন।

সংবাদ চলমান এর এক প্রশ্নের জবাবে সার্জেন্ট আতাউর ও মমিন বলেন, টিআই-১ বিকর্ণ এটিএসআই রশিদকে নিয়ন্ত্রণ করেন। এজন্য তিনি বেপরোয়া। অন্যদিকে কথিত রাসেল নামের এক দালালকে দিয়ে প্রতি মাসে বিভিন্ন রুট থেকে আসা গাড়ীর কাছ থেকে ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় বলেও অভিযোগ করেন।

এ বিষয়টি স্থানীয় অনেকেই জানেন। রাসেলকে  নাটোরের পরিবহন চালকরা দালাল হিসেবেই চেনেন। শুধু চালকরাই নন স্থানীয় মানুষ বিষয়টি সম্পর্কে অবগত।

এক প্রশ্নের জবাবে অভিযোগ-কারী, দুই সার্জেন্টের নিকট জানতে চাওয়া হলে আপনাদের বিরুদ্ধেও তো অভিযোগ রয়েছে আপনারা চাঁদাবাজি করেন ও চালকরা আপনাদের নিয়ে আতঙ্কে থাকেন তাহলে আপনি টিআই এর বিরুদ্ধে অভিযোগ করছেন কেন?

এমন প্রশ্নের জবাবে তারা বলেন, টিআই স্যার আমাদের বিরুদ্ধে এ ধরণের অভিযোগ তুলে ষড়যন্ত্র করছেন। আমাদের বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ মিথ্যা। এ বিষয়ে টিআই-১ বিকর্ণ চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ সত্য নয়। দুই সার্জেন্ট আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তুলছে। আমি  কোন প্রকার অনিয়মের সাথে জড়িত না।
এদিকে,  একটি পক্ষ থেকে যেন সংবাদ প্রকাশ না করা হয় এই জন্য  তদবির করা হয়। দুই সার্জেন্ট মমিন ও আতাউর  রাজশাহীস্থ অফিসে গিয়েও সংবাদ প্রকাশ না করার জন্য তদবির করেন।

এ বিষয়ে নাটোর জেলা পুলিশ সুপারের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে  তিনি মুঠো-ফোনে বিভিন্ন অভিযোগের স্থানে ফোন দিয়ে জানার চেস্টা করেন । তিনি বলেন ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে অনিয়মের প্রমান মিললে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। চলবে-

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button