সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

ধারের টাকা না পেয়ে বন্ধুকে হত্যা করে বন্ধু লিয়ন

রংপুর প্রতিনিধি: রংপুরের হারাগাছে পোশাক শ্রমিক সুমন হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। হত্যার সঙ্গে জড়িত মূল হোতা ডেকোরেটর ব্যবসায়ী বন্ধু লিয়নকে দিনাজপুরের পার্বতীপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়।
এ ছাড়াও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ধারালো অস্ত্র এবং ছিনতাইকৃত মোবাইল উদ্ধার করেছে পুলিশ।
গ্রেফতারকৃত লিয়ন কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ পৌরসভার সারাই নিউ কসাইটারী গ্রামের মহির আলীর ছেলে।
ধারের টাকা ফেরত না দেয়ায় সুমনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ডেকোরেটর ব্যবসায়ী বন্ধু লিয়ন হত্যা করেছে বলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।
সোমবার হারাগাছ থানায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) শহিদুল্লাহ কাওছার।
তিনি বলেন, নিহত সুমন ও লিয়নের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক ছিল। বন্ধুত্বের কারণে সুমনকে বেশকিছু টাকা ধার দেয় লিয়ন। পরবর্তীতে ধারের টাকা ফেরত চাইলে সুমন টাকা দিতে গড়িমসি করে। এ নিয়ে তাদের দুই বন্ধুর মধ্য ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে সুমন পায়ের স্যান্ডেল খুলে লিয়নের গালে মারে।
এ নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ তৈরি হয়। পরে সুমনকে মেরে ফলার পরিকল্পনা করে বন্ধু লিয়ন। তার পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ১৭ ডিসেম্বর রাতে হারাগাছ পৌরসভার সারাই বায়তুল আমান জামে মসজিদের পেছনে পুকুরের কাছে সুমনকে ফোনে ডেকে নিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে প্রথমে মাথার পিছনে কোপ মারলে সুমন অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পড়ে যায়। পরে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে পাশেই সেপটিক ট্যাংকির ভেতর সুমনের লাশ ফেলে রাখে। সুমনের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন নিয়ে পালিয় যায় লিমন।
অবশেষে নিখোঁজের ১০ দিন পর শুক্রবার বিকালে স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিতে সেপটিক ট্যাংকির ভেতর থেকে সুমনের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
সুমন হারাগাছ পৌর শহরের সারাই নিউ কাজীপাড়া গ্রামের রহিম মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় হারাগাছ থানায় একটি হত্যা মামলা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান, হারাগাছ থানার ওসি একেএম নাজমুল কাদেরসহ পুলিশের অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button